খুঁটির সঙ্গে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন
jugantor
খুঁটির সঙ্গে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন

  রংপুর ব্যুরো ও পীরগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৪ জুন ২০২১, ২৩:২২:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার পল্লীতে গ্রাম্য সালিশি বৈঠকে সাক্ষ্য দেওয়ায় চামেলী বেগম নামের এক গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় কায়দায় বাঁশের খুঁটির সঙ্গে হাত বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।

গত রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার কাবিলপুর ইউনিয়নের নিজ কাবিলপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনা স্থানীয়ভাবে জানাজানি হলে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্যাতিতার ছবি প্রকাশ হলে সমালোচনার ঝড় ওঠে। অনেকেই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

স্থানীয় গ্রামবাসীরা জানায়, পীরগঞ্জ উপজেলার নিজ কাবিলপুর গ্রামের মৃত হাছেন আলীর ছেলে সুমন মিয়া ও সুরুজ মিয়ার বিরুদ্ধে গ্রাম্য সালিশি বৈঠকে সাক্ষ্য দেন ওই গৃহবধূ। এ জন্য অভিযুক্তরা মধ্যযুগীয় কায়দায় নিজ কাবিলপুর গ্রামের রহিম বাদশার স্ত্রী চামেলী বেগমকে বাঁশের খুঁটির সঙ্গে হাত বেঁধে নির্যাতন চালায়।

এ ঘটনায় স্থানীয় কাবিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি তাৎক্ষণিক বিষয়টি জানতে পেরে চামেলী বেগমকে গ্রাম্য পুলিশের সহায়তায় উদ্ধার করে তাকে পীরগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করার ব্যবস্থা করেন।

এ ব্যাপারে কাবিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি জানান, ঘটনাটি সত্য, তাকে বেঁধে রাখা হয়েছিল।

পীরগঞ্জ থানার ওসি সরেস চন্দ্র জানান, নির্যাতনকারীর পরিবার অভিযোগ করলে অবশ্যই জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খুঁটির সঙ্গে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন

 রংপুর ব্যুরো ও পীরগঞ্জ প্রতিনিধি  
১৪ জুন ২০২১, ১১:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার পল্লীতে গ্রাম্য সালিশি বৈঠকে সাক্ষ্য দেওয়ায় চামেলী বেগম নামের এক গৃহবধূকে মধ্যযুগীয় কায়দায় বাঁশের খুঁটির সঙ্গে হাত বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। 

গত রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার কাবিলপুর ইউনিয়নের নিজ কাবিলপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনা স্থানীয়ভাবে জানাজানি হলে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্যাতিতার ছবি প্রকাশ হলে সমালোচনার ঝড় ওঠে। অনেকেই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

স্থানীয় গ্রামবাসীরা জানায়, পীরগঞ্জ উপজেলার নিজ কাবিলপুর গ্রামের মৃত হাছেন আলীর ছেলে সুমন মিয়া ও সুরুজ মিয়ার বিরুদ্ধে গ্রাম্য সালিশি বৈঠকে সাক্ষ্য দেন ওই গৃহবধূ। এ জন্য অভিযুক্তরা মধ্যযুগীয় কায়দায় নিজ কাবিলপুর গ্রামের রহিম বাদশার স্ত্রী চামেলী বেগমকে বাঁশের খুঁটির সঙ্গে হাত বেঁধে নির্যাতন চালায়। 

এ ঘটনায় স্থানীয় কাবিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি তাৎক্ষণিক বিষয়টি জানতে পেরে চামেলী বেগমকে গ্রাম্য পুলিশের সহায়তায় উদ্ধার করে তাকে পীরগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করার ব্যবস্থা করেন।

এ ব্যাপারে কাবিলপুর ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম রবি জানান, ঘটনাটি সত্য, তাকে বেঁধে রাখা হয়েছিল।

পীরগঞ্জ থানার ওসি সরেস চন্দ্র জানান, নির্যাতনকারীর পরিবার অভিযোগ করলে অবশ্যই জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন