কারখানায় বিস্ফোরণ, শ্রমিকের লাশ গুমের চেষ্টা 
jugantor
কারখানায় বিস্ফোরণ, শ্রমিকের লাশ গুমের চেষ্টা 

  ফতুল্লা (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৩ জুন ২০২১, ০০:৩১:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ডাইং কারাখানা

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি চারতলা ভবনের নিচতলায় আন্ডারগ্রাউন্ডে অবস্থিত ডাইং কারখানায় বিস্ফোরণে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। ঘটনার পরপরই লাশ গুমে ব্যর্থ হয়ে কারখানার মালিকপক্ষ পালিয়ে গেছে।

মঙ্গলবার রাত ৯টায় ফতুল্লা মডেল থানার কাছে অবস্থিত ওই বহুতল ভবনের নিচ তলার একটি ডাইংয়ে এ ঘটনা ঘটে। রাত ১১টায় খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহরের ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

অভিযোগ উঠেছে, রাত ৯টার সময় স্থানীয় লোকজন দেখেছে আজাদ ডাইংয়ের ভেতর থেকে প্রচুর ধোঁয়া বের হচ্ছে। এ সময় ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে আসলে কারখানার পক্ষ থেকে তাদের বলা হয় অল্প আগুন নিজেরাই নিভিয়ে ফেলেছে। এতে ফায়ার সার্ভিস চলে যায়।

তখন কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত শ্রমিকের লাশ গুমের চেষ্টা চলছিল। লাশের পুরো শরীরে সাদা পাউডার দেয়া হয়েছে। এরপর সাদা কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে রাখা হয়। গভীর রাতে তা গুম করার পরিকল্পনা ছিল।

এরই মধ্যে কারখানার কোনো লোকজন বিষয়টি পুলিশে জানিয়ে দেয়। পরে রাত ১১টায় পুলিশ খবর পেয়ে ওই কারখানার ভেতর থেকে সাদা পাউডার ও কাপড় দিয়ে পেঁচানো অজ্ঞাত এক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান জানান, কী বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানতে ওই কারখানায় পুলিশ তদন্ত করছে। মালিক বা শ্রমিক কেউ কারখানায় নেই। নিহত শ্রমিকের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

কারখানায় বিস্ফোরণ, শ্রমিকের লাশ গুমের চেষ্টা 

 ফতুল্লা (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৩ জুন ২০২১, ১২:৩১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ডাইং কারাখানা
ডাইং কারাখানা। ফাইল ছবি

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি চারতলা ভবনের নিচতলায় আন্ডারগ্রাউন্ডে অবস্থিত ডাইং কারখানায় বিস্ফোরণে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। ঘটনার পরপরই লাশ গুমে ব্যর্থ হয়ে কারখানার মালিকপক্ষ পালিয়ে গেছে। 

মঙ্গলবার রাত ৯টায় ফতুল্লা মডেল থানার কাছে অবস্থিত ওই বহুতল ভবনের নিচ তলার একটি ডাইংয়ে এ ঘটনা ঘটে। রাত ১১টায় খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহরের ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

অভিযোগ উঠেছে, রাত ৯টার সময় স্থানীয় লোকজন দেখেছে আজাদ ডাইংয়ের ভেতর থেকে প্রচুর ধোঁয়া বের হচ্ছে। এ সময় ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে আসলে কারখানার পক্ষ থেকে তাদের বলা হয় অল্প আগুন নিজেরাই নিভিয়ে ফেলেছে। এতে ফায়ার সার্ভিস চলে যায়। 

তখন কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত শ্রমিকের লাশ গুমের চেষ্টা চলছিল। লাশের পুরো শরীরে সাদা পাউডার দেয়া হয়েছে। এরপর সাদা কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে রাখা হয়। গভীর রাতে তা গুম করার পরিকল্পনা ছিল। 

এরই মধ্যে কারখানার কোনো লোকজন বিষয়টি পুলিশে জানিয়ে দেয়। পরে রাত ১১টায় পুলিশ খবর পেয়ে ওই কারখানার ভেতর থেকে সাদা পাউডার ও কাপড় দিয়ে পেঁচানো অজ্ঞাত এক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান জানান, কী বিস্ফোরণ হয়েছে তা জানতে ওই কারখানায় পুলিশ তদন্ত করছে। মালিক বা শ্রমিক কেউ কারখানায় নেই। নিহত শ্রমিকের পরিচয় পাওয়া যায়নি। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন