প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় ঘরে ঢুকে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণ
jugantor
প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় ঘরে ঢুকে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণ

  উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২২ জুন ২০২১, ১০:৩২:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণ

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলায় প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় ঘরে ঢুকে এক মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে রোববার রাতে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর মা উল্লাপাড়া মডেল থানায় মামলা করেছেন।

আসামিরা হলো— উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের গাড়াবাড়ি গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে নাঈম খান (১৬), একই গ্রামের মোকবেল হোসেনের ছেলে রেজাউল করিম (৫০), রেজাউল করিমের স্ত্রী নাজমা খাতুন (৪৫), শুকুর মাহমুদের ছেলে আলী আহম্মেদ (১৮) ও রেজাউল করিমের ছেলে নাসির উদ্দিন (২৫)।

সোমবার রাতে থানার উপপরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আলাল হোসেন জানান, বখাটে নাঈম ওই ছাত্রীকে মাদ্রাসায় যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করত। একপর্যায়ে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হওয়ায় ছাত্রীর ওপর ক্ষুব্ধ হয় নাঈম। কয়েক দিন আগে ওই ছাত্রীর মা-বাবা আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে গেলে নাঈম রাতে ছাত্রীর ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করে।

ধর্ষক বের হয়ে যাওয়ার সময় তাকে জাপটে ধরে চিৎকার শুরু করে ওই ছাত্রী। এ সময় পার্শ্ববর্তী বাড়ির লোকজন নাঈমকে আটক করে। নাঈমের সঙ্গীরা উপযুক্ত বিচারের নামে ছাড়িয়ে নেয়। কিন্তু বিচার হয়নি।

এ অবস্থায় রোববার ছাত্রীর মা থানায় মামলা করেন। ধর্ষক ও তার সঙ্গীরা পলাতক রয়েছে। পুলিশ তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছে বলে জানান উপপরিদর্শক আলাল হোসেন।

প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় ঘরে ঢুকে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণ

 উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২২ জুন ২০২১, ১০:৩২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ধর্ষণ
ফাইল ছবি

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলায় প্রেম প্রত্যাখ্যান করায় ঘরে ঢুকে এক মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে রোববার রাতে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর মা উল্লাপাড়া মডেল থানায় মামলা করেছেন।

আসামিরা হলো— উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের গাড়াবাড়ি গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে নাঈম খান (১৬), একই গ্রামের মোকবেল হোসেনের ছেলে রেজাউল করিম (৫০), রেজাউল করিমের স্ত্রী নাজমা খাতুন (৪৫), শুকুর মাহমুদের ছেলে আলী আহম্মেদ (১৮) ও রেজাউল করিমের ছেলে নাসির উদ্দিন (২৫)।

সোমবার রাতে থানার উপপরিদর্শক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আলাল হোসেন জানান, বখাটে নাঈম ওই ছাত্রীকে মাদ্রাসায় যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করত। একপর্যায়ে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হওয়ায় ছাত্রীর ওপর ক্ষুব্ধ হয় নাঈম। কয়েক দিন আগে ওই ছাত্রীর মা-বাবা আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে গেলে নাঈম রাতে ছাত্রীর ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করে।

ধর্ষক বের হয়ে যাওয়ার সময় তাকে জাপটে ধরে চিৎকার শুরু করে ওই ছাত্রী। এ সময় পার্শ্ববর্তী বাড়ির লোকজন নাঈমকে আটক করে। নাঈমের সঙ্গীরা উপযুক্ত বিচারের নামে ছাড়িয়ে নেয়। কিন্তু বিচার হয়নি।

এ অবস্থায় রোববার ছাত্রীর মা থানায় মামলা করেন। ধর্ষক ও তার সঙ্গীরা পলাতক রয়েছে। পুলিশ তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছে বলে জানান উপপরিদর্শক আলাল হোসেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন