এবার কাদের মির্জার বিচার দাবিতে দুই বোনের বিক্ষোভ (ভিডিও)
jugantor
এবার কাদের মির্জার বিচার দাবিতে দুই বোনের বিক্ষোভ (ভিডিও)

  নোয়াখালী ও কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি  

২৪ জুন ২০২১, ০০:৩৬:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুর কাদেরের ছোট বোন রোকেয়া বেগমের বাসায় হামলার প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে আরেক ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন দুই বোন।

রোকেয়া বেগম কাদের মির্জার ছোট বোন এবং কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাতের মা। তাহেরা বেগমের কাদের মির্জার বড় বোন এবং কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুর মা।

বুধবার রাত ১০টার দিকে বসুরহাট থানার সামনের সড়কে কাদের মির্জার বড় বোন তাহেরা বেগম ও ছোট বোন রোকেয়া বেগম কিছুসংখ্যক কাদের মির্জার বিরোধী উপজেলা আওয়ামী লীগের অনুসারী নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে এই বিক্ষোভ মিছিল করেন।

এ সময় তারা বিক্ষোভ মিছিলে কাদের মির্জার অনুসারীদের নেতৃত্বে ছোট বোন রোকেয়া বেগমের বাসায় হামলার প্রতিবাদে কাদের মির্জার শাস্তির দাবি করে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

এর আগে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বসুরহাট পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বসুরহাট থানা সংলগ্ন সেতুমন্ত্রীর বোনের বাস ভবন এইচ আর ভবনে এই হামলার ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ করা হয়।

সেতুমন্ত্রীর ছোট বোন রোকেয়া বেগম অভিযোগ করেন, মির্জার গুণ্ডা বাহিনী এই হামলা করেছে। আর কে আছে কোম্পানীগঞ্জে, সেতো এখন গডফাদার। পুলিশ তাকে প্রোটেকশন দিচ্ছে, সে বিশাল ক্ষমতাধর।

তিনি বলেন, বাসায় হামলা করে আমার ছেলে রাহাতকে খুঁজতে থাকে। আমি তাদেরকে বলি আমি মন্ত্রীকে ফোন দিচ্ছি। তারা বলে- মন্ত্রী কী করবে? ছেলেকে বের করে দেন। এ সময় হামলাকারীরা বাসায় ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে একটি ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে।

সেতুমন্ত্রীর ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাত অভিযোগ করেন, কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে বিবদমান দ্বন্দ্বের জেরে কাদের মির্জা অনুসারী কেচ্ছা রাসেলের নেতৃত্বে আমার বাসায় হামলা করা হয়েছে। এ সময় তারা অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে।

এ বিষয়ে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার ফোনে যোগাযোগ করা হলে ব্যক্তিগত সহকারী সিরাজুল ফোন রিসিভ করেন। তিনি বলেন, মেয়র বিশ্রামে আছে। এ ধরনের কোনো ঘটনার সঙ্গে মেয়র অনুসারী কেউ জড়িত নয়। উনি শান্ত আছে, উনাকে উত্তেজিত করার জন্য এসব করা হচ্ছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, কয়েকজন লোক এসে বাসার গেটে লাথি মেরে গালমন্দ করেছে। এই ধরনের একটা সংবাদ আমরা পেয়েছি। আমি ঘটনাস্থলে আছি, বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখছি।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২৫ এপ্রিল রাত ১২টা ২০ মিনিটের দিকে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের আরেক ছোট বোন তাহেরা বেগমের (৬৯) বসুরহাট পৌরসভার ৯নম্বর ওয়ার্ডের কোর্ট বিল্ডিং সংলগ্ন বাসায় ককটেল হামলার ঘটনা ঘটে। পরে সকালে পুলিশ অবিস্ফোরিত ৬টি তাজা ককটেল উদ্ধার করে বালতির পানিতে ডুবিয়ে নিষ্ক্রিয় করে। ওই ঘটনার পর থেকে সেতুমন্ত্রীর বোন তাহেরা বেগমের বাসার গেটে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তাহেরা বেগম কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুর মা। তিনি কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ হিসেবে কোম্পানীগঞ্জের চলমান রাজনীতিতে ভূমিকা রাখছেন।

এবার কাদের মির্জার বিচার দাবিতে দুই বোনের বিক্ষোভ (ভিডিও)

 নোয়াখালী ও কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি 
২৪ জুন ২০২১, ১২:৩৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুর কাদেরের ছোট বোন রোকেয়া বেগমের বাসায় হামলার প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে আরেক ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন দুই বোন।

রোকেয়া বেগম কাদের মির্জার ছোট বোন এবং কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাতের মা। তাহেরা বেগমের  কাদের মির্জার বড় বোন এবং  কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুর মা।

বুধবার  রাত ১০টার দিকে বসুরহাট থানার সামনের সড়কে কাদের মির্জার বড় বোন তাহেরা বেগম ও ছোট বোন রোকেয়া বেগম কিছুসংখ্যক কাদের মির্জার বিরোধী উপজেলা আওয়ামী লীগের অনুসারী নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে এই বিক্ষোভ মিছিল করেন।

এ সময় তারা বিক্ষোভ মিছিলে কাদের মির্জার অনুসারীদের নেতৃত্বে ছোট বোন রোকেয়া বেগমের বাসায় হামলার প্রতিবাদে কাদের মির্জার শাস্তির দাবি করে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

এর আগে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বসুরহাট পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বসুরহাট থানা সংলগ্ন সেতুমন্ত্রীর বোনের বাস ভবন এইচ আর ভবনে এই হামলার ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ করা হয়।

সেতুমন্ত্রীর ছোট বোন রোকেয়া বেগম অভিযোগ করেন, মির্জার গুণ্ডা বাহিনী এই হামলা করেছে। আর কে আছে কোম্পানীগঞ্জে, সেতো এখন গডফাদার। পুলিশ তাকে প্রোটেকশন দিচ্ছে, সে বিশাল ক্ষমতাধর।

তিনি বলেন, বাসায় হামলা করে আমার ছেলে রাহাতকে খুঁজতে থাকে। আমি তাদেরকে বলি আমি মন্ত্রীকে ফোন দিচ্ছি। তারা বলে- মন্ত্রী কী করবে? ছেলেকে বের করে দেন। এ সময় হামলাকারীরা বাসায় ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে একটি ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে।

সেতুমন্ত্রীর ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাত অভিযোগ করেন, কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে বিবদমান দ্বন্দ্বের জেরে কাদের মির্জা অনুসারী কেচ্ছা রাসেলের নেতৃত্বে আমার বাসায় হামলা করা হয়েছে। এ সময় তারা অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে।

এ বিষয়ে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার ফোনে যোগাযোগ করা হলে ব্যক্তিগত সহকারী সিরাজুল ফোন রিসিভ করেন। তিনি বলেন, মেয়র বিশ্রামে আছে। এ ধরনের কোনো ঘটনার সঙ্গে মেয়র অনুসারী কেউ জড়িত নয়। উনি শান্ত আছে, উনাকে উত্তেজিত করার জন্য এসব করা হচ্ছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, কয়েকজন লোক এসে বাসার গেটে লাথি মেরে গালমন্দ করেছে। এই ধরনের একটা সংবাদ আমরা পেয়েছি। আমি ঘটনাস্থলে আছি, বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখছি।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২৫ এপ্রিল রাত ১২টা ২০ মিনিটের দিকে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের আরেক ছোট বোন তাহেরা বেগমের (৬৯) বসুরহাট পৌরসভার ৯নম্বর ওয়ার্ডের কোর্ট বিল্ডিং সংলগ্ন বাসায় ককটেল হামলার ঘটনা ঘটে। পরে সকালে পুলিশ অবিস্ফোরিত ৬টি তাজা ককটেল উদ্ধার করে বালতির পানিতে ডুবিয়ে নিষ্ক্রিয় করে। ওই ঘটনার পর থেকে সেতুমন্ত্রীর বোন তাহেরা বেগমের বাসার গেটে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তাহেরা বেগম কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুর মা। তিনি কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ হিসেবে কোম্পানীগঞ্জের চলমান রাজনীতিতে ভূমিকা রাখছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন