অল্প খরচে অক্সিজেন উৎপাদন প্ল্যান্ট তৈরি করেছে স্কুলছাত্র তারিফ
jugantor
অল্প খরচে অক্সিজেন উৎপাদন প্ল্যান্ট তৈরি করেছে স্কুলছাত্র তারিফ

  ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি  

০৮ জুন ২০২১, ২২:৫১:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

চলমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় অক্সিজেনের চাহিদা পূরণ করতে স্বল্প খরচে অক্সিজেন তৈরির মেশিন তৈরি করেছে ঈশ্বরদী এসএম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী তাহের মাহমুদ তারিফ। সে বাতাস থেকে অক্সিজেন তৈরি করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে তার তৈরি কৃত প্ল্যান্ট থেকে অক্সিজেন তৈরি করে দেখান। এই মেশিনটি তৈরি করতে তারিফ এর সময় লেগেছে দুই সপ্তাহ এবং খরচ হয়েছে ৬৫ হাজার টাকা।

এ ব্যাপারে তারিফ জানায়, প্ল্যান্ট তৈরি করতে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিএম ইমরুল কায়েস ও আমার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

তারিফ আরও জানায়, করোনাভাইরাসের আক্রমণে সবার আগে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় ফুসফুস। আহত ফুসফুস বাতাস থেকে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সংগ্রহের সামর্থ্য হারাতে থাকে। ফলে শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায়। এ কারণে করোনা আক্রান্ত মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। তাই বলা হয় করোনারোগীর জন্য অতিপ্রয়োজনীয় জীবনরক্ষাকারী ওষুধ হলো মেডিকেল অক্সিজেন।

একজন সুস্থ মানুষের শরীরে অক্সিজেন স্বাভাবিক মাত্রা হচ্ছে ৯৫-১০০%। এই মাত্রা ৯৩%-র কম হলে সতর্ক হতে হয় এবং ৯২%-র কম হলে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করা আবশ্যক।

এ ব্যাপারে এসএম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আয়নুল ইসলাম জানান, তারিফের মেধা ও পরিশ্রমকে আমরা গুরুত্ব দিয়ে তাকে উৎসাহ দিয়েছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিএম ইমরুল কায়েস জানান, আমরা তারিফ উদ্ভাবিত অক্সিজেন প্ল্যান্টটি জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কাছে পাঠাব পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য।

অল্প খরচে অক্সিজেন উৎপাদন প্ল্যান্ট তৈরি করেছে স্কুলছাত্র তারিফ

 ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি 
০৮ জুন ২০২১, ১০:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চলমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় অক্সিজেনের চাহিদা পূরণ করতে স্বল্প খরচে অক্সিজেন তৈরির মেশিন তৈরি করেছে ঈশ্বরদী এসএম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী তাহের মাহমুদ তারিফ। সে বাতাস থেকে অক্সিজেন তৈরি করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে তার তৈরি কৃত প্ল্যান্ট থেকে অক্সিজেন তৈরি করে দেখান। এই মেশিনটি তৈরি করতে তারিফ এর সময় লেগেছে দুই সপ্তাহ এবং খরচ হয়েছে ৬৫ হাজার টাকা।

এ ব্যাপারে তারিফ জানায়, প্ল্যান্ট তৈরি করতে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিএম ইমরুল কায়েস ও আমার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

তারিফ আরও জানায়, করোনাভাইরাসের আক্রমণে সবার আগে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় ফুসফুস। আহত ফুসফুস বাতাস থেকে শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সংগ্রহের সামর্থ্য হারাতে থাকে। ফলে শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায়। এ কারণে করোনা আক্রান্ত মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। তাই বলা হয় করোনারোগীর জন্য অতিপ্রয়োজনীয় জীবনরক্ষাকারী ওষুধ হলো মেডিকেল অক্সিজেন।

একজন সুস্থ মানুষের শরীরে অক্সিজেন স্বাভাবিক মাত্রা হচ্ছে ৯৫-১০০%। এই মাত্রা ৯৩%-র কম হলে সতর্ক হতে হয় এবং ৯২%-র কম হলে চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করা আবশ্যক।

এ ব্যাপারে এসএম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আয়নুল ইসলাম জানান, তারিফের মেধা ও পরিশ্রমকে আমরা গুরুত্ব দিয়ে তাকে উৎসাহ দিয়েছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিএম ইমরুল কায়েস জানান, আমরা তারিফ উদ্ভাবিত অক্সিজেন প্ল্যান্টটি জেলা প্রশাসক মহোদয়ের কাছে পাঠাব পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন