কাদের মির্জাকে গ্রেফতার না করলে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি আ’লীগের
jugantor
কাদের মির্জাকে গ্রেফতার না করলে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি আ’লীগের

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

১৫ জুন ২০২১, ২০:০৭:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের ওপর হামলার ঘটনায় আব্দুল কাদের মির্জাসহ তার অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে দুই দিনের সময় বেঁধে দিয়েছে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ। অন্যথায় বৃহস্পতিবার থেকে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচির ডাক দেবে বলে হুশিয়ার করে দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

এছাড়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলা হয় যে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূরনবী চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল ইসলাম সবুজ, চরএলাহী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক নূরুজ্জামান স্বপন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জায়দল হক কচি, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন লিটন, সরকারি মুজিব কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাসিব আহসান আলাল, যুবলীগ নেতা নূরুল আফছার আরমান চৌধুরী, যুবনেতা কামরান পাশা চৌধুরী মনজিল, যুবনেতা এনামুল হক সবুজ, যুবনেতা সোহেল, যুবনেতা মোজাম্মেল হোসেন জুয়েল ও চরকাঁকড়া ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার জামাল উদ্দিনের ওপর সন্ত্রাসী হামলার নাটের গুরু অপরাজনীতির হোতা বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জাকে সংগঠনবিরোধী কর্মকাণ্ডের দায়ে এবং দলের কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতা থেকে শুরু করে মন্ত্রী, এমপি, জেলা নেতা ও স্থানীয় নেতাদের চরিত্রহরণ করে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার অপরাধে অনতিবিলম্বে দল থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করতে হবে। অন্যথায় আমরা কঠোর থেকে কঠোর আন্দোলনে যাব।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়- বসুরহাট পৌরসভা একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও কাদের মির্জা আইন অমান্য করে প্রতিষ্ঠানটিকে নিজস্ব সম্পত্তি বানিয়ে পৌরভবনকে সন্ত্রাসীর আস্তানা ও মিনি ক্যান্টনমেন্ট হিসেবে গড়ে তুলেছেন। এ অপরাধে আবদুল কাদের মির্জাকে মেয়র পদ থেকে অপসারণ করে তাকেসহ পৌরভবনে অবস্থানকারী সব অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করার দাবি করা হয়।

কাদের মির্জাকে গ্রেফতার না করলে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি আ’লীগের

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
১৫ জুন ২০২১, ০৮:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের ওপর হামলার ঘটনায় আব্দুল কাদের মির্জাসহ তার অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে দুই দিনের সময় বেঁধে দিয়েছে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ। অন্যথায় বৃহস্পতিবার থেকে লাগাতার অবরোধ কর্মসূচির ডাক দেবে বলে হুশিয়ার করে দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

এছাড়া প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলা হয় যে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূরনবী চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল ইসলাম সবুজ, চরএলাহী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক নূরুজ্জামান স্বপন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জায়দল হক কচি, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন লিটন, সরকারি মুজিব কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাসিব আহসান আলাল, যুবলীগ নেতা নূরুল আফছার আরমান চৌধুরী, যুবনেতা কামরান পাশা চৌধুরী মনজিল, যুবনেতা এনামুল হক সবুজ, যুবনেতা সোহেল, যুবনেতা মোজাম্মেল হোসেন জুয়েল ও চরকাঁকড়া ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার জামাল উদ্দিনের ওপর সন্ত্রাসী হামলার নাটের গুরু অপরাজনীতির হোতা বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জাকে সংগঠনবিরোধী কর্মকাণ্ডের দায়ে এবং দলের কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতা থেকে শুরু করে মন্ত্রী, এমপি, জেলা নেতা ও স্থানীয় নেতাদের চরিত্রহরণ করে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার অপরাধে অনতিবিলম্বে দল থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করতে হবে। অন্যথায় আমরা কঠোর থেকে কঠোর আন্দোলনে যাব।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়- বসুরহাট পৌরসভা একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও কাদের মির্জা আইন অমান্য করে প্রতিষ্ঠানটিকে নিজস্ব সম্পত্তি বানিয়ে পৌরভবনকে সন্ত্রাসীর আস্তানা ও মিনি ক্যান্টনমেন্ট হিসেবে গড়ে তুলেছেন। এ অপরাধে আবদুল কাদের মির্জাকে মেয়র পদ থেকে অপসারণ করে তাকেসহ পৌরভবনে অবস্থানকারী সব অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করার দাবি করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আবদুল কাদের মির্জা

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন