আওয়ামী লীগ নেতার নির্বাচনী প্রচারণায় বিএনপি নেতাকর্মীরা
jugantor
আওয়ামী লীগ নেতার নির্বাচনী প্রচারণায় বিএনপি নেতাকর্মীরা

  বরিশাল ব্যুরো  

২০ জুন ২০২১, ২২:৫৪:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

আওয়ামী লীগ নেতার নির্বাচনী প্রচারণায় নামলেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। এমনই অভিযোগ পাওয়া গেছে বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠী ইউনিয়নে।

এখানে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী টিটু খন্দকারের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম রঞ্জু, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও কলসকাঠী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেন হাওলাদার, বিএনপি নেতা ও উপজেলা বিএনপি মনোনীত সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মো. কামরুজ্জামান নান্নু খান।

এ বিষয়ে বাকেরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য আবুল হোসেন খান ও বরিশাল জেলা দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি ও সম্পাদক বরাবর চিঠি দিয়েছে কলসকাঠী বিএনপির সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার। পাশাপাশি অনুলিপি প্রদান করা হয়েছে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীর, যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার ও বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরীনকে।

কলসকাঠী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেন হাওলাদার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও অন্তরালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন থেকে ছিটকেপড়া টিটু খন্দকারকে সমর্থন দিয়েছেন। গত ৩১ মার্চ শওকত হোসেনের বাগানবাড়িতে সংগঠনবিরোধী ডাকা ইউনিয়ন বিএনপির বর্ধিত সভায় সফিকুল ইসলাম রঞ্জুর সভাপতিত্বে টিটু খন্দকারের সমর্থনে সভা হয়।

স্থানীয় বিএনপির সাধারণ নেতাকর্মীরা প্রশ্ন তুলেছেন, প্রথমত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ব্যাপারে দলীয় হাইকমান্ড কোনো নির্দেশনা দেননি এবং দল থেকেও নির্বাচনে কেউ অংশগ্রহণ করেননি। তাহলে কেন? কর্মী সমাবেশের নামে সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেনের বাগানবাড়িতে গভীর রাত পর্যন্ত গরুর মাংস দিয়ে ভাত খাইয়ে সাধারণ কর্মীদের নির্বাচনী মাঠে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন থেকে ছিটকেপড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে থাকার কথা বলা হলো। প্রতিদিন অপরিচিত লোকদের মোটরসাইকেল মহড়া দেয়ানো হচ্ছে।

কলসকাঠী ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী ফয়সাল ওয়াহিদ মুন্না তালুকদার বলেন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী টিটু বিএনপি নেতাকর্মী নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন। তারা নৌকাকে ডুবাতে চায়। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের নেতাদের জানানো হয়েছে।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য আবুল হোসেন খান বলেন, আমরা বিভিন্ন স্থানে শুনেছি কোনো কোনো নেতাকর্মী তাদের স্বজনদের নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কেউ এ নির্বাচনে সরাসরি নামতে পারবেন না। বিএনপি এ নির্বাচনে প্রার্থী দেয়নি। সেক্ষেত্রে এই নির্বাচন নিয়ে বিএনপির মাথা ব্যথা নেই। দলের বিপক্ষে গিয়ে যদি কেউ এ নির্বাচনে কোনো প্রার্থীকে সমর্থন দেয়, আর যদি লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায় তবে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বরিশাল জেলা দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চান বলেন, বিভিন্ন উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তবে এবার বিএনপি কোনো প্রার্থী দেয়নি। দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে- বিএনপির পদ-পদবিধারী কোনো নেতা যেন নির্বাচনে প্রকাশ্যে না আসেন। এমনকি ভোট কেন্দ্রেও না যেতে বলা হয়েছে। তারপরও যদি কেউ কোনো প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন, তবে তার বিরুদ্ধে দলীয় সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আওয়ামী লীগ নেতার নির্বাচনী প্রচারণায় বিএনপি নেতাকর্মীরা

 বরিশাল ব্যুরো 
২০ জুন ২০২১, ১০:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আওয়ামী লীগ নেতার নির্বাচনী প্রচারণায় নামলেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। এমনই অভিযোগ পাওয়া গেছে বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার কলসকাঠী ইউনিয়নে।

এখানে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী টিটু খন্দকারের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম রঞ্জু, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও কলসকাঠী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেন হাওলাদার, বিএনপি নেতা ও উপজেলা বিএনপি মনোনীত সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মো. কামরুজ্জামান নান্নু খান।

এ বিষয়ে বাকেরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য আবুল হোসেন খান ও বরিশাল জেলা দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি ও সম্পাদক বরাবর চিঠি দিয়েছে কলসকাঠী বিএনপির সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার। পাশাপাশি অনুলিপি প্রদান করা হয়েছে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীর, যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার ও বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরীনকে।

কলসকাঠী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেন হাওলাদার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও অন্তরালে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন থেকে ছিটকেপড়া টিটু খন্দকারকে সমর্থন দিয়েছেন। গত ৩১ মার্চ শওকত হোসেনের বাগানবাড়িতে সংগঠনবিরোধী ডাকা ইউনিয়ন বিএনপির বর্ধিত সভায় সফিকুল ইসলাম রঞ্জুর সভাপতিত্বে টিটু খন্দকারের সমর্থনে সভা হয়।

স্থানীয় বিএনপির সাধারণ নেতাকর্মীরা প্রশ্ন তুলেছেন, প্রথমত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ব্যাপারে দলীয় হাইকমান্ড কোনো নির্দেশনা দেননি এবং দল থেকেও নির্বাচনে কেউ অংশগ্রহণ করেননি। তাহলে কেন? কর্মী সমাবেশের নামে সাবেক চেয়ারম্যান শওকত হোসেনের বাগানবাড়িতে গভীর রাত পর্যন্ত গরুর মাংস দিয়ে ভাত খাইয়ে সাধারণ কর্মীদের নির্বাচনী মাঠে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন থেকে ছিটকেপড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে থাকার কথা বলা হলো। প্রতিদিন অপরিচিত লোকদের মোটরসাইকেল মহড়া দেয়ানো হচ্ছে।

কলসকাঠী ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী ফয়সাল ওয়াহিদ মুন্না তালুকদার বলেন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী টিটু বিএনপি নেতাকর্মী নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন। তারা নৌকাকে ডুবাতে চায়। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের নেতাদের জানানো হয়েছে।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য আবুল হোসেন খান বলেন, আমরা বিভিন্ন স্থানে শুনেছি কোনো কোনো নেতাকর্মী তাদের স্বজনদের নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কেউ এ নির্বাচনে সরাসরি নামতে পারবেন না। বিএনপি এ নির্বাচনে প্রার্থী দেয়নি। সেক্ষেত্রে এই নির্বাচন নিয়ে বিএনপির মাথা ব্যথা নেই। দলের বিপক্ষে গিয়ে যদি কেউ এ নির্বাচনে কোনো প্রার্থীকে সমর্থন দেয়, আর যদি লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায় তবে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বরিশাল জেলা দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চান বলেন, বিভিন্ন উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তবে এবার বিএনপি কোনো প্রার্থী দেয়নি। দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে- বিএনপির পদ-পদবিধারী কোনো নেতা যেন নির্বাচনে প্রকাশ্যে না আসেন। এমনকি ভোট কেন্দ্রেও না যেতে বলা হয়েছে। তারপরও যদি কেউ কোনো প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন, তবে তার বিরুদ্ধে দলীয় সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন