সুনামগঞ্জে ৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি অপহৃত কলেজ ছাত্রী
jugantor
সুনামগঞ্জে ৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি অপহৃত কলেজ ছাত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট, তাহিরপুর  

২৫ জুন ২০২১, ০৪:২৯:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জ গত ৮ দিনেও অপহৃত কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

কলেজ ছাত্রীর পরিবার থানায় সাধারণ ডায়েরি ও পরবর্তীতে অপহরণে সহায়তার অভিযোগে তিনজনের বিরুদ্ধে জেলার তাহিরপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, অপহরণ করত সহায়তা করার অপরাধে গত সোমবার থানায় ওই মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার সুত্রে জানা যায়, কলোনাকালীন সময়ে কলেজ বন্ধ থাকায় সুনামগঞ্জের গ্রামের বাড়িতে থাকা এক মেধাবী কলেজ ছাত্রীকে তাহিরপুর উপজেলার ভোলাখালী গ্রামের বখাটে আরিফ হোসেন (১৯) নামে এক পিকআপ চালক প্রায়ই উত্যাক্ত করে আসছিলো।

বিষয়টি কলেজ ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে বখাটের পরিবারের লোকজনকে একাধিকবার অবহিত করে বিচার চাওয়া হলেও তার বখাটেপনা থামেনি।

বখাটে আরিফ তার কয়েক সহযোগীসহ কিশোর গ্যাংয়ের সহায়তায় গত ১৬ জুন দুপুরের দিকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

দিনভর খোঁজ না মেলায় আইনি সহায়তা পেতে ঘটনার রাতেই কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধারে তাহিরপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি ) করা হয়।

এরপর তিনজনের নামোল্যেখ করে কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে ২১ জুন থানায় অপহরণ মামলা দায়ের করেন কলেজ ছাত্রীর অবিভাবক।

মামলার তদন্তাকারী কর্মকর্তা থানার এসআই মো. শাহাদাত জানান, প্রাথমিক তদন্তে অপহরণের সত্যতা পাওয়া গেছে এবং মামলায় এজাহার নামীয় আসামি উপজেলার ভোলাখালী গ্রামের মৃত রোশন আলীর ছেলে পিকআপ চালক কফিল উদ্দিনকে সোমবার সকালে গ্রেফতার করা হয়েছে।

কলেজ ছাত্রীর বাবা-মা যুগান্তরকে জানান, এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও অপহরণকারী চক্রের কবল থেকে উদ্ধার না হওয়ায় আমার মেয়েকে নিয়ে শঙ্কায় আছি।

তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, ভিকটিম উদ্ধারে ও পলাতক আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

সুনামগঞ্জে ৮ দিনেও উদ্ধার হয়নি অপহৃত কলেজ ছাত্রী

 যুগান্তর রিপোর্ট, তাহিরপুর 
২৫ জুন ২০২১, ০৪:২৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জ গত ৮ দিনেও অপহৃত কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

কলেজ ছাত্রীর পরিবার থানায় সাধারণ ডায়েরি ও পরবর্তীতে অপহরণে সহায়তার অভিযোগে তিনজনের বিরুদ্ধে জেলার তাহিরপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, অপহরণ করত সহায়তা করার অপরাধে গত সোমবার থানায় ওই মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার সুত্রে জানা যায়, কলোনাকালীন সময়ে কলেজ বন্ধ থাকায় সুনামগঞ্জের গ্রামের বাড়িতে থাকা এক মেধাবী কলেজ ছাত্রীকে তাহিরপুর উপজেলার ভোলাখালী গ্রামের বখাটে আরিফ হোসেন (১৯)  নামে এক পিকআপ চালক প্রায়ই উত্যাক্ত করে আসছিলো।

বিষয়টি কলেজ ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে বখাটের পরিবারের লোকজনকে একাধিকবার অবহিত করে বিচার চাওয়া হলেও তার বখাটেপনা থামেনি।

বখাটে আরিফ তার কয়েক সহযোগীসহ কিশোর গ্যাংয়ের সহায়তায় গত ১৬ জুন দুপুরের দিকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

দিনভর খোঁজ না মেলায় আইনি সহায়তা পেতে ঘটনার রাতেই কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধারে তাহিরপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি ) করা হয়।

এরপর তিনজনের নামোল্যেখ করে কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে ২১ জুন থানায় অপহরণ মামলা দায়ের করেন কলেজ ছাত্রীর অবিভাবক।

মামলার তদন্তাকারী কর্মকর্তা থানার এসআই মো. শাহাদাত জানান, প্রাথমিক তদন্তে অপহরণের সত্যতা পাওয়া গেছে এবং মামলায় এজাহার নামীয় আসামি উপজেলার ভোলাখালী গ্রামের মৃত রোশন আলীর ছেলে পিকআপ চালক কফিল উদ্দিনকে সোমবার সকালে গ্রেফতার করা হয়েছে।

কলেজ ছাত্রীর বাবা-মা যুগান্তরকে জানান, এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও অপহরণকারী চক্রের কবল থেকে উদ্ধার না হওয়ায় আমার মেয়েকে নিয়ে শঙ্কায় আছি।
 
তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, ভিকটিম উদ্ধারে ও পলাতক আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন