২০ হাজার টাকায় ভাড়াটে লোক দিয়ে ছেলেকে খুন করান বাবা!
jugantor
২০ হাজার টাকায় ভাড়াটে লোক দিয়ে ছেলেকে খুন করান বাবা!

  যুগান্তর প্রতিবেদন, সুনামগঞ্জ  

২৫ জুন ২০২১, ১৩:০৯:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার জাহাঙ্গীর আলম (২৮) হত্যার ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, পেশাদার খুনি ভাড়া করে ২০ হাজার টাকায় জাহাঙ্গীরকে তার বাবাই খুন করান।

এ ঘটনায় তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় পুলিশ ওই বাবা, দুই ভাড়াটে খুনিসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলো— উপজেলার বড়দল উত্তর ইউনিয়নের চাঁনপুর রজনীলাইন গ্রামের মৃত আব্দুল গফুরের ছেলে সেকান্দর আলী ওরফে সেকান্দর ডাকাত, মাহারাম দক্ষিণপাড়ার মৃত নবী হোসেনের ছেলে সুরুজ মিয়া ও মাহারাম উত্তরপাড়ার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে পাষণ্ড বাবা মোহাম্মদ আলী।

বৃহস্পতিবার রাতে সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান পিপিএম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রসঙ্গত ২২ মে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তের হাওর থেকে জাহাঙ্গীর আলম (২৮) নামে এক যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ যুবকই মোহাম্মদ আলীর ছেলে। আগের দিন রাতে খুনিচক্র মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা করে জাহাঙ্গীরকে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা ২২ মে মামলা করেন।

পুলিশ এজাহারনামীয় তিন আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়। কিন্তু তাদের জিজ্ঞাসাবাদে ক্লু পায়নি।

তদন্ত কর্মকর্তা বাদীর বন্ধু সুরুজকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

সুরুজ স্বীকার করে মাদকাসক্ত জাহাঙ্গীরকে সরিয়ে দিতে বাবা মোহাম্মদ আলী ২০ হাজার টাকায় খুনের মৌখিক চুক্তি করার পর তারা মিশন বাস্তবায়নে মাঠে নামে।

২০ হাজার টাকায় ভাড়াটে লোক দিয়ে ছেলেকে খুন করান বাবা!

 যুগান্তর প্রতিবেদন, সুনামগঞ্জ 
২৫ জুন ২০২১, ০১:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার জাহাঙ্গীর আলম (২৮) হত্যার ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, পেশাদার খুনি ভাড়া করে ২০ হাজার টাকায় জাহাঙ্গীরকে তার বাবাই খুন করান।

এ ঘটনায় তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় পুলিশ ওই বাবা, দুই ভাড়াটে খুনিসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলো— উপজেলার বড়দল উত্তর ইউনিয়নের চাঁনপুর রজনীলাইন গ্রামের মৃত আব্দুল গফুরের ছেলে সেকান্দর আলী ওরফে সেকান্দর ডাকাত, মাহারাম দক্ষিণপাড়ার মৃত নবী হোসেনের ছেলে সুরুজ মিয়া ও মাহারাম উত্তরপাড়ার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে পাষণ্ড বাবা মোহাম্মদ আলী।

বৃহস্পতিবার রাতে সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান পিপিএম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রসঙ্গত ২২ মে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা সীমান্তের হাওর থেকে জাহাঙ্গীর আলম (২৮) নামে এক যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ যুবকই মোহাম্মদ আলীর ছেলে। আগের দিন রাতে খুনিচক্র মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে হত্যা করে জাহাঙ্গীরকে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা ২২ মে মামলা করেন।

পুলিশ এজাহারনামীয় তিন আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়। কিন্তু তাদের জিজ্ঞাসাবাদে ক্লু পায়নি।

তদন্ত কর্মকর্তা বাদীর বন্ধু সুরুজকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

সুরুজ স্বীকার করে মাদকাসক্ত জাহাঙ্গীরকে সরিয়ে দিতে বাবা মোহাম্মদ আলী ২০ হাজার টাকায় খুনের মৌখিক চুক্তি করার পর তারা মিশন বাস্তবায়নে মাঠে নামে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন