মরতে মরতে বেঁচে গেল ২ বান্ধবী
jugantor
মরতে মরতে বেঁচে গেল ২ বান্ধবী

  গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি  

১০ জুন ২০২১, ২১:১০:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

দল বেঁধে ৭/৮ জন বান্ধবী এসেছিল পদ্মায় গোসল করতে। এর মধ্যে অতি সাহস দেখাতে গিয়ে মরতে মরতে বেঁচে যায় ২ বান্ধবী। স্থানীয়দের সহায়তায় তারা রক্ষা পায়।

ওরা সবাই দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর বাসিন্দা। নিষিদ্ধ পল্লীর বদ্ধ পরিবেশ থেকে বের হয়ে একটু স্বস্তি পেতে ওরা দলবেঁধে বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে এসেছিল দৌলতদিয়ার ৬নং ফেরিঘাট এলাকায় পদ্মা নদীতে গোসল করতে।

অন্যরা নদীর তীর ধরেই গোসল করছিল। কিন্তু জোসনা (২৫) ও আনজু (২০) নামের দুইজন ঘাটে বাঁধা একটি কার্গো জাহাজের উপর উঠে কিছুক্ষণ পরস্পর মোবাইলে ছবি তোলে এবং ভিডিও ধারণ করে। এর একপর্যায়ে হঠাৎ করেই তারা দুইজন কার্গোর উপর থেকে নদীতে ঝাঁপ দেয়।

নদীতে বেশি স্রোত না থাকায় তারা সেখানে ভাসতে ভাসতে চিৎকার করতে থাকে। এ সময় সেখানে উপস্থিত যুগান্তরের প্রতিনিধিসহ স্থানীয় কয়েকজন যুবক ছুটে গিয়ে কার্গোর মোটা রশি ফেলে তাদের উদ্ধারের চেষ্টা করেন। কিছুক্ষণ চেষ্টার পর হালকা ওজনের আনজুকে টেনে উপরে তোলা সম্ভব হয়। কিন্তু জোসনার ওজন বেশি হওয়ায় তাকে তোলা যাচ্ছিল না। বারবার সে নদীতে পড়ে যাচ্ছিল। এ সময় তার চোখেমুখে মৃত্যুর ভয় স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

পরে ওপরে তোলার চেষ্টা বাদ দিয়ে তাকে কৌশলে রশির সঙ্গে পেঁচিয়ে টেনে তীরে নিয়ে আসা হয়। এরপর দ্রুত সময়ের মধ্যে তারা অটোরিকশায় পল্লীতে ফিরে যায়। তবে মেয়েদের সঙ্গে আসা কেয়ারটেকারকে এ সময় দূরে সরে থাকতে দেখা যায়।

উদ্ধারকারীদের মধ্যে রুহুল আমিন, মজিবর, আমজাদ হোসেন, রুকসানা খাতুনসহ কয়েকজন বলেন, অতি সাহস দেখাতে গিয়ে মেয়ে দুটি মরতে বসেছিল।

মরতে মরতে বেঁচে গেল ২ বান্ধবী

 গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি 
১০ জুন ২০২১, ০৯:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দল বেঁধে ৭/৮ জন বান্ধবী এসেছিল পদ্মায় গোসল করতে। এর মধ্যে অতি সাহস দেখাতে গিয়ে মরতে মরতে বেঁচে যায় ২ বান্ধবী। স্থানীয়দের সহায়তায় তারা রক্ষা পায়।

ওরা সবাই দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর বাসিন্দা। নিষিদ্ধ পল্লীর বদ্ধ পরিবেশ থেকে বের হয়ে একটু স্বস্তি পেতে ওরা দলবেঁধে বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে এসেছিল দৌলতদিয়ার ৬নং ফেরিঘাট এলাকায় পদ্মা নদীতে গোসল করতে। 

অন্যরা নদীর তীর ধরেই গোসল করছিল। কিন্তু জোসনা (২৫) ও আনজু (২০) নামের দুইজন ঘাটে বাঁধা একটি কার্গো জাহাজের উপর উঠে কিছুক্ষণ পরস্পর মোবাইলে ছবি তোলে এবং ভিডিও ধারণ করে। এর একপর্যায়ে হঠাৎ করেই তারা দুইজন কার্গোর উপর থেকে নদীতে ঝাঁপ দেয়। 

নদীতে বেশি স্রোত না থাকায় তারা সেখানে ভাসতে ভাসতে চিৎকার করতে থাকে। এ সময় সেখানে উপস্থিত যুগান্তরের প্রতিনিধিসহ স্থানীয় কয়েকজন যুবক ছুটে গিয়ে কার্গোর মোটা রশি ফেলে তাদের উদ্ধারের চেষ্টা করেন। কিছুক্ষণ চেষ্টার পর হালকা ওজনের আনজুকে টেনে উপরে তোলা সম্ভব হয়। কিন্তু জোসনার ওজন বেশি হওয়ায় তাকে তোলা যাচ্ছিল না। বারবার সে নদীতে পড়ে যাচ্ছিল। এ সময় তার চোখেমুখে মৃত্যুর ভয় স্পষ্ট হয়ে ওঠে। 

পরে ওপরে তোলার চেষ্টা বাদ দিয়ে তাকে কৌশলে রশির সঙ্গে পেঁচিয়ে টেনে তীরে নিয়ে আসা হয়। এরপর দ্রুত সময়ের মধ্যে তারা অটোরিকশায় পল্লীতে ফিরে যায়। তবে মেয়েদের সঙ্গে আসা কেয়ারটেকারকে এ সময় দূরে সরে থাকতে দেখা যায়। 

উদ্ধারকারীদের মধ্যে রুহুল আমিন, মজিবর, আমজাদ হোসেন, রুকসানা খাতুনসহ কয়েকজন বলেন, অতি সাহস দেখাতে গিয়ে মেয়ে দুটি মরতে বসেছিল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন