প্রতিবেশীর সঙ্গে মায়ের কথা বলতে দেরি হওয়ায় ছেলের কাণ্ড
jugantor
প্রতিবেশীর সঙ্গে মায়ের কথা বলতে দেরি হওয়ায় ছেলের কাণ্ড

  বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি  

০৮ জুন ২০২১, ২২:২৯:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর বাঘায় প্রতিবেশীর সঙ্গে মায়ের কথা বলতে দেরি হওয়ায় মায়ের ওপর অভিমান করে ফরহাদ হোসেন (১০) নামের এক পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটেছে।

ফরহাদ হোসেন উপজেলার চকরপাড়া গ্রামের জালাল হোসেনের ছেলে। সে আড়ানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকালে ঘুম থেকে উঠে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফিরে ফরহাদ। বাড়িতে এসে ভাত খেতে চায়। ভাত বাড়া আছে বলে গ্রামের এক প্রতিবেশীর সঙ্গে কথা বলছিল তার মা নাসরিন বেগম। তার মায়ের বাড়িতে আসা দেরি দেখে শয়ন ঘরের তীরের সঙ্গে অভিমান করে ফাঁস দেয়।

কিছুক্ষণ পর তার মা এসে দেখেন সে ঘরের তীরের সঙ্গে ঝুলছে। তার মায়ের চিৎকারের প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়।

এ বিষয়ে বাঘা থানার এসআই তৈয়বুব রহমান বলেন, আমি তার শরীরের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেছি। কথাও কোনো চিহ্ন পায়নি। এছাড়া তার পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় লাশ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে এ বিষয়ে একটি ইউডি মামলা হয়েছে।

প্রতিবেশীর সঙ্গে মায়ের কথা বলতে দেরি হওয়ায় ছেলের কাণ্ড

 বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
০৮ জুন ২০২১, ১০:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর বাঘায় প্রতিবেশীর সঙ্গে মায়ের কথা বলতে দেরি হওয়ায় মায়ের ওপর অভিমান করে ফরহাদ হোসেন (১০) নামের এক পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটেছে।

ফরহাদ হোসেন উপজেলার চকরপাড়া গ্রামের জালাল হোসেনের ছেলে। সে আড়ানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকালে ঘুম থেকে উঠে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফিরে ফরহাদ। বাড়িতে এসে ভাত খেতে চায়। ভাত বাড়া আছে বলে গ্রামের এক প্রতিবেশীর সঙ্গে কথা বলছিল তার মা নাসরিন বেগম। তার মায়ের বাড়িতে আসা দেরি দেখে শয়ন ঘরের তীরের সঙ্গে অভিমান করে ফাঁস দেয়।

কিছুক্ষণ পর তার মা এসে দেখেন সে ঘরের তীরের সঙ্গে ঝুলছে। তার মায়ের চিৎকারের প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়।

এ বিষয়ে বাঘা থানার এসআই তৈয়বুব রহমান বলেন, আমি তার শরীরের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেছি। কথাও কোনো চিহ্ন পায়নি। এছাড়া তার পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় লাশ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে এ বিষয়ে একটি ইউডি মামলা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন