সেনবাগে পুলিশের ওপর হামলা, এএসআইসহ আহত ৩
jugantor
সেনবাগে পুলিশের ওপর হামলা, এএসআইসহ আহত ৩

  সেনবাগ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

১৩ জুলাই ২০২১, ১৬:০৩:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

সেনবাগে পুলিশের ওপর হামলা, এএসআইসহ  আহত ৩

লকডাউনে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করার সময় নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় কর্তব্যরত পুলিশের ওপর হামলায় এএসআইসহ তিনজন আহত হয়েছেন। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার সময় উপজেলার নবীপুর ইউনিয়নের বড়চারিগাঁও গ্রামের সাহাবউদ্দিন চৌকিদারের বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে।

এদিন রাতেই আহত পুলিশের এএসআই মো. নুরুজ্জামান বাদী হয়ে ১৫ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা করেন। এ মামলায় মর্জিনা আক্তার (২৮) নামে এক নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানা যায়, নবীপুর ইউনিয়নে বড়চারিগাঁও গ্রামের স্থানীয় গ্রামপুলিশ সাহাবউদ্দিন চৌকিদারের বাড়িতে আকলিমা আক্তার নামক এক মহিলাকে তার বসতঘরে প্রতিবেশীরা আটক করে রাখে। খবর পেয়ে এএসআই মো. নুরুজ্জামান ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে আকলিমা আক্তারের কাছে জানতে পারে যে, প্রতিবেশীদের সঙ্গে পারিবারিক বিষয়াদী নিয়ে আকলিমা ঝগড়ায় লিপ্ত হলে একপর্যায়ে তাকে মারধর করে বসতঘরে আটক করে রাখা হয়। এ সময় সেখানে উপস্থিত বাদী-বিবাদী উত্তেজিত হয়ে উঠলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেন এএসআই। সেই সময় উচ্ছৃঙ্খল লোকজন তার সঙ্গে তর্কে লিপ্ত হয়ে একপর্যায়ে দলবদ্ধ হয়ে বাড়ির উঠানে থাকা লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়।

এ ঘটনায় এএসআই মো. নুরুজ্জামান, সিপাহি মো. শরীফ খান ও মোজাম্মেল হক আহত হন। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। ঘটনাটিতে নুরুজ্জামান বাদী হয়ে সাতজনের নামে এবং আটজনকে অজ্ঞাত হিসেবে মোট ১৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন।

ঘটনাটির মামলায় ৫ নম্বর আসামি মর্জিনা আক্তারকে গ্রেফতার করে পুলিশ। একটি মোটরসাইকেলও জব্দ করা হয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সেনবাগ থানার ওসি আবদুল বাতেন মৃধা জানান, এ বিষয়ে থানায় মামলা করা হয়েছে। পুলিশ এ মামলায় একজনকে গ্রেফতার করেছে। বাকি অপরাধীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সেনবাগে পুলিশের ওপর হামলা, এএসআইসহ আহত ৩

 সেনবাগ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
১৩ জুলাই ২০২১, ০৪:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সেনবাগে পুলিশের ওপর হামলা, এএসআইসহ  আহত ৩
ফাইল ছবি

লকডাউনে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করার সময় নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় কর্তব্যরত পুলিশের ওপর হামলায় এএসআইসহ তিনজন আহত হয়েছেন। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার সময় উপজেলার নবীপুর ইউনিয়নের বড়চারিগাঁও গ্রামের সাহাবউদ্দিন চৌকিদারের বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে। 

এদিন রাতেই আহত পুলিশের এএসআই মো. নুরুজ্জামান বাদী হয়ে ১৫ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা করেন। এ মামলায় মর্জিনা আক্তার (২৮) নামে এক নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানা যায়, নবীপুর ইউনিয়নে বড়চারিগাঁও গ্রামের স্থানীয় গ্রামপুলিশ সাহাবউদ্দিন চৌকিদারের বাড়িতে আকলিমা আক্তার নামক এক মহিলাকে তার বসতঘরে প্রতিবেশীরা আটক করে রাখে। খবর পেয়ে এএসআই মো. নুরুজ্জামান ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে গিয়ে আকলিমা আক্তারের কাছে জানতে পারে যে, প্রতিবেশীদের সঙ্গে পারিবারিক বিষয়াদী নিয়ে আকলিমা ঝগড়ায় লিপ্ত হলে একপর্যায়ে তাকে মারধর করে বসতঘরে আটক করে রাখা হয়। এ সময় সেখানে উপস্থিত বাদী-বিবাদী উত্তেজিত হয়ে উঠলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেন এএসআই। সেই সময় উচ্ছৃঙ্খল লোকজন তার সঙ্গে তর্কে লিপ্ত হয়ে একপর্যায়ে দলবদ্ধ হয়ে বাড়ির উঠানে থাকা লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়।

এ ঘটনায় এএসআই মো. নুরুজ্জামান, সিপাহি মো. শরীফ খান ও মোজাম্মেল হক আহত হন। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। ঘটনাটিতে নুরুজ্জামান বাদী হয়ে সাতজনের নামে এবং আটজনকে অজ্ঞাত হিসেবে মোট ১৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন।

ঘটনাটির মামলায় ৫ নম্বর আসামি মর্জিনা আক্তারকে গ্রেফতার করে পুলিশ। একটি মোটরসাইকেলও জব্দ করা হয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সেনবাগ থানার ওসি আবদুল বাতেন মৃধা জানান, এ বিষয়ে থানায় মামলা করা হয়েছে। পুলিশ এ মামলায় একজনকে গ্রেফতার করেছে। বাকি অপরাধীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন