লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় আটক ১ 
jugantor
লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় আটক ১ 

  কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি  

০৯ জুলাই ২০২১, ২০:৪৮:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় প্রতারক মনির হোসেনকে আটক করে পুলিশ

লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় প্রতারক চক্রের এক সদস্যকে আটক করেছে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ। অভিযুক্তের নাম মনির হোসেন (৩৫)।

শুক্রবার সকালে কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর লাখিরচর মেইলগেট এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

সূত্র জানায়, শুক্রবার বেলা ১১ টার দিকে রোহিতপুর ইউনিয়নের লাখিরচর মেইল গেইট এলাকায় ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে কারাদণ্ড প্রদানের ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়ের সময় এলাকাবাসী তাকে আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে তাকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে এলাকাবাসী। এ সময় তার সঙ্গে থাকা অপর দুইজন দ্রুত সটকে পড়ে। তবে তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেট কার (ঢাকা মেট্রো ১৫-১৩৩৫) ও কিছু কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

রোহিতপুরের স্থানীয় হোটেল ব্যবসায়ী রিয়াজুল বলেন, বৃহস্পতিবার এই তিন প্রতারক লকডাউনে হোটেল খোলা রাখায় ৬ মাসের কারাদণ্ডের ভয় দেখিয়ে আমার কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা আদায় করে। এত টাকা ক্যাশ না থাকায় ধার করে টাকা পরিশোধ করেছি। আজকে জানতে পারলাম এরা আসলে প্রতারক। এদের উচিত বিচার চাই।

তাইজুল ইসলাম নামে এক মুদি দোকানি জানান, শুক্রবার সকালে চক্রটি মোবাইল কোর্টের নামে তার কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা নেয়। গত কয়েকদিন একই চক্র সোনাকান্দা বিসিক শিল্পনগরী, লাখিরচর ব্রিজসহ রোহিতপুরের বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্টের নামে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেয়।

এ বিষয়ে কেরানীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কামরুল হাসান সোহেল বলেন, প্রতারক চক্রটি ম্যাজিস্ট্রেট, সাংবাদিক সেজে লকডাউনে দোকানপাট খোলা রাখা ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে চাঁদাবাজি করছিল। শুক্রবার লাকিরচর মেইলগেট থেকে চক্রটির এক সদস্যকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ভুয়া মোবাইল কোর্টের ব্যাপারে জনগণকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস ছালাম বলেন, চক্রটির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় আটক ১ 

 কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি 
০৯ জুলাই ২০২১, ০৮:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় প্রতারক মনির হোসেনকে আটক করে পুলিশ
লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় প্রতারক মনির হোসেনকে আটক করে পুলিশ। ছবি: যুগান্তর

লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজির সময় প্রতারক চক্রের এক সদস্যকে আটক করেছে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ। অভিযুক্তের নাম মনির হোসেন (৩৫)।

শুক্রবার সকালে কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর লাখিরচর মেইলগেট এলাকা থেকে তাকে  আটক করা হয়। 

সূত্র জানায়, শুক্রবার বেলা ১১ টার দিকে রোহিতপুর ইউনিয়নের লাখিরচর মেইল গেইট এলাকায় ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে কারাদণ্ড প্রদানের ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়ের  সময় এলাকাবাসী তাকে আটক করে গণধোলাই দেয়। পরে তাকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে এলাকাবাসী। এ সময় তার সঙ্গে থাকা অপর দুইজন দ্রুত সটকে পড়ে। তবে তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেট কার (ঢাকা মেট্রো ১৫-১৩৩৫) ও কিছু কাগজপত্র জব্দ করা হয়।

রোহিতপুরের স্থানীয় হোটেল ব্যবসায়ী রিয়াজুল বলেন, বৃহস্পতিবার এই তিন প্রতারক লকডাউনে হোটেল খোলা রাখায় ৬ মাসের কারাদণ্ডের ভয় দেখিয়ে আমার কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা আদায় করে। এত টাকা ক্যাশ না থাকায় ধার করে টাকা পরিশোধ করেছি। আজকে জানতে পারলাম এরা আসলে প্রতারক। এদের উচিত বিচার চাই।

তাইজুল ইসলাম নামে এক মুদি দোকানি জানান, শুক্রবার সকালে চক্রটি মোবাইল কোর্টের নামে তার কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা নেয়। গত কয়েকদিন একই চক্র সোনাকান্দা বিসিক শিল্পনগরী, লাখিরচর ব্রিজসহ রোহিতপুরের বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্টের নামে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেয়। 

এ বিষয়ে কেরানীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কামরুল হাসান সোহেল বলেন, প্রতারক চক্রটি ম্যাজিস্ট্রেট, সাংবাদিক সেজে লকডাউনে দোকানপাট খোলা রাখা ব্যবসায়ীদের টার্গেট করে চাঁদাবাজি করছিল। শুক্রবার লাকিরচর মেইলগেট থেকে চক্রটির এক সদস্যকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ভুয়া মোবাইল কোর্টের ব্যাপারে জনগণকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি। 

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুস ছালাম বলেন, চক্রটির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন