জরুরি ত্রাণের ঘটনায় রুনা লায়লাকে শোকজ
jugantor
জরুরি ত্রাণের ঘটনায় রুনা লায়লাকে শোকজ

  সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি  

১২ জুন ২০২১, ২০:৫২:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউএনও রুনা লায়লা

মানিকগঞ্জের সিংগাইরে বিতরণ না করায় জরুরি ত্রাণসামগ্রী পচে যাওয়ার ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুনা লায়লাকে শোকজ করা হয়েছে।

শনিবার দুপুর ২টার দিকে মোবাইল ফোনে জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ৩ মে দুস্থদের খাদ্য সহায়তা দেয়ার জন্য ১ লাখ টাকা বরাদ্দ আসে। সেই ১ লাখ টাকা দিয়ে পণ্যসামগ্রী ক্রয় করে ১০০টি প্যাকেট করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এরই মধ্যে একাধিক দুস্থ ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চাইলে মাত্র ১০ প্যাকেট ত্রাণসামগ্রী দেয়ার পর বাকি ৯০টি প্যাকেট তার গাড়ির গ্যারেজের পাশে ১টি রুমে রেখে দেন।

এ সময় ত্রাণসামগ্রী মজুদ থাকা সত্ত্বেও ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিয়ে অনেকেই সহায়তা পাননি।

এদিকে সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুনা লায়লার হেফাজতে রাখা ত্রাণসামগ্রীর প্যাকেট থেকে দুর্গন্ধ বের হলে প্যাকেট খুলে দেখা যায়- আলু, পেঁয়াজ পচে গেছে; বাকি পণ্য নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

বিষয়টি সংবাদকর্মীরা বিভিন্ন গণমাধ্যমে ফলাও করে সংবাদ প্রকাশ করলে জেলা প্রশাসকের নজরে আসে। সেই সঙ্গে ইউএনওকে শোকজ করেন।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস বলেন, এ ঘটনায় তাকে শোকজ করা হয়েছে এবং রোববারের মধ্যে প্রতিবেদন চাওয়া হয়েছে। প্রতিবেদন দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জরুরি ত্রাণের ঘটনায় রুনা লায়লাকে শোকজ

 সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি 
১২ জুন ২০২১, ০৮:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইউএনও রুনা লায়লা
ইউএনও রুনা লায়লা

মানিকগঞ্জের সিংগাইরে বিতরণ না করায় জরুরি ত্রাণসামগ্রী পচে যাওয়ার ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুনা লায়লাকে শোকজ করা হয়েছে। 

শনিবার দুপুর ২টার দিকে মোবাইল ফোনে জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ৩ মে দুস্থদের খাদ্য সহায়তা দেয়ার জন্য ১ লাখ টাকা বরাদ্দ আসে। সেই  ১ লাখ টাকা দিয়ে পণ্যসামগ্রী ক্রয় করে ১০০টি প্যাকেট করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এরই মধ্যে একাধিক দুস্থ  ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চাইলে মাত্র ১০ প্যাকেট ত্রাণসামগ্রী দেয়ার পর বাকি ৯০টি প্যাকেট তার গাড়ির গ্যারেজের পাশে ১টি রুমে রেখে দেন। 

এ সময় ত্রাণসামগ্রী মজুদ থাকা সত্ত্বেও ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিয়ে অনেকেই সহায়তা পাননি।

এদিকে সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুনা লায়লার হেফাজতে রাখা ত্রাণসামগ্রীর প্যাকেট থেকে দুর্গন্ধ বের হলে প্যাকেট খুলে দেখা যায়- আলু, পেঁয়াজ পচে গেছে; বাকি পণ্য নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। 

বিষয়টি সংবাদকর্মীরা বিভিন্ন গণমাধ্যমে ফলাও করে সংবাদ প্রকাশ করলে জেলা প্রশাসকের নজরে আসে। সেই সঙ্গে ইউএনওকে শোকজ করেন।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস বলেন, এ ঘটনায় তাকে শোকজ করা হয়েছে এবং রোববারের মধ্যে প্রতিবেদন চাওয়া হয়েছে। প্রতিবেদন দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন