আলেম-উলামাদের মুক্তি ও কওমি মাদ্রাসা খুলে দেয়ার দাবি
jugantor
আলেম-উলামাদের মুক্তি ও কওমি মাদ্রাসা খুলে দেয়ার দাবি

  হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

০৭ জুন ২০২১, ২১:৪৪:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

গ্রেফতারকৃত সব নিরপরাধ আলেম-উলামাদের মুক্তি ও কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ।

সোমবার কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং পরবর্তী বৈঠক থেকে এই দাবি জানানো হয়। সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব দাবি বিষয়টি জানান হেফাজত নেতৃবৃন্দ।

বিজ্ঞপ্তিতে স্বাক্ষর করেন হেফাজত নেতা আল্লামা নুরুল ইসলাম, আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, মাওলানা আব্দুল হক, মিজানুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, মাওলানা ইয়াহিয়া, মাওলানা সাজিদুর রহমান, মাওলানা আব্দুল আওয়াল, মাওলানা আনোয়ারুল করিম, মাওলানা আইয়ুব বাবুনগরী, মাওলানা মোবারক উল্লাহ, মাওলানা ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মুসতাক আহমদ, মাওলানা শাব্বির আহমদ রশিদ, মাওলানা আনাস (ভোলা), মাওলানা মাহমুদুল আলম, মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী, মাওলানা হাবিবুর রহমান কাসেমী, সহকারী মহাসচিব মাওলানা জহুরুল ইসলাম, মাওলানা মীর ইদরিস, আব্দুল কাইয়ুম সুবহানী, মাওলানা জামাল উদ্দীন।

বৈঠক থেকে হেফাজত নেতৃবৃন্দ দাবি করেন, অনতিবিলম্বে আটককৃত সব আলেম-উলামা ও তৌহিদী জনতাদের মুক্তি দিতে হবে। অনেক নির্দোষ আলেম-উলামা ও সাধারণ মানুষ গ্রেফতার হয়ে আছেন। আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি তাদের মুক্তি দিন। আলেম-উলামাদের বয়ানের মিম্বার ও হাদিসের মসনদে ফেরার ব্যবস্থা করুন।

এছাড়াও আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি অনতিবিলম্বে দেশের সকল কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়া হোক। কওমি মাদ্রাসাগুলো দ্বীনি প্রতিষ্ঠান। কওমি মাদরাসাগুলোর কারণে আমাদের দেশে আল্লাহর রহমত বর্ষিত হয়। সরকার এর আগেও কওমি মাদরাসাগুলো খুলে দিয়েছিল। কোনো মাদ্রাসায় করোনা সংক্রমিত হওয়ার ঘটনা ঘটেনি।

আলেম-উলামাদের মুক্তি ও কওমি মাদ্রাসা খুলে দেয়ার দাবি

 হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
০৭ জুন ২০২১, ০৯:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গ্রেফতারকৃত সব নিরপরাধ আলেম-উলামাদের মুক্তি ও কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ।

সোমবার কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং পরবর্তী বৈঠক থেকে এই দাবি জানানো হয়। সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব দাবি বিষয়টি জানান হেফাজত নেতৃবৃন্দ।

বিজ্ঞপ্তিতে স্বাক্ষর করেন হেফাজত নেতা আল্লামা নুরুল ইসলাম, আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, মাওলানা আব্দুল হক, মিজানুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, মাওলানা ইয়াহিয়া, মাওলানা সাজিদুর রহমান, মাওলানা আব্দুল আওয়াল, মাওলানা আনোয়ারুল করিম, মাওলানা আইয়ুব বাবুনগরী,  মাওলানা মোবারক উল্লাহ, মাওলানা ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মুসতাক আহমদ, মাওলানা শাব্বির আহমদ রশিদ, মাওলানা আনাস (ভোলা), মাওলানা মাহমুদুল আলম, মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী, মাওলানা হাবিবুর রহমান কাসেমী, সহকারী মহাসচিব মাওলানা জহুরুল ইসলাম, মাওলানা মীর ইদরিস,  আব্দুল কাইয়ুম সুবহানী, মাওলানা জামাল উদ্দীন।

বৈঠক থেকে হেফাজত নেতৃবৃন্দ দাবি করেন, অনতিবিলম্বে আটককৃত সব আলেম-উলামা ও তৌহিদী জনতাদের মুক্তি দিতে হবে। অনেক নির্দোষ আলেম-উলামা ও সাধারণ মানুষ গ্রেফতার হয়ে আছেন। আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি তাদের মুক্তি দিন। আলেম-উলামাদের বয়ানের মিম্বার ও হাদিসের মসনদে ফেরার ব্যবস্থা করুন।

এছাড়াও আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি অনতিবিলম্বে দেশের সকল কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়া হোক। কওমি মাদ্রাসাগুলো দ্বীনি প্রতিষ্ঠান। কওমি মাদরাসাগুলোর কারণে আমাদের দেশে আল্লাহর রহমত বর্ষিত হয়। সরকার এর আগেও কওমি মাদরাসাগুলো খুলে দিয়েছিল। কোনো মাদ্রাসায় করোনা সংক্রমিত হওয়ার ঘটনা ঘটেনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন