কঠোর লকডউনে মহাসড়কে পটুয়াখালীর ডিসি-এসপি
jugantor
কঠোর লকডউনে মহাসড়কে পটুয়াখালীর ডিসি-এসপি

  পটুয়াখালী ও দক্ষিণ প্রতিনিধি  

০১ জুলাই ২০২১, ২৩:১৯:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

পটুয়াখালীতে করোনা প্রতিরোধে সাত দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে। এ লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলা প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ, সেনাবাহিনী, র‌্যাব এবং বিজিবির সদস্যদের জেলা শহর, মহাসড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে টহল দিতে দেখা গেছে।

মহাসড়কে জরুরি প্রয়োজনে ব্যবহৃত যানবাহন ব্যতীত কোনো যান চলাচল করতে দেখা যায়নি। সকাল থেকেই বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের চৌরাস্তার মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভে অবস্থান নিয়েছেন পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সদস্যরা।

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন, করোনা প্রতিরোধে সরকারের ১৭ দফা প্রজ্ঞাপন বাস্তবায়নে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন তৎপর থাকবে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলা শহরসহ আট উপজেলায় ১৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পৃথক ভাবে কাজ করছে। তবে এ ক্ষেত্রে জনগণের সচেতন হওয়া খুবই প্রয়োজন।

ডিসি আরও বলেন, জেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে পুলিশ, সেনাবাহিনী, বিজিবি এবং র‌্যাব কাজ করছে। এর পূর্বে আমরা মাইকিং করে সরকার প্রজ্ঞাপন সম্পর্কে সকলকে সচেতন করেছি। আশাকরি কোনো বিশৃঙ্খলা ছাড়াই এই লকডাউন পালন হবে।

এ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ্ বলেন, করোনা প্রতিরোধে সরকারের ১৭ দফা প্রজ্ঞাপন বাস্তবায়নে পুলিশ মাঠে থাকবে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই মহাসড়কসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থান গুলোতে পুলিশ অবস্থান নিয়েছে। আমি নিজেও সকাল থেকে মহাসড়কে অবস্থান নিয়েছি, যাতে কোন প্রকার বিশৃঙ্খলা না ঘটে এবং পুলিশ দায়িত্ব পালনে বিঘ্ন না ঘটে।

এছাড়াও পটুয়াখালীতে কঠোর এই লকডাউন পালনে বৃহস্পতিবার থেকে সেনাবাহিনীর একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে বলে নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা সেনা নিবাসের কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন জীবন মাহামুদ।

এদিকে সরেজমিনে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার জেলা শহরে কোনো প্রকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলেনি। শহরের অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতেও চলাচল করেনি কোনো প্রকার যানবাহন। তবে বিচ্ছিন্নভাবে পায়ে চালিত কিছু রিকশা চলাচল করতে দেখা গেছে। শহরের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সড়ক এবং পয়েন্টে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, বিজিবি এবং র‌্যাব সদস্যদের দেখা গেছে।

কঠোর লকডউনে মহাসড়কে পটুয়াখালীর ডিসি-এসপি

 পটুয়াখালী ও দক্ষিণ প্রতিনিধি 
০১ জুলাই ২০২১, ১১:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পটুয়াখালীতে করোনা প্রতিরোধে সাত দিনের লকডাউন শুরু হয়েছে। এ লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে নেমেছে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলা প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ, সেনাবাহিনী, র‌্যাব এবং বিজিবির সদস্যদের জেলা শহর, মহাসড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে টহল দিতে দেখা গেছে।

মহাসড়কে জরুরি প্রয়োজনে ব্যবহৃত যানবাহন ব্যতীত কোনো যান চলাচল করতে দেখা যায়নি। সকাল থেকেই বরিশাল-কুয়াকাটা মহাসড়কের চৌরাস্তার মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভে অবস্থান নিয়েছেন পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সদস্যরা। 

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন, করোনা প্রতিরোধে সরকারের ১৭ দফা প্রজ্ঞাপন বাস্তবায়নে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন তৎপর থাকবে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলা শহরসহ আট উপজেলায় ১৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পৃথক ভাবে কাজ করছে। তবে এ ক্ষেত্রে জনগণের সচেতন হওয়া খুবই প্রয়োজন।

ডিসি আরও বলেন, জেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে পুলিশ, সেনাবাহিনী, বিজিবি এবং র‌্যাব কাজ করছে। এর পূর্বে আমরা মাইকিং করে সরকার প্রজ্ঞাপন সম্পর্কে সকলকে সচেতন করেছি। আশাকরি কোনো বিশৃঙ্খলা ছাড়াই এই লকডাউন পালন হবে। 

এ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ্ বলেন, করোনা প্রতিরোধে সরকারের ১৭ দফা প্রজ্ঞাপন বাস্তবায়নে পুলিশ মাঠে থাকবে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই মহাসড়কসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থান গুলোতে পুলিশ অবস্থান নিয়েছে। আমি নিজেও সকাল থেকে মহাসড়কে অবস্থান নিয়েছি, যাতে কোন প্রকার বিশৃঙ্খলা না ঘটে এবং পুলিশ দায়িত্ব পালনে বিঘ্ন না ঘটে।

এছাড়াও পটুয়াখালীতে কঠোর এই লকডাউন পালনে বৃহস্পতিবার থেকে সেনাবাহিনীর একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে বলে নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা সেনা নিবাসের কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন জীবন মাহামুদ। 

এদিকে সরেজমিনে দেখা গেছে, বৃহস্পতিবার জেলা শহরে কোনো প্রকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলেনি। শহরের অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতেও চলাচল করেনি কোনো প্রকার যানবাহন। তবে বিচ্ছিন্নভাবে পায়ে চালিত কিছু রিকশা চলাচল করতে দেখা গেছে। শহরের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সড়ক এবং পয়েন্টে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, বিজিবি এবং র‌্যাব সদস্যদের দেখা গেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন