ভোট কেনা নিয়ে বাকবিতণ্ডা, ছুরিকাঘাতে শ্রমিকলীগ নেতা নিহত 
jugantor
ভোট কেনা নিয়ে বাকবিতণ্ডা, ছুরিকাঘাতে শ্রমিকলীগ নেতা নিহত 

  মাদারীপুর প্রতিনিধি  

২৩ জুন ২০২১, ০১:১৯:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদারীপুরের শিবচরের মাদবচরচর ইউপি নির্বাচনে ৪ নম্বর ওয়ার্ডে ভোট বেচা-কেনা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই ইউপি সদস্যের মধ্যকার সংঘর্ষে আহত আবু বক্কর ফকির (৪০) নামে এক শ্রমিকলীগ নেতা নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা আজগর আলী মেডিকেলে তিনি মারা যান। নিহত আবু বক্কর ফকির উপজেলার মাদবরচর ইউনিয়নের ডাইয়ারচর গ্রামের মৃত্যু খালেক ফকিরের ছেলে। তিনি মাদবরচর ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গতকাল সোমবার শিবচরের ১৩টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের আগের দিন রাত ২টার দিকে মাদবরচর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দ্বী মেম্বার প্রার্থী ইউসুফ সরদারের সমর্থকরা টাকার বিনিময়ে ভোট কিনতে একটি বাড়িতে প্রবেশ করে। এ সময় প্রতিপক্ষ মেম্বার প্রার্থী আজিজুল সরদারের সমর্থকরা রাতে ওই গ্রামের ভোট কেনাবেচা থেকে রেহাই পেতে পাহারা দিচ্ছিলেন।

এ সময় ভোট কেনা-বেচা নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। খবর পেয়ে আজিজুল সরদারের সমর্থক আবু বক্কর ফকির ছুটে আসেন। তখনই প্রতিপক্ষ ইউসুফ সরদারের সমর্থকরা তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে তার পেটে আঘাত করে। গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকা নেওয়া হয়। সেখানে দুইদিন চিকিৎসা শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি মারা যান।

শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন জানান, নিহত আবু বক্কর ফকিরের ভাই কামাল ফকির শিবচর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ আসামি গ্রেফতারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ভোট কেনা নিয়ে বাকবিতণ্ডা, ছুরিকাঘাতে শ্রমিকলীগ নেতা নিহত 

 মাদারীপুর প্রতিনিধি 
২৩ জুন ২০২১, ০১:১৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদারীপুরের শিবচরের মাদবচরচর ইউপি নির্বাচনে ৪ নম্বর ওয়ার্ডে ভোট বেচা-কেনা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই ইউপি সদস্যের মধ্যকার সংঘর্ষে আহত আবু বক্কর ফকির (৪০) নামে এক শ্রমিকলীগ নেতা নিহত হয়েছেন। 

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা আজগর আলী মেডিকেলে তিনি মারা যান। নিহত আবু বক্কর ফকির উপজেলার মাদবরচর ইউনিয়নের ডাইয়ারচর গ্রামের মৃত্যু খালেক ফকিরের ছেলে। তিনি মাদবরচর ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গতকাল সোমবার শিবচরের ১৩টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের আগের দিন রাত ২টার দিকে মাদবরচর ইউনিয়নের  ৪ নম্বর ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দ্বী মেম্বার প্রার্থী ইউসুফ সরদারের সমর্থকরা টাকার বিনিময়ে ভোট কিনতে একটি বাড়িতে প্রবেশ করে। এ সময় প্রতিপক্ষ মেম্বার প্রার্থী আজিজুল সরদারের সমর্থকরা রাতে ওই গ্রামের ভোট কেনাবেচা  থেকে রেহাই পেতে পাহারা দিচ্ছিলেন। 

এ সময় ভোট কেনা-বেচা নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। খবর পেয়ে আজিজুল সরদারের সমর্থক আবু বক্কর ফকির ছুটে আসেন। তখনই প্রতিপক্ষ ইউসুফ সরদারের সমর্থকরা তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে তার পেটে আঘাত করে। গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকা নেওয়া হয়। সেখানে দুইদিন চিকিৎসা শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি মারা যান। 

শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন জানান, নিহত আবু বক্কর ফকিরের ভাই কামাল ফকির শিবচর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ আসামি গ্রেফতারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন