ইটের আঘাতে বড়ভাইকে খুন
jugantor
ইটের আঘাতে বড়ভাইকে খুন

  তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১৪ জুলাই ২০২১, ২১:৫৫:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার তিতাসে বাড়ির পাশের চলাচলের রাস্তায় গাছ লাগানোকে কেন্দ্র করে ইটের আঘাতে ছোটভাইয়ের হাতে বড়ভাই খুন হয়েছেন।

বুধবার বিকাল ৩টায় উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের নারায়ণপুর উত্তরপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত মো. মুর্শিদ মিয়া (৫৫) ওই গ্রামের মৃত আবদুর রাজ্জাক মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও পরিবারের সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের নারায়নপুর উত্তরপাড়ার মৃত আবদুর রাজ্জাক মিয়ার ছোট ছেলে মো. মুকবল মিয়া তার বাড়ির পূর্বদিকে সীমানাঘেঁষা চলাচলের রাস্তার পাশে একটি কাঁঠালের চারা রোপণ করেন।

এ নিয়ে প্রতিবেশী মৃত খলিলুর রহমানের ছেলে সোহেল ও নুরু মিয়া প্রকাশ মাইজ্জা বাধা দিলে তাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। পরে নুরু মিয়া মুকবলের বড়ভাই মুর্শিদ মিয়ার কাছে বিষয়টি জানালে মুর্শিদ মিয়া ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছটি অন্যত্র রোপণ করতে বলেন।

এতে মুকবল মিয়া ও তার ছেলে নুরনবী এবং মেয়ে সুমি ক্ষিপ্ত হয়ে হাতে থাকা শাবল ও ইট দিয়ে অতর্কিতে হামলা করে মুর্শিদকে আহত করে। এ সময় ইট ও শাবলের আঘাতে মুর্শিদ মিয়া ঘটনাস্থলেই অজ্ঞান হয়ে পড়েন। এরপর তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তিনি মারা যান।

নিহতের আরেক ছোটভাই মহসিনের দাবি, মুর্শিদ ভাই বিষয়টি মীমাংসার জন্য চেষ্টা করলে মুকবল ভাই তার হাতের শাবল দিয়ে আঘাত করে আর তার ছেলে নুরনবী মাথায় ইট দিয়ে ঢিল মারে এবং তার মেয়ে সুমি গোপনাঙ্গে লাথি মারে। আমার ভাই ঘটনাস্থলেই অজ্ঞান হয়ে পড়েন। আমরা হাসপাতালে নেয়ার পথেই মুর্শিদ ভাই মারা যান।

এ বিষয়ে তিতাস থানার ওসি সুদীন চন্দ্র দাস যুগান্তরকে জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরণ করা হবে। এ বিষয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি ও আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

ইটের আঘাতে বড়ভাইকে খুন

 তিতাস (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১৪ জুলাই ২০২১, ০৯:৫৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার তিতাসে বাড়ির পাশের চলাচলের রাস্তায় গাছ লাগানোকে কেন্দ্র করে ইটের আঘাতে ছোটভাইয়ের হাতে বড়ভাই খুন হয়েছেন।

বুধবার বিকাল ৩টায় উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের নারায়ণপুর উত্তরপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত মো. মুর্শিদ মিয়া (৫৫) ওই গ্রামের মৃত আবদুর রাজ্জাক মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও পরিবারের সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের নারায়নপুর উত্তরপাড়ার মৃত আবদুর রাজ্জাক মিয়ার ছোট ছেলে মো. মুকবল মিয়া তার বাড়ির পূর্বদিকে সীমানাঘেঁষা চলাচলের রাস্তার পাশে একটি কাঁঠালের চারা রোপণ করেন। 

এ নিয়ে প্রতিবেশী মৃত খলিলুর রহমানের ছেলে সোহেল ও নুরু মিয়া প্রকাশ মাইজ্জা বাধা দিলে তাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। পরে নুরু মিয়া মুকবলের বড়ভাই মুর্শিদ মিয়ার কাছে বিষয়টি জানালে মুর্শিদ মিয়া ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছটি অন্যত্র রোপণ করতে বলেন।

এতে মুকবল মিয়া ও তার ছেলে নুরনবী এবং মেয়ে সুমি ক্ষিপ্ত হয়ে হাতে থাকা শাবল ও ইট দিয়ে অতর্কিতে হামলা করে মুর্শিদকে আহত করে। এ সময় ইট ও শাবলের আঘাতে মুর্শিদ মিয়া ঘটনাস্থলেই অজ্ঞান হয়ে পড়েন। এরপর তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথেই তিনি মারা যান।

নিহতের আরেক ছোটভাই মহসিনের দাবি, মুর্শিদ ভাই বিষয়টি মীমাংসার জন্য চেষ্টা করলে মুকবল ভাই তার হাতের শাবল দিয়ে আঘাত করে আর তার ছেলে নুরনবী মাথায় ইট দিয়ে ঢিল মারে এবং তার মেয়ে সুমি গোপনাঙ্গে লাথি মারে। আমার ভাই ঘটনাস্থলেই অজ্ঞান হয়ে পড়েন। আমরা হাসপাতালে নেয়ার পথেই মুর্শিদ ভাই মারা যান।

এ বিষয়ে তিতাস থানার ওসি সুদীন চন্দ্র দাস যুগান্তরকে জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরণ করা হবে। এ বিষয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি ও আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন