স্বামী বাড়িতে আসার পর গৃহবধূর বিষপান
jugantor
স্বামী বাড়িতে আসার পর গৃহবধূর বিষপান

  পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি  

০৯ জুন ২০২১, ১৮:২৯:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের পীরগঞ্জে স্বামী বাড়ি আসার পর অভিমান করে রিতু বেগম (১৯) নামে এক গৃহবধূ বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার সকালে ভেন্ডাবাড়ী ইউনিয়নের ভেন্ডাবাড়ী গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্র জানা যায়- প্রায় ১ বছর পূর্বে ভেন্ডাবাড়ী গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে বাসচালক শামীম মিয়ার (২৪) সঙ্গে একই গ্রামের রতন মিয়ার কন্যা রিতু বেগমের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে শামীম, রিতু দম্পতির সংসার ভালই চলছিল।

করোনাকালীন সময় হেতু শামীম মিয়া সম্প্রতি রংপুর- কুড়িগ্রাম সড়কে বাস চালকের কাজ করতেন। প্রায় সপ্তাহখানেক পর মঙ্গলবার রাতে শামীম বাড়িতে আসেন। সংসারের তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাতে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে বাক-বিতণ্ডা হয়।

এরই সূত্র ধরে স্বামী শামীমের প্রতি অভিমান করে মঙ্গলবার গভীররাতে সবার অজান্তে রিতু কীটনাশক পান করেন। একপর্যায়ে রাতে স্থানীয় ডাক্তার ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে রিতু মারা যায়।

রংপুর পুলিশের ডি সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান সেবা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, কোনোপক্ষের অভিযোগ বা আপত্তি এবং লাশের শরীরে কোনো দাগ ছিল না। শামীম-রিতুর পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

স্বামী বাড়িতে আসার পর গৃহবধূর বিষপান

 পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি 
০৯ জুন ২০২১, ০৬:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের পীরগঞ্জে স্বামী বাড়ি আসার পর অভিমান করে রিতু বেগম (১৯) নামে এক গৃহবধূ বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার সকালে ভেন্ডাবাড়ী ইউনিয়নের ভেন্ডাবাড়ী গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্র জানা যায়- প্রায় ১ বছর পূর্বে ভেন্ডাবাড়ী গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে বাসচালক শামীম মিয়ার (২৪) সঙ্গে একই গ্রামের রতন মিয়ার কন্যা রিতু বেগমের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে শামীম, রিতু দম্পতির সংসার ভালই চলছিল।

করোনাকালীন সময় হেতু শামীম মিয়া সম্প্রতি রংপুর- কুড়িগ্রাম সড়কে বাস চালকের কাজ করতেন। প্রায় সপ্তাহখানেক পর মঙ্গলবার রাতে শামীম বাড়িতে আসেন। সংসারের তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাতে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে বাক-বিতণ্ডা হয়।

এরই সূত্র ধরে স্বামী শামীমের প্রতি অভিমান করে মঙ্গলবার গভীররাতে সবার অজান্তে রিতু কীটনাশক পান করেন। একপর্যায়ে রাতে স্থানীয় ডাক্তার ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে রিতু মারা যায়।

রংপুর পুলিশের ডি সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান সেবা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, কোনোপক্ষের অভিযোগ বা আপত্তি এবং লাশের শরীরে কোনো দাগ ছিল না। শামীম-রিতুর পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন