সেলুনে বসা যুবলীগ নেতাকে গলা কেটে হত্যা
jugantor
সেলুনে বসা যুবলীগ নেতাকে গলা কেটে হত্যা

  দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি  

০৫ জুলাই ২০২১, ১৮:১৮:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নিহত যুবলীগ নেতা

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে লেচু মিয়া (২৮) নামে এক ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতিকে প্রকাশ্য দিবালোকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার দুপুরের দিকে উপজেলার ধলবাজারের একটি সেলুনে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত লেচু মিয়া ভাটিধল গ্রামের হামিদ আলী মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দিরাই উপজেলার ভাটিধল গ্রামের হামিদ আলীর ছেলে লেচু মিয়ার সঙ্গে প্রতিবেশী আব্দুস শহিদের ছেলে দুবাই ফেরত জেন্টু মিয়ার (২৮) বাড়ির সীমানাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিরোধ ছিল। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় লেচু মিয়া ধলবাজারে একটি সেলুনে বসেছিলেন। এ সময় হঠাৎ করে জেন্টু মিয়া ধারালো ছোরা দিয়ে লেচু মিয়ার গলায় কোপ দেয়। গলা কাটার পরও এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে জেন্টু।

পরে স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহতাবস্থায় লেচুকে দিরাই হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে দুপুর আড়াইটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লেচু মিয়া মারা যান।

তাড়ল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহমদ চৌধুরী জানান, নিহত লেচু মিয়া তাড়ল ইউনিয়ন যুবলীগের ১নং ওয়ার্ড সভাপতি ছিলেন।

নিহতের চাচাত ভাই রাজু মিয়ার দাবি, জেন্টু মিয়া, তার সহোদর রায়হান মিয়া ও সোহান মিয়া মিলে লেচু মিয়াকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। জেন্টু মিয়া এলাকায় নানা অপরাধের সঙ্গেও সম্পৃক্ত। তিনি ঘাতকদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দিরাই থানার ওসি আজিজুর রহমান জানান, হাওরাঞ্চলের বাজারে হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে। হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে আমরা ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। বর্তমানে এলাকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে। ঘাতকদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সেলুনে বসা যুবলীগ নেতাকে গলা কেটে হত্যা

 দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি 
০৫ জুলাই ২০২১, ০৬:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নিহত যুবলীগ নেতা
নিহত যুবলীগ নেতা

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে লেচু মিয়া (২৮) নামে এক ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতিকে প্রকাশ্য দিবালোকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার দুপুরের দিকে উপজেলার ধলবাজারের একটি সেলুনে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত লেচু মিয়া ভাটিধল গ্রামের হামিদ আলী মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দিরাই উপজেলার ভাটিধল গ্রামের হামিদ আলীর ছেলে লেচু মিয়ার সঙ্গে প্রতিবেশী আব্দুস শহিদের ছেলে দুবাই ফেরত জেন্টু মিয়ার (২৮) বাড়ির সীমানাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিরোধ ছিল। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় লেচু মিয়া ধলবাজারে একটি সেলুনে বসেছিলেন। এ সময় হঠাৎ করে জেন্টু মিয়া ধারালো ছোরা দিয়ে লেচু মিয়ার গলায় কোপ দেয়। গলা কাটার পরও এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে জেন্টু।

পরে স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহতাবস্থায় লেচুকে দিরাই হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে দুপুর আড়াইটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লেচু মিয়া মারা যান।

তাড়ল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহমদ চৌধুরী জানান, নিহত লেচু মিয়া তাড়ল ইউনিয়ন যুবলীগের ১নং ওয়ার্ড সভাপতি ছিলেন।

নিহতের চাচাত ভাই রাজু মিয়ার দাবি, জেন্টু মিয়া, তার সহোদর রায়হান মিয়া ও সোহান মিয়া মিলে লেচু মিয়াকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। জেন্টু মিয়া এলাকায় নানা অপরাধের সঙ্গেও সম্পৃক্ত। তিনি ঘাতকদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দিরাই থানার ওসি আজিজুর রহমান জানান, হাওরাঞ্চলের বাজারে হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে। হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে আমরা ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। বর্তমানে এলাকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে। ঘাতকদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন