পুড়িয়ে মারা সেই নুসরাতের ভাইকে নিয়ে ‘নতুন ষড়যন্ত্র’
jugantor
পুড়িয়ে মারা সেই নুসরাতের ভাইকে নিয়ে ‘নতুন ষড়যন্ত্র’

  সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি  

২৬ জুন ২০২১, ১৯:৩৫:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

নুসরাত ও তার ভাই

ফেনীর সোনাগাজীতে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার শিকার মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির ছোটভাই রাশেদুল হাসান রায়হানকে নিয়ে নতুন ষড়যন্ত্র শুরু করেছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। আর তাই জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করেছেন তিনি। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি এই জিডি দায়ের করেন।

জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন- এক নারীর ছবিকে বিকৃত করে তার ছবির সঙ্গে সংযুক্ত করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাকে ও তার পরিবারকে হেয়প্রতিপন্ন করছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র।

নায়েব আলী নামে একটি ফেসবুক আইডিতে বিকৃত ছবি সংযুক্ত করে লেখা হয়েছে- সোনাগাজীতে গৃহবধূকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গোপনে আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে তা প্রকাশ করার ভয় দেখিয়ে প্রবাসী স্বামীর কাছে দশ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করল নুসরাতের ভাই প্রতারক রায়হান। বিস্তারিত আসছে...।

এভাবে ফেসবুকের বিভিন্ন আইডিতে তাকে জড়িয়ে আপত্তিকর ছবি দিয়ে তাকে ও তার পরিবারকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। এমতাবস্থায় তিনি জীবনের চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।

এ বিষয়ে সোনাগাজী থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুর রহিম সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমরা তার বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।

উল্লেখ্য, সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে ২০১৯ সালের ৬ এপ্রিল হাত-পা বেঁধে আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। ১০ এপ্রিল সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। ৮ এপ্রিল তার বড়ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

২০১৯ সালের ২৪ অক্টোবর ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ ১৬ জন আসামির মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। মামলাটি উচ্চ আদালতে আপিল বিভাগে শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে।

নুসরাত হত্যার পর থেকে নুসরাতের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার জন্য তার বাড়িতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পালাক্রমে ৩-৪ জন পুলিশ সদস্য নুসরাতের বাড়িতে নিরাপত্তায় নিয়োজিত রয়েছেন।

পুড়িয়ে মারা সেই নুসরাতের ভাইকে নিয়ে ‘নতুন ষড়যন্ত্র’

 সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি 
২৬ জুন ২০২১, ০৭:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নুসরাত ও তার ভাই
নুসরাত ও তার ভাই। ফাইল ছবি

ফেনীর সোনাগাজীতে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার শিকার মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির ছোটভাই রাশেদুল হাসান রায়হানকে নিয়ে নতুন ষড়যন্ত্র শুরু করেছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। আর তাই জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় জিডি (সাধারণ ডায়েরি) করেছেন তিনি। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি এই জিডি দায়ের করেন। 

জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন- এক নারীর ছবিকে বিকৃত করে তার ছবির সঙ্গে সংযুক্ত করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাকে ও তার পরিবারকে হেয়প্রতিপন্ন করছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র।

নায়েব আলী নামে একটি ফেসবুক আইডিতে বিকৃত ছবি সংযুক্ত করে লেখা হয়েছে- সোনাগাজীতে গৃহবধূকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গোপনে আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে তা প্রকাশ করার ভয় দেখিয়ে প্রবাসী স্বামীর কাছে দশ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করল নুসরাতের ভাই প্রতারক রায়হান। বিস্তারিত আসছে...।

এভাবে ফেসবুকের বিভিন্ন আইডিতে তাকে জড়িয়ে আপত্তিকর ছবি দিয়ে তাকে ও তার পরিবারকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। এমতাবস্থায় তিনি জীবনের চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন।

এ বিষয়ে সোনাগাজী থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুর রহিম সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমরা তার বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।

উল্লেখ্য, সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে ২০১৯ সালের ৬ এপ্রিল হাত-পা বেঁধে আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। ১০ এপ্রিল সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। ৮ এপ্রিল তার বড়ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। 

২০১৯ সালের ২৪ অক্টোবর ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ ১৬ জন আসামির মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। মামলাটি উচ্চ আদালতে আপিল বিভাগে শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে। 

নুসরাত হত্যার পর থেকে নুসরাতের পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তার জন্য তার বাড়িতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পালাক্রমে ৩-৪ জন পুলিশ সদস্য নুসরাতের বাড়িতে নিরাপত্তায় নিয়োজিত রয়েছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন