হত্যার পর গৃহবধূর লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালালেন স্বামী
jugantor
হত্যার পর গৃহবধূর লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালালেন স্বামী

  সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

২০ জুন ২০২১, ১৪:৪২:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

হত্যার পর গৃহবধূর লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালালেন স্বামী

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলায় রিমা আক্তার (১৯) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তার লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার পর পলাতক রয়েছেন তার স্বামী আরিফুল করিম রাকিব।

শনিবার রাত ১০টায় উপজেলার দক্ষিণ নড়ালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রিমা একই এলাকার আবুল কালাম চকিদারের মেয়ে।

রিমার বাবা আবুল কালাম বলেন, সৈয়দপুর ইউনিয়নের বাকখালী গ্রামের যুবক আরিফুল করিম রাকিবের সঙ্গে দেড় বছর আগে আমার মেয়ে রিমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তারা নড়ালিয়া এলাকার একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

শনিবার রাতে রাকিব তার ছয় মাস বয়সি কন্যাকে আমাদের বাড়িতে রেখে আসেন। ঘণ্টা দুয়েক পর নাতনিকে নিয়ে রাকিবের বাসায় এলে ঘরের তীরের সঙ্গে গলায় ওড়না প্যাঁচানো অবস্থায় রিমাকে ঝুলতে দেখে আমি আত্মচিৎকার করলে আশপাশের লোকজন আসে।

মনোমালিন্যের জেরে রাকিব আমার মেয়েকে হত্যা করে পালিয়ে গেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. একরাম হোসেন বলেন, রাতে ঘরের তীরের সঙ্গে রিমার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে তার বাবা আবুল কালাম বিষয়টি আমাকে জানালে আমি ঘটনাস্থলে যাই। এ সময় লাশের বিষয়টি সীতাকুণ্ড থানা পুলিশকে অবহিত করি। পুলিশ রিমার লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনার পর এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় রিমার স্বামী আরিফুল করিম রাকিব।

সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বণিক বলেন, গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর তার স্বামী পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা যায়নি।

তবে ধারণা করা হচ্ছে, স্বামী আরিফুল রাতের কোনো একসময় স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তীরের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখেছে। লাশ ময়নাতদন্ত শেষে জানা যাবে রিমা আত্মহত্যা করেছে না তাকে খুন করা হয়েছে।

হত্যার পর গৃহবধূর লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালালেন স্বামী

 সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
২০ জুন ২০২১, ০২:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হত্যার পর গৃহবধূর লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালালেন স্বামী
ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলায় রিমা আক্তার (১৯) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তার লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার পর পলাতক রয়েছেন তার স্বামী আরিফুল করিম রাকিব।

শনিবার রাত ১০টায় উপজেলার দক্ষিণ নড়ালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রিমা একই এলাকার আবুল কালাম চকিদারের মেয়ে।

রিমার বাবা আবুল কালাম বলেন, সৈয়দপুর ইউনিয়নের বাকখালী গ্রামের যুবক আরিফুল করিম রাকিবের সঙ্গে দেড় বছর আগে আমার মেয়ে রিমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তারা নড়ালিয়া এলাকার একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

শনিবার রাতে রাকিব তার ছয় মাস বয়সি কন্যাকে আমাদের বাড়িতে রেখে আসেন। ঘণ্টা দুয়েক পর নাতনিকে নিয়ে রাকিবের বাসায় এলে ঘরের তীরের সঙ্গে গলায় ওড়না প্যাঁচানো অবস্থায় রিমাকে ঝুলতে দেখে আমি আত্মচিৎকার করলে আশপাশের লোকজন আসে।

মনোমালিন্যের জেরে রাকিব আমার মেয়েকে হত্যা করে পালিয়ে গেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. একরাম হোসেন বলেন, রাতে ঘরের তীরের সঙ্গে রিমার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে তার বাবা আবুল কালাম বিষয়টি আমাকে জানালে আমি ঘটনাস্থলে যাই। এ সময় লাশের বিষয়টি সীতাকুণ্ড থানা পুলিশকে অবহিত করি। পুলিশ রিমার লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনার পর এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় রিমার স্বামী আরিফুল করিম রাকিব।

সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বণিক বলেন, গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর তার স্বামী পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা যায়নি।

তবে ধারণা করা হচ্ছে, স্বামী আরিফুল রাতের কোনো একসময় স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তীরের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখেছে। লাশ ময়নাতদন্ত শেষে জানা যাবে রিমা আত্মহত্যা করেছে না তাকে খুন করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন