সাড়ে ৩ লাখ টাকায় মিলবে ১৭ মণের ‘মন্টা’
jugantor
সাড়ে ৩ লাখ টাকায় মিলবে ১৭ মণের ‘মন্টা’

  অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি  

১৪ জুলাই ২০২১, ২১:৫৮:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার প্রিয় পোষা ষাঁড়ের নাম ‘মন্টা’। ষাঁড়টিকে দীর্ঘ দুই বছর ধরে পরিবারের অন্যান্য সদস্যের মতো লালন-পালন করে বড় করেছেন তিনি। কালো রংয়ের এই ‘মন্টা’র ওজন প্রায় ৬৮০ কেজি, মণ হিসেবে দাঁড়ায় ১৭ মণ। চার দাঁতের এই ‘মন্টা’ লম্বায় ৬৫ ইঞ্চি, তার দেহের চওড়া ৮৫ ইঞ্চি। অভাবের তাড়নায় গরুটি তিনি মাত্র সাড়ে ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চান।

শান্ত প্রকৃতির এই পশুটি বাড়ির প্রতিটি লোকদের ভালোবাসায় পরিবারের সদস্য হিসেবে পরিগণিত। তার নাম ধরে ডাক দিলে ‘মন্টা’ প্রতিটি ডাকের সাড়া দেয়।

অভয়নগরের পার্শ্ববর্তী নড়াইল সদর উপজেলার শেখহাটি ইউনিয়নের আফরা গ্রামের বাসিন্দা গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার বাড়িতে পোষা গরুটিকে একনজর দেখার জন্য ভিড় জমে প্রতিদিন।

বুধবার বিকালে সরেজমিন গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সন্তানের মতো করে লালন-পালন করে চলেছেন তার পোষা প্রিয় মন্টাকে।

গৃহবধূ নার্গিস সুলতানা কাঁদতে কাঁদতে জানান, কোনোক্রমেই তার মন চায় না মন্টাকে বিক্রি করতে। কিন্তু অভাবের তাড়নায় এবারের কোরবানির ঈদে মন্টাকে বিক্রি করতে চান তিনি।

কত টাকায় বিক্রি করবেন জানতে চাইলে তিনি জানান, মন্টাকে সাড়ে ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চান।

গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার স্বামী আজম খানজানান, তাদের শেখহাটি ইউনিয়নের মধ্যে সবচেয়ে বড় গরু এই ‘মন্টা’।

সাড়ে ৩ লাখ টাকায় মিলবে ১৭ মণের ‘মন্টা’

 অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি 
১৪ জুলাই ২০২১, ০৯:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার প্রিয় পোষা ষাঁড়ের নাম ‘মন্টা’। ষাঁড়টিকে দীর্ঘ দুই বছর ধরে পরিবারের অন্যান্য সদস্যের মতো লালন-পালন করে বড় করেছেন তিনি। কালো রংয়ের এই ‘মন্টা’র ওজন প্রায় ৬৮০ কেজি, মণ হিসেবে দাঁড়ায় ১৭ মণ। চার দাঁতের এই ‘মন্টা’ লম্বায় ৬৫ ইঞ্চি, তার দেহের চওড়া ৮৫ ইঞ্চি। অভাবের তাড়নায় গরুটি তিনি মাত্র সাড়ে ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চান।

শান্ত প্রকৃতির এই পশুটি বাড়ির প্রতিটি লোকদের ভালোবাসায় পরিবারের সদস্য হিসেবে পরিগণিত। তার নাম ধরে ডাক দিলে ‘মন্টা’ প্রতিটি ডাকের সাড়া দেয়। 

অভয়নগরের পার্শ্ববর্তী নড়াইল সদর উপজেলার শেখহাটি ইউনিয়নের আফরা গ্রামের বাসিন্দা গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার বাড়িতে পোষা গরুটিকে একনজর দেখার জন্য ভিড় জমে প্রতিদিন। 

বুধবার বিকালে সরেজমিন গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সন্তানের মতো করে লালন-পালন করে চলেছেন তার পোষা প্রিয় মন্টাকে। 

গৃহবধূ নার্গিস সুলতানা কাঁদতে কাঁদতে জানান, কোনোক্রমেই তার মন চায় না মন্টাকে বিক্রি করতে। কিন্তু অভাবের তাড়নায় এবারের কোরবানির ঈদে মন্টাকে বিক্রি করতে চান তিনি। 

কত টাকায় বিক্রি করবেন জানতে চাইলে তিনি জানান, মন্টাকে সাড়ে ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চান। 

গৃহবধূ নার্গিস সুলতানার স্বামী আজম খান জানান, তাদের শেখহাটি ইউনিয়নের মধ্যে সবচেয়ে বড় গরু এই ‘মন্টা’।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন