লুটের সাড়ে ৪৬ লাখ টাকার মধ্যে মাটির নিচে মিলল ১৮ লাখ, আটক ২
jugantor
লুটের সাড়ে ৪৬ লাখ টাকার মধ্যে মাটির নিচে মিলল ১৮ লাখ, আটক ২

  কক্সবাজার প্রতিনিধি  

১১ জুলাই ২০২১, ১৮:২৫:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের পেকুয়া বাজারের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ৪৬ লাখ টাকা লুটের ঘটনায় দুইজনকে আটক করেছে র‌্যাব-১৫ এর একটি দল। পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে চকরিয়ার সিকদার পাড়ার একটি বসত ঘরের মাটির নিচ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১৮ লাখ টাকা।

শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে চকরিয়ার সিকদারপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে র‌্যাব-১৫ এর কার‌্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান কোম্পানি কমান্ডর আজিম আহমেদ।

আটককৃতরা হলেন- চকরিয়া থানার ব্রাক্ষণপাড়া এলাকার মৃত আব্দুস শুকুরের ছেলে মো. সাইফুল ইসলাম (৩১) এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালী থানার নাপুরা রুস্তমকাটা এলাকার মোস্তাক আহমদের ছেলে মো. কপিল উদ্দিন (২২)।

সংবাদ সম্মেলনে আজিম আহমেদ জানান, ৭-৮ জনের একটি সিন্ডিকেট পেকুয়ার বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশনের টাকা চুরি করতে দীর্ঘদিন ধরে পরিকল্পনা করে আসছে। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ৭ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে তালা ভেঙে ৪৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায় তারা। এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতার করা গেল বাকি টাকাও উদ্ধার করা সম্ভব হবে।

র‌্যাবের দেয়া তথ্যমতে, ৭ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে কক্সবাজারের পেকুয়ার আলহাজ কবির আহমদ চৌধুরী বাজারের ইসলামী ব্যাংক ভবনে অবস্থিত বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিস থেকে ৪৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা চুরি করে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। এ ঘটনার পর থেকে টাকা উদ্ধারের অভিযানে নামে র‌্যাব-১৫।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার র‌্যাব জানতে পারে, টাকা লুটের ঘটনার সঙ্গে জড়িত কয়েকজন চকরিয়া থানার সিকদারপাড়ার এলাকার (২ নম্বর ওয়ার্ড) জনৈক আনোয়ার মিয়ার বসত বাড়িতে অবস্থান করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে রাত সাড়ে ৯টার দিকে ওই বাড়িতে অভিযান চালায়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে কয়েকজন পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদের আটক করা হয়।

পরে তাদের দেখানো তথ্যমতে আনোয়ার মিয়ার বসত ঘরের বারান্দার মাটির খুঁড়ে বস্তায় মোড়ানো অবস্থায় ১৮ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়।

আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিসে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ব্যক্তিরা রাতের খাবার খেতে হোটেলে গেলে টাকা লুটের সিন্ডিকেট সদস্যরা মাথায় হেলমেট পরে প্রথমে বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিসের গ্রিলের তালা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে। পরে বিদ্যুতের প্রধান সুইস বন্ধ করে দিয়ে ভল্ট ভেঙে টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পেকুয়া থানায় হস্তান্তর করার কার্যক্রম প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী।

লুটের সাড়ে ৪৬ লাখ টাকার মধ্যে মাটির নিচে মিলল ১৮ লাখ, আটক ২

 কক্সবাজার প্রতিনিধি 
১১ জুলাই ২০২১, ০৬:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের পেকুয়া বাজারের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ৪৬ লাখ টাকা লুটের ঘটনায় দুইজনকে আটক করেছে র‌্যাব-১৫ এর একটি দল। পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে চকরিয়ার সিকদার পাড়ার একটি বসত ঘরের মাটির নিচ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১৮ লাখ টাকা।

শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে চকরিয়ার সিকদারপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে র‌্যাব-১৫ এর কার‌্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান কোম্পানি কমান্ডর আজিম আহমেদ।

আটককৃতরা হলেন- চকরিয়া থানার ব্রাক্ষণপাড়া এলাকার মৃত আব্দুস শুকুরের ছেলে মো. সাইফুল ইসলাম (৩১) এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালী থানার নাপুরা রুস্তমকাটা এলাকার মোস্তাক আহমদের ছেলে মো. কপিল উদ্দিন (২২)।

সংবাদ সম্মেলনে আজিম আহমেদ জানান, ৭-৮ জনের একটি সিন্ডিকেট পেকুয়ার বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশনের টাকা চুরি করতে দীর্ঘদিন ধরে পরিকল্পনা করে আসছে। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ৭ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে তালা ভেঙে ৪৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায় তারা। এ ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতার করা গেল বাকি টাকাও উদ্ধার করা সম্ভব হবে।

র‌্যাবের দেয়া তথ্যমতে, ৭ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে কক্সবাজারের পেকুয়ার আলহাজ কবির আহমদ চৌধুরী বাজারের ইসলামী ব্যাংক ভবনে অবস্থিত বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিস থেকে ৪৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা চুরি করে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। এ ঘটনার পর থেকে টাকা উদ্ধারের অভিযানে নামে র‌্যাব-১৫।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার র‌্যাব জানতে পারে, টাকা লুটের ঘটনার সঙ্গে জড়িত কয়েকজন চকরিয়া থানার সিকদারপাড়ার এলাকার (২ নম্বর ওয়ার্ড) জনৈক আনোয়ার মিয়ার বসত বাড়িতে অবস্থান করছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে রাত সাড়ে ৯টার দিকে ওই বাড়িতে অভিযান চালায়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে কয়েকজন পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদের আটক করা হয়।

পরে তাদের দেখানো তথ্যমতে আনোয়ার মিয়ার বসত ঘরের বারান্দার মাটির খুঁড়ে বস্তায় মোড়ানো অবস্থায় ১৮ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়।

আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিসে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত ব্যক্তিরা রাতের খাবার খেতে হোটেলে গেলে টাকা লুটের সিন্ডিকেট সদস্যরা মাথায় হেলমেট পরে প্রথমে বিকাশ ডিস্ট্রিবিউশন অফিসের গ্রিলের তালা ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে। পরে বিদ্যুতের প্রধান সুইস বন্ধ করে দিয়ে ভল্ট ভেঙে টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পেকুয়া থানায় হস্তান্তর করার কার্যক্রম প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন