চাল নিয়ে চালবাজি, ইউপি চেয়ারম্যানকে স্থায়ী অপসারণ
jugantor
চাল নিয়ে চালবাজি, ইউপি চেয়ারম্যানকে স্থায়ী অপসারণ

  চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি  

০৯ জুন ২০২১, ২২:৪৫:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে চাল বিতরণে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মতিন মন্ডলকে স্থায়ীভাবে অপসারণ করা হয়েছে।

আবদুল মতিন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি। বুধবার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব আবু জাফর রিপন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে চেয়ারম্যানকে অপসারণের বিষয়টি চৌহালীর ইউএনও আফসানা ইয়াসমিন যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, সরকারের ভিজিডি কার্ডধারীদের চাল বিতরণে অনিয়ম, ভিজিডি কার্ডধারীদের প্রতিমাসে দুইশত টাকা জমা না দিয়ে উল্টো আরও ৫০ টাকা করে সঞ্চয় আদায়সহ জেলেদের মাঝে ভিজিডি কার্ডের চাল বিতরণে অনিয়ম করেছেন। ২০১৯-২০ অর্থবছরে অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসূচীর আওতায় শ্রমিকদের মাথাপিছু এক হাজার টাকা উত্তোলন ছাড়াও চেকে ভুয়া স্বাক্ষর দিয়ে টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন।

বিধি-বিধানের তোয়াক্কা না করে ব্যাংক কর্মকর্তাদের যোগসাজশে নির্ধারিত সময়ের আগেই প্রকল্পের টাকা উত্তোলন করেছেন। এ নিয়ে ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে ঊর্ধ্বতন মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে যুগান্তরসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

তদন্তে এসব অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় জেলা প্রশাসকের সুপারিশে সাময়িক বরখাস্ত করা হয় এবং কেন চূড়ান্তভাবে চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ করা হবে না তা নিয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার বিভাগে অনুরোধ করা হয়।

এছাড়াও আব্দুল মতিন মন্ডলের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় আব্দুল মতিন মন্ডলকে চেয়ারম্যান পদ থেকে স্থায়ী অপসারণ করা হয়।

চৌহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফসানা ইয়াসমিন জানান, অবিলম্বে চিঠির নির্দেশনা মোতাবেক চেয়ারম্যান পদ শূন্য ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।

চাল নিয়ে চালবাজি, ইউপি চেয়ারম্যানকে স্থায়ী অপসারণ

 চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি 
০৯ জুন ২০২১, ১০:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে চাল বিতরণে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে উমারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল মতিন মন্ডলকে স্থায়ীভাবে অপসারণ করা হয়েছে। 

আবদুল মতিন  ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি। বুধবার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব আবু জাফর রিপন স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে চেয়ারম্যানকে অপসারণের বিষয়টি চৌহালীর ইউএনও আফসানা ইয়াসমিন যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন। 

প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, সরকারের ভিজিডি কার্ডধারীদের চাল বিতরণে অনিয়ম, ভিজিডি কার্ডধারীদের প্রতিমাসে দুইশত টাকা জমা না দিয়ে উল্টো আরও ৫০ টাকা করে সঞ্চয় আদায়সহ জেলেদের মাঝে ভিজিডি কার্ডের চাল বিতরণে অনিয়ম করেছেন। ২০১৯-২০ অর্থবছরে অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসূচীর আওতায় শ্রমিকদের মাথাপিছু এক হাজার টাকা উত্তোলন ছাড়াও চেকে ভুয়া স্বাক্ষর দিয়ে টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন। 

বিধি-বিধানের তোয়াক্কা না করে ব্যাংক কর্মকর্তাদের যোগসাজশে নির্ধারিত সময়ের আগেই প্রকল্পের টাকা উত্তোলন করেছেন। এ নিয়ে ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে ঊর্ধ্বতন মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে যুগান্তরসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। 

তদন্তে এসব অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় জেলা প্রশাসকের সুপারিশে সাময়িক বরখাস্ত করা হয় এবং কেন চূড়ান্তভাবে চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণ করা হবে না তা নিয়ে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার বিভাগে অনুরোধ করা হয়। 

এছাড়াও আব্দুল মতিন মন্ডলের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় আব্দুল  মতিন  মন্ডলকে চেয়ারম্যান পদ থেকে স্থায়ী অপসারণ করা হয়।  

চৌহালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফসানা ইয়াসমিন জানান, অবিলম্বে চিঠির নির্দেশনা মোতাবেক চেয়ারম্যান পদ শূন্য ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে।  

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন