এক সপ্তাহের ব্যবধানে দুই ছেলেকে হারিয়ে নিজেও না ফেরার দেশে বাবা
jugantor
এক সপ্তাহের ব্যবধানে দুই ছেলেকে হারিয়ে নিজেও না ফেরার দেশে বাবা

  বগুড়া ব্যুরো  

০৮ জুলাই ২০২১, ২২:০২:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ায় এক সপ্তাহের ব্যবধানে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী দুই ছেলের মৃত্যুর শোক সইতে পারলেন না বাশার মেটাল ওয়ার্কসের মালিক আবদুল লতিফ বাশার (৯২)। বৃহস্পতিবার সকালে তিনি বার্ধক্যজনিত কারণে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ... রাজিউন)।

বৃহস্পতিবার বাদ জোহর বগুড়া শহরের নারুলী মধ্যপাড়া জামে মসজিদে মরহুম আবদুল লতিফ বাশারের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে তার লাশ নারুলী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। মরহুম শিল্পপতি আবদুল লতিফ বাশার পাঁচ ছেলে ও তিন মেয়ের জনক ছিলেন।

পরিবারিক সূত্র জানায়, মরহুম বাশারের বড় ছেলে আইনুল হক সোহেল বগুড়া বিসিক শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি আইনুল হক সোহেল, দ্বিতীয় ছেলে এনামুল হক জুয়েল, তৃতীয় ছেলে আমেরিকার মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জের সাইপেন প্রবাসী আমিনুল হক কোয়েল, চতুর্থ ছেলে রবিউল হক পাভেল ও পঞ্চম ছেলে শফিউল হক রাফেল। এদের মধ্যে জুয়েল, পাভেল ও রাফেল বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ছিলেন।

শিল্পপতি আইনুল হক সোহেলের একমাত্র ছেলে বগুড়া বিসিক মালিক সমিতির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক তরুণ উদ্যোক্তা তালহা মোস্তাকিম হক (২৮) গত ২০১৮ সালের ২১ জানুয়ারি কলকাতায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ওই বছরের ১৮ এপ্রিল সকালে বগুড়া বিসিক শিল্পনগরীতে ‘গুঞ্জন মেটাল’ নামে নিজ মালিকানাধীন কারখানার দোতলার ছাদ থেকে পড়ে আইনুল হক সোহেল (৫৮) মারা যান। তার এ মৃত্যু নিয়ে নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছিল। প্রায় এক বছর আগে দ্বিতীয় ছেলে এনামুল হক জুয়েল (৫৫) অসুস্থ হয়ে মারা যান।

সর্ব শেষ গত ১ জুলাই চতুর্থ ছেলে রবিউল হক পাভেল (৪৩) ও ৬ জুলাই পঞ্চম ছেলে শফিউল হক রাফেল (৩৮) মৃত্যুবরণ করেন।

অল্পদিনের ব্যবধানে চার ছেলে ও প্রিয় নাতি তালহাকে হারিয়ে প্রবীণ শিল্পপতি আবদুল লতিফ বাশার বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি সবসময় দোয়া করতেন, তার তিন প্রতিবন্ধী ছেলের পরে যেন তার মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তিনি বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

মরহুম বাশার কিডনি, হৃদরোগ, ব্রেইন স্ট্রোকসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। এক সপ্তাহে বাবা ও দুই ছেলের মৃত্যুতে শুধু তাদের পরিবারে নয়; পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

মরহুমের তৃতীয় ছেলে আমেরিকার মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জের সাইপেন প্রবাসী আমিনুল হক কোয়েল জানান, স্বামী, চার ছেলে ও নাতিকে হারিয়ে তার মা আয়েশা আকতারও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি তার মায়ের সুস্থতা ও মরহুম বাবা ও চার ভাইয়ের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে দুই ছেলেকে হারিয়ে নিজেও না ফেরার দেশে বাবা

 বগুড়া ব্যুরো 
০৮ জুলাই ২০২১, ১০:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ায় এক সপ্তাহের ব্যবধানে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী দুই ছেলের মৃত্যুর শোক সইতে পারলেন না বাশার মেটাল ওয়ার্কসের মালিক আবদুল লতিফ বাশার (৯২)। বৃহস্পতিবার সকালে তিনি বার্ধক্যজনিত কারণে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ... রাজিউন)।

বৃহস্পতিবার বাদ জোহর বগুড়া শহরের নারুলী মধ্যপাড়া জামে মসজিদে মরহুম আবদুল লতিফ বাশারের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে তার লাশ নারুলী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। মরহুম শিল্পপতি আবদুল লতিফ বাশার পাঁচ ছেলে ও তিন মেয়ের জনক ছিলেন।

পরিবারিক সূত্র জানায়, মরহুম বাশারের বড় ছেলে আইনুল হক সোহেল বগুড়া বিসিক শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি আইনুল হক সোহেল, দ্বিতীয় ছেলে এনামুল হক জুয়েল, তৃতীয় ছেলে আমেরিকার মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জের সাইপেন প্রবাসী আমিনুল হক কোয়েল, চতুর্থ ছেলে রবিউল হক পাভেল ও পঞ্চম ছেলে শফিউল হক রাফেল। এদের মধ্যে জুয়েল, পাভেল ও রাফেল বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ছিলেন।

শিল্পপতি আইনুল হক সোহেলের একমাত্র ছেলে বগুড়া বিসিক মালিক সমিতির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক তরুণ উদ্যোক্তা তালহা মোস্তাকিম হক (২৮) গত ২০১৮ সালের ২১ জানুয়ারি কলকাতায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ওই বছরের ১৮ এপ্রিল সকালে বগুড়া বিসিক শিল্পনগরীতে ‘গুঞ্জন মেটাল’ নামে নিজ মালিকানাধীন কারখানার দোতলার ছাদ থেকে পড়ে আইনুল হক সোহেল (৫৮) মারা যান। তার এ মৃত্যু নিয়ে নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছিল। প্রায় এক বছর আগে দ্বিতীয় ছেলে এনামুল হক জুয়েল (৫৫) অসুস্থ হয়ে মারা যান।

সর্ব শেষ গত ১ জুলাই চতুর্থ ছেলে রবিউল হক পাভেল (৪৩) ও ৬ জুলাই পঞ্চম ছেলে শফিউল হক রাফেল (৩৮) মৃত্যুবরণ করেন।

অল্পদিনের ব্যবধানে চার ছেলে ও প্রিয় নাতি তালহাকে হারিয়ে প্রবীণ শিল্পপতি আবদুল লতিফ বাশার বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি সবসময় দোয়া করতেন, তার তিন প্রতিবন্ধী ছেলের পরে যেন তার মৃত্যু হয়। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তিনি বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

মরহুম বাশার কিডনি, হৃদরোগ, ব্রেইন স্ট্রোকসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। এক সপ্তাহে বাবা ও দুই ছেলের মৃত্যুতে শুধু তাদের পরিবারে নয়; পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

মরহুমের তৃতীয় ছেলে আমেরিকার মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জের সাইপেন প্রবাসী আমিনুল হক কোয়েল জানান, স্বামী, চার ছেলে ও নাতিকে হারিয়ে তার মা আয়েশা আকতারও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি তার মায়ের সুস্থতা ও মরহুম বাবা ও চার ভাইয়ের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন