পাবনায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা
jugantor
পাবনায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

  পাবনা প্রতিনিধি  

০৩ জুলাই ২০২১, ১৯:৫৬:১৩  |  অনলাইন সংস্করণ

নিহতের স্বজনদের আহাজারি

পাবনা সদর উপজেলার দক্ষিণরামচন্দ্রপুর গ্রামে সুমন প্রামাণিক (৩৭) নামেএক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার বেলা ২টার দিকে দোগাছি ইউনিয়নের দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিহত সুমন দক্ষিণ রামচন্দ্রপুরের মো. বাকি বিল্লাহ প্রমাণিকের ছেলে। সুমন প্রায় ৭ বছর প্রবাস থেকে এসে স্থানীয় দোগাছি ইউনিয়েনের চেয়ারম্যান আলী হাসানের গাড়ি চালাতেন। সম্প্রতি সেই কাজ ছেড়ে তিনি বালির ব্যবসা শুরু করেন।

হত্যায় অভিযুক্ত মিঠু ও টিটু যমজ ভাই। তারা দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর মহল্লার মৃত মানু মিস্ত্রির ছেলে। ঘটনার পর নিহতের বিক্ষুব্ধ স্বজনরা তাদের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

স্থানীয়রা জানান, আগের একটি মারামারির ঘটনায় নিহত সুমনের সঙ্গে মিঠুর বিরোধ ছিল। শনিবার দুপরে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন সুমন। বাড়ির প্রবেশ মুখের গলিতে মোটরসাইকেল রেখে যাওয়ার সময় সুমনের সঙ্গে মিঠু ও তার জমজ ভাই টিটুর বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে মারামারি শুরু হলে সুমনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায় তারা।

নিহত সুমন প্রামাণিকের স্ত্রী রিমা খাতুন বলেন, আমার স্বামী অনন্ত বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। প্রতিপক্ষের লোকজন সুমনকে হাঁসুয়া ও রামদা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধারকরে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। জড়িতদের বিষয়ে তদন্ত ও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। পূর্বের একটি বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হয়েছে।

পাবনায় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

 পাবনা প্রতিনিধি 
০৩ জুলাই ২০২১, ০৭:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নিহতের স্বজনদের আহাজারি
নিহতের স্বজনদের আহাজারি। ছবি: যুগান্তর

পাবনা সদর উপজেলার দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর গ্রামে সুমন প্রামাণিক (৩৭) নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার বেলা ২টার দিকে দোগাছি ইউনিয়নের দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিহত সুমন দক্ষিণ রামচন্দ্রপুরের মো. বাকি বিল্লাহ প্রমাণিকের ছেলে। সুমন প্রায় ৭ বছর প্রবাস থেকে এসে স্থানীয় দোগাছি ইউনিয়েনের চেয়ারম্যান আলী হাসানের গাড়ি চালাতেন। সম্প্রতি সেই কাজ ছেড়ে তিনি বালির ব্যবসা শুরু করেন।

হত্যায় অভিযুক্ত মিঠু ও টিটু যমজ ভাই। তারা দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর মহল্লার মৃত মানু মিস্ত্রির ছেলে। ঘটনার পর নিহতের বিক্ষুব্ধ স্বজনরা তাদের বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

স্থানীয়রা জানান, আগের একটি মারামারির ঘটনায় নিহত সুমনের সঙ্গে মিঠুর বিরোধ ছিল। শনিবার দুপরে মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন সুমন। বাড়ির প্রবেশ মুখের গলিতে মোটরসাইকেল রেখে যাওয়ার সময় সুমনের সঙ্গে মিঠু ও তার জমজ ভাই টিটুর বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে মারামারি শুরু হলে সুমনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে পালিয়ে যায় তারা।

নিহত সুমন প্রামাণিকের স্ত্রী রিমা খাতুন বলেন, আমার স্বামী অনন্ত বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। প্রতিপক্ষের লোকজন সুমনকে হাঁসুয়া ও রামদা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। জড়িতদের বিষয়ে তদন্ত ও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। পূর্বের একটি বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন