শিক্ষককে হত্যার হুমকি পৌর আ’লীগ সভাপতির, অডিও ভাইরাল
jugantor
শিক্ষককে হত্যার হুমকি পৌর আ’লীগ সভাপতির, অডিও ভাইরাল

  কিশোরগঞ্জ ব্যুরো  

১৪ জুলাই ২০২১, ১৮:০১:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

অবৈধভাবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে গ্রাম থেকে বালু উত্তোলন করে পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্টের বিষয়ে ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করে হত্যার হুমকির মুখে পড়লেন কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার এক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক।

মোবাইল ফোনে পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতির এমন হুমকি এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজের কল রেকর্ডিং এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। ওই শিক্ষক এখন জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

এলাকাবাসীও বলছেন, এমন ঘটনায় পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট হচ্ছে। ইউএনও কর্তৃক নিষেধাজ্ঞার পর বালু উত্তোলন বন্ধের দাবি বালু ব্যবসায়ীর। উত্তেজনার বশবর্তী হয়ে শিক্ষককে হুমকির কথা স্বীকার করলেন পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি। হুমকির লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেন ইউএনও।

জানা গেছে, কটিয়াদী উপজেলার আচমিতা ইউনিয়নের পাইকসা গ্রামের বেশ কয়েকটি স্থানে অবৈধভাবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বালু উত্তোলন করে আসছেন বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট হচ্ছে মর্মে পাইকসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাহমুদ কামাল ইউএনও বরাবর আবেদন করলে ইউএনও লোক পাঠিয়ে বালু উত্তোলন করায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

এ ঘটনার পর থেকেই অভিযোগকারী শিক্ষককে বিভিন্নভাবে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালেও ট্রাকে করে উত্তোলিত বালু বিক্রির ঘটনা দেখা যায়। কয়েকজন সচেতন এলাকাবাসী জানালেন, এখন রাতের অন্ধকারে বালু উত্তোলন এবং বিক্রি হয় বেশি।

এর আগেও এ অবৈধ বালু বাণিজ্যের প্রতিবাদ করায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে কয়কটি মিথ্যা মামলা দিয়েছিল ওই বালু বাণিজ্য সিন্ডিকেটের লোকজন।

কটিয়াদী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মস্তোফার সঙ্গে কথা হলে তিনি দাবি করেন, ওই গ্রামের বালু বাণিজ্য সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না। তবে এ ঘটনায় তাকেও জড়িয়ে কথা বলা হলে তিনি উত্তেজনার বশবর্তী হয়ে হুমকি দেন এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। এটি তার ভাষা হতে পারে না। এজন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

কটিয়াদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতিশ্বর পাল জানান, ওই শিক্ষক কর্তৃক লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি লোক পাঠিয়ে পাইকসা গ্রামে বালু উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা জারি করিয়েছেন। এখন যদি কেউ তাকে হুমকি-ধমকি দেয়- সে বিষয়েও লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শিক্ষককে হত্যার হুমকি পৌর আ’লীগ সভাপতির, অডিও ভাইরাল

 কিশোরগঞ্জ ব্যুরো 
১৪ জুলাই ২০২১, ০৬:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

অবৈধভাবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে গ্রাম থেকে বালু উত্তোলন করে পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্টের বিষয়ে ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করে হত্যার হুমকির মুখে পড়লেন কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার এক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক।

মোবাইল ফোনে পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতির এমন হুমকি এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজের কল রেকর্ডিং এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। ওই শিক্ষক এখন জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। 

এলাকাবাসীও বলছেন, এমন ঘটনায় পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট হচ্ছে। ইউএনও কর্তৃক নিষেধাজ্ঞার পর বালু উত্তোলন বন্ধের দাবি বালু ব্যবসায়ীর। উত্তেজনার বশবর্তী হয়ে শিক্ষককে হুমকির কথা স্বীকার করলেন পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি। হুমকির লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেন ইউএনও।

জানা গেছে, কটিয়াদী উপজেলার আচমিতা ইউনিয়নের পাইকসা গ্রামের বেশ কয়েকটি স্থানে অবৈধভাবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বালু উত্তোলন করে আসছেন বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট হচ্ছে মর্মে পাইকসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাহমুদ কামাল ইউএনও বরাবর আবেদন করলে ইউএনও লোক পাঠিয়ে বালু উত্তোলন করায় নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

এ ঘটনার পর থেকেই অভিযোগকারী শিক্ষককে বিভিন্নভাবে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালেও ট্রাকে করে উত্তোলিত বালু বিক্রির ঘটনা দেখা যায়। কয়েকজন সচেতন এলাকাবাসী জানালেন, এখন রাতের অন্ধকারে বালু উত্তোলন এবং বিক্রি হয় বেশি।  

এর আগেও এ অবৈধ বালু বাণিজ্যের প্রতিবাদ করায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে কয়কটি মিথ্যা মামলা দিয়েছিল ওই বালু বাণিজ্য সিন্ডিকেটের লোকজন।

কটিয়াদী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মস্তোফার সঙ্গে কথা হলে তিনি দাবি করেন, ওই গ্রামের বালু বাণিজ্য সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না। তবে এ ঘটনায় তাকেও জড়িয়ে কথা বলা হলে তিনি উত্তেজনার বশবর্তী হয়ে হুমকি দেন এবং অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। এটি তার ভাষা হতে পারে না। এজন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

কটিয়াদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতিশ্বর পাল জানান, ওই শিক্ষক কর্তৃক লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি লোক পাঠিয়ে পাইকসা গ্রামে বালু উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা জারি করিয়েছেন। এখন যদি কেউ তাকে হুমকি-ধমকি দেয়- সে বিষয়েও লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন