নদীতে ঝাঁপ দেওয়ার ৫ ঘণ্টা পর যুবকের লাশ উদ্ধার
jugantor
নদীতে ঝাঁপ দেওয়ার ৫ ঘণ্টা পর যুবকের লাশ উদ্ধার

  সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি  

২৪ জুন ২০২১, ১৭:৫০:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

নাটোরের সিংড়ায় গুরনই নদীতে ঝাঁপ দেওয়ার ৫ ঘণ্টা পর রংনাল (৪০) নামের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় উপজেলার পাঙ্গাশিয়া গ্রামে গুরনই নদী থেকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়।

রংনাল গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর বাজারের খেয়াঘাট সংলগ্ন পাবলিক টয়লেটের পাশে একটি ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করে বলে জানা গেছে। পেশায় তিনি সুইপার। অতিরিক্ত মদ্যপান করেন বলে জানান স্থানীয় নাজিরপুরের জনৈক ব্যক্তি সিরাজ উদ্দিন।

স্থানীয়রা আরও জানান, প্রায় কুড়ি বছর পূর্বে পার্বত্যপুর এলাকা থেকে সেখানে এসে বসবাস শুরু করেন। প্রায় ৫ বছর পূর্বে তার স্ত্রী ও দুই সন্তান তাকে ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে অজ্ঞাতপরিচয়ে এক ব্যক্তি হঠাৎ করে পাঙ্গাশিয়া গ্রামে আসে; পরে ঘুরে বেড়ানোর এক ফাঁকে গুরনই নদীতে ঝাঁপ দেয়। এলাকাবাসী বাঁচাতে গেলেও নদীতে ডুবে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়া হলে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে লাশ উদ্ধার করে।

চামারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রশিদুল মৃধা জানান, অপরিচিত ব্যক্তি নদীতে ঝাঁপ দিলে এলাকাবাসী বাঁচানোর চেষ্টা করেও পারেননি। পরে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

সিংড়া থানার ওসি নূর-এ-আলম সিদ্দিকী জানান, লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। শনাক্তের পর পরিবারের লোকজনের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

নদীতে ঝাঁপ দেওয়ার ৫ ঘণ্টা পর যুবকের লাশ উদ্ধার

 সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি 
২৪ জুন ২০২১, ০৫:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নাটোরের সিংড়ায় গুরনই নদীতে ঝাঁপ দেওয়ার ৫ ঘণ্টা পর রংনাল (৪০) নামের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় উপজেলার পাঙ্গাশিয়া গ্রামে গুরনই নদী থেকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়। 

রংনাল গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর বাজারের খেয়াঘাট সংলগ্ন পাবলিক টয়লেটের পাশে একটি ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করে বলে জানা গেছে। পেশায় তিনি সুইপার। অতিরিক্ত মদ্যপান করেন বলে জানান স্থানীয় নাজিরপুরের জনৈক ব্যক্তি সিরাজ উদ্দিন। 

স্থানীয়রা আরও জানান, প্রায় কুড়ি বছর পূর্বে পার্বত্যপুর এলাকা থেকে সেখানে এসে বসবাস শুরু করেন। প্রায় ৫ বছর পূর্বে তার স্ত্রী ও দুই সন্তান তাকে ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে অজ্ঞাতপরিচয়ে এক ব্যক্তি হঠাৎ করে পাঙ্গাশিয়া গ্রামে আসে; পরে ঘুরে বেড়ানোর এক ফাঁকে গুরনই নদীতে ঝাঁপ দেয়। এলাকাবাসী বাঁচাতে গেলেও নদীতে ডুবে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়া হলে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে লাশ উদ্ধার করে।

চামারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রশিদুল মৃধা জানান, অপরিচিত ব্যক্তি নদীতে ঝাঁপ দিলে এলাকাবাসী বাঁচানোর চেষ্টা করেও পারেননি। পরে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

সিংড়া থানার ওসি নূর-এ-আলম সিদ্দিকী জানান, লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। শনাক্তের পর পরিবারের লোকজনের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন