রাজশাহীতে লকডাউন বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত
jugantor
রাজশাহীতে লকডাউন বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত

  রাজশাহী ব্যুরো  

২৩ জুন ২০২১, ২২:৩১:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকায় চলমান ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ এর সময়সীমা বাড়িয়ে ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত করা হয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে ৩টায় জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। এখন যেসব বিধিনিষেধ আছে, সেগুলোও আগামী এক সপ্তাহ বলবৎ থাকবে। তবে নতুন করে যুক্ত করা হয়েছে যে, সাংবাদিকরা পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে এ আদেশের আওতাবহির্ভুত থাকবেন।

রাজশাহীর জনপ্রতিনিধি এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে পরামর্শ করে লকডাউন বাড়ানো হলো বলেও জানান জেলা প্রশাসক।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনার ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ার পর রাজশাহীতে সংক্রমণ বাড়তে থাকলে গত ১০ জুন রাতে জরুরি বৈঠক ডেকে ১১ জুন বিকাল থেকে এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করা হয়। সেই লকডাউনের সময়সীমা ছিল ১৭ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত।

তবে সংক্রমণ না কমায় আগের দিন লকডাউনের সময়সীমা বাড়িয়ে ২৪ জুন পর্যন্ত করা হয়। কিন্তু সংক্রমণ ও মৃত্যু এখনো না কমায় লকডাউন আবারও এক সপ্তাহ বাড়ানো হলো। ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত এ লকডাউন থাকবে। এ সময়ের মধ্যে রাজশাহীর সব উপজেলা থেকে মহানগর বিচ্ছিন্ন থাকবে।

রাজশাহীতে নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার ৫০ শতাংশের ওপরে উঠে যাওয়ায় লকডাউন দেয়া হয়। এখন সংক্রমণের হার ওঠানামা করছে। কিন্তু মৃত্যু কমছে না। হাসপাতালেও এখন প্রতিদিন রাজশাহী থেকে ৪০-৪৫ জন রোগী ভর্তি হচ্ছেন।

রাজশাহীর দুটি আরটি-পিসিআর ল্যাবে লকডাউন শুরুর পরদিন ১২ জুন সংক্রমণের হার ছিল ৫৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ। সর্বশেষ ২২ জুন সংক্রমণের হার পাওয়া গেছে ৩৩ দশমিক ০৪ শতাংশ।

লকডাউন শুরুর পরও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ১২ থেকে ১৬ জন পর্যন্ত মারা যাচ্ছেন। এর প্রায় অর্ধেক ব্যক্তির বাড়িই রাজশাহী মহানগর ও জেলার বিভিন্ন উপজেলায়।

রাজশাহীতে লকডাউন বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত

 রাজশাহী ব্যুরো 
২৩ জুন ২০২১, ১০:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকায় চলমান ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ এর সময়সীমা বাড়িয়ে ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত করা হয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে ৩টায় জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। এখন যেসব বিধিনিষেধ আছে, সেগুলোও আগামী এক সপ্তাহ বলবৎ থাকবে। তবে নতুন করে যুক্ত করা হয়েছে যে, সাংবাদিকরা পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে এ আদেশের আওতাবহির্ভুত থাকবেন।

রাজশাহীর জনপ্রতিনিধি এবং স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে পরামর্শ করে লকডাউন বাড়ানো হলো বলেও জানান জেলা প্রশাসক।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনার ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হওয়ার পর রাজশাহীতে সংক্রমণ বাড়তে থাকলে গত ১০ জুন রাতে জরুরি বৈঠক ডেকে ১১ জুন বিকাল থেকে এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করা হয়। সেই লকডাউনের সময়সীমা ছিল ১৭ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত।

তবে সংক্রমণ না কমায় আগের দিন লকডাউনের সময়সীমা বাড়িয়ে ২৪ জুন পর্যন্ত করা হয়। কিন্তু সংক্রমণ ও মৃত্যু এখনো না কমায় লকডাউন আবারও এক সপ্তাহ বাড়ানো হলো। ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত এ লকডাউন থাকবে। এ সময়ের মধ্যে রাজশাহীর সব উপজেলা থেকে মহানগর বিচ্ছিন্ন থাকবে।

রাজশাহীতে নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার ৫০ শতাংশের ওপরে উঠে যাওয়ায় লকডাউন দেয়া হয়। এখন সংক্রমণের হার ওঠানামা করছে। কিন্তু মৃত্যু কমছে না। হাসপাতালেও এখন প্রতিদিন রাজশাহী থেকে ৪০-৪৫ জন রোগী ভর্তি হচ্ছেন।

রাজশাহীর দুটি আরটি-পিসিআর ল্যাবে লকডাউন শুরুর পরদিন ১২ জুন সংক্রমণের হার ছিল ৫৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ। সর্বশেষ ২২ জুন সংক্রমণের হার পাওয়া গেছে ৩৩ দশমিক ০৪ শতাংশ।

লকডাউন শুরুর পরও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ১২ থেকে ১৬ জন পর্যন্ত মারা যাচ্ছেন। এর প্রায় অর্ধেক ব্যক্তির বাড়িই রাজশাহী মহানগর ও জেলার বিভিন্ন উপজেলায়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন