মেহেদীর রং নিয়েই না ফেরার দেশে নববধূ
jugantor
মেহেদীর রং নিয়েই না ফেরার দেশে নববধূ

  সাতক্ষীরা প্রতিনিধি  

০৫ জুলাই ২০২১, ১৯:৪৭:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

মেহেদীর রং না মুছতেই ঝরে গেলেন সাত দিনের নববধূ আঞ্জুমান আরা বেগম (১৮)। রোববার বিকালে শ্বশুরবাড়িতে ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় থাকা আঞ্জুমান আরার লাশ নামানো হয়।

শ্যামনগর উপজেলার কৈখালি গ্রামের আনারুল ইসলামের মেয়ে আঞ্জুমান আরা তার নানার বাড়ি কালিগঞ্জ উপজেলার বসন্তপুর গ্রামে থাকতেন। তিনি কালিগঞ্জ সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন।

তার নানী সখিনা বেগম জানান, আমরা এক সপ্তাহ আগে আঞ্জুমান আরার সঙ্গে বসন্তপুর গ্রামের সাইদুল ইসলামের বিয়ে দিয়েছি। সাইদুল পেশায় একজন রাজমিস্ত্রি। উভয়ের মধ্যে বনিবনাও ভাল ছিল। কিন্তু কোথা থেকে কি যে হয়ে গেল তা আমরাও বুঝতে পারছি না।

কালিগঞ্জ থানার ওসি গোলাম মোস্তফা জানান, আঞ্জুমান আরার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সোমবার সাতক্ষীরায় পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে কালিগঞ্জ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

মেহেদীর রং নিয়েই না ফেরার দেশে নববধূ

 সাতক্ষীরা প্রতিনিধি 
০৫ জুলাই ২০২১, ০৭:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মেহেদীর রং না মুছতেই ঝরে গেলেন সাত দিনের নববধূ আঞ্জুমান আরা বেগম (১৮)। রোববার বিকালে শ্বশুরবাড়িতে ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় থাকা আঞ্জুমান আরার লাশ নামানো হয়।

শ্যামনগর উপজেলার কৈখালি গ্রামের আনারুল ইসলামের মেয়ে আঞ্জুমান আরা তার নানার বাড়ি কালিগঞ্জ উপজেলার বসন্তপুর গ্রামে থাকতেন। তিনি কালিগঞ্জ সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন।

তার নানী সখিনা বেগম জানান, আমরা এক সপ্তাহ আগে আঞ্জুমান আরার সঙ্গে বসন্তপুর গ্রামের সাইদুল ইসলামের বিয়ে দিয়েছি। সাইদুল পেশায় একজন রাজমিস্ত্রি। উভয়ের মধ্যে বনিবনাও ভাল ছিল। কিন্তু কোথা থেকে কি যে হয়ে গেল তা আমরাও বুঝতে পারছি না।

কালিগঞ্জ থানার ওসি গোলাম মোস্তফা জানান, আঞ্জুমান আরার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সোমবার সাতক্ষীরায় পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে কালিগঞ্জ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন