৩০ মণের ‘সম্রাট বাবুর’ দাম ১২ লাখ টাকা
jugantor
৩০ মণের ‘সম্রাট বাবুর’ দাম ১২ লাখ টাকা

  শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

১১ জুলাই ২০২১, ১৫:৩৬:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

৩০ মণের ‘সম্রাট বাবুর’ দাম ১২ লাখ টাকা

ষাঁড়টির নাম ‘সম্রাট বাবু’; লম্বায় ৯ ফুট ও উচ্চতা ৬ ফুট। ওজন প্রায় ৩০ মণ। বয়স দুই বছর এক মাস বয়সের ‘সম্রাট বাবু’ নামের ওই ষাঁড়টিকে এবার কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

ষাঁড়টি লালন-পালন করছেন মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার উমেদপুর ইউনিয়নের মধ্য আলেপুর গ্রামের মৃত ছেতু ঢালীর ছেলে কৃষক মোশাররফ ঢালী।

এবার কোরবানির ঈদে ‘সম্রাট বাবুই’ উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বড় ষাঁড় বলে দাবি করেন ষাঁড়টির মালিক রশিদ ঢালী।

জানা যায়, দুই বছর এক মাস আগে রশিদ ঢালীর নিজ খামারে জন্ম হয় ‘সম্রাট বাবুর’। এর পর থেকে তাকে কোনো ক্ষতিকর ওষুধ ছাড়াই দেশীয় খাবার খাইয়ে লালন-পালন করা হয়েছে। বেশি বড় হওয়ায় আগ্রহ নিয়ে তাকে দেখতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মানুষ এসে ভিড় করছেন। মাঝেমধ্যে ক্রেতারাও আসছেন ষাঁড়টি কিনতে। কৃষক এই ষাঁড়টির দাম হাঁকছেন ১২ লাখ টাকা।

‘সম্রাট বাবুকে’ দেখতে আসা উপজেলার রহমত তালুকদার বলেন, ‘সম্রাট বাবু’ নামের ষাঁড়টির কথা শুনে রশিদ ঢালীর বাড়িতে এসেছি। আসলেই ষাঁড়টি দেখার মতো। যেমন লম্বা তেমন তার গঠন। অনেক ক্রেতারাই আসছে ষাঁড়টি দেখতে। প্রতিদিন শত শত মানুষ ষাঁড়টি দেখতে এখানে ভিড় জমাচ্ছেন।

‘সম্রাট বাবুর’ মালিক মোশাররফ ঢালী বলেন, ষাঁড়টি দেখতে সাদা ও কালো রঙের মিশ্রণ। উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের পরামর্শক্রমে কোনো ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার ছাড়াই দেশীয় খাবার খাইয়ে গরুটিকে লালন-পালন করেছি। এখন ষাঁড়টির ওজন হয়েছে প্রায় ৩০ মণ। ষাঁড়টির দাম চাচ্ছি ১২ লাখ টাকা, তবে আলোচনা সাপেক্ষে বিক্রি করতে পারি।

৩০ মণের ‘সম্রাট বাবুর’ দাম ১২ লাখ টাকা

 শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
১১ জুলাই ২০২১, ০৩:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
৩০ মণের ‘সম্রাট বাবুর’ দাম ১২ লাখ টাকা
ছবি: যুগান্তর

ষাঁড়টির নাম ‘সম্রাট বাবু’; লম্বায় ৯ ফুট ও উচ্চতা ৬ ফুট। ওজন প্রায় ৩০ মণ। বয়স দুই বছর এক মাস বয়সের ‘সম্রাট বাবু’ নামের ওই ষাঁড়টিকে এবার কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

ষাঁড়টি লালন-পালন করছেন মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার উমেদপুর ইউনিয়নের মধ্য আলেপুর গ্রামের মৃত ছেতু ঢালীর ছেলে কৃষক মোশাররফ ঢালী।

এবার কোরবানির ঈদে ‘সম্রাট বাবুই’ উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বড় ষাঁড় বলে দাবি করেন ষাঁড়টির মালিক রশিদ ঢালী।

জানা যায়, দুই বছর এক মাস আগে রশিদ ঢালীর নিজ খামারে জন্ম হয় ‘সম্রাট বাবুর’। এর পর থেকে তাকে কোনো ক্ষতিকর ওষুধ ছাড়াই দেশীয় খাবার খাইয়ে লালন-পালন করা হয়েছে। বেশি বড় হওয়ায় আগ্রহ নিয়ে তাকে দেখতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মানুষ এসে ভিড় করছেন। মাঝেমধ্যে ক্রেতারাও আসছেন ষাঁড়টি কিনতে। কৃষক এই ষাঁড়টির দাম হাঁকছেন ১২ লাখ টাকা।

‘সম্রাট বাবুকে’ দেখতে আসা উপজেলার রহমত তালুকদার বলেন, ‘সম্রাট বাবু’ নামের ষাঁড়টির কথা শুনে রশিদ ঢালীর বাড়িতে এসেছি। আসলেই ষাঁড়টি দেখার মতো। যেমন লম্বা তেমন তার গঠন। অনেক ক্রেতারাই আসছে ষাঁড়টি দেখতে। প্রতিদিন শত শত মানুষ ষাঁড়টি দেখতে এখানে ভিড় জমাচ্ছেন।

‘সম্রাট বাবুর’ মালিক মোশাররফ ঢালী বলেন, ষাঁড়টি দেখতে সাদা ও কালো রঙের মিশ্রণ। উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের পরামর্শক্রমে কোনো ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার ছাড়াই দেশীয় খাবার খাইয়ে গরুটিকে লালন-পালন করেছি। এখন ষাঁড়টির ওজন হয়েছে প্রায় ৩০ মণ। ষাঁড়টির দাম চাচ্ছি ১২ লাখ টাকা, তবে আলোচনা সাপেক্ষে  বিক্রি করতে পারি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন