দৌলতদিয়াঘাটে যাত্রীর ঢল, ঝুঁকি নিয়ে পারাপার
jugantor
দৌলতদিয়াঘাটে যাত্রীর ঢল, ঝুঁকি নিয়ে পারাপার

  রাজবাড়ী প্রতিনিধি  

১৫ জুলাই ২০২১, ১৫:১৬:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

দৌলতদিয়াঘাটে যাত্রীর ঢল, ঝুঁকি নিয়ে পারাপার

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে রাজাবাড়ীর দৌলতদিয়াঘাটে ফেরিতে বেড়েছে যাত্রীর চাপ। নদীতে তীব্র স্রোত ও পশুবাহী ট্রাকের চাপ থাকায় দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে ও সড়কে কিছুটা জটলা সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে।

সরেজমিন বৃহস্পতিবার ১২টার দিকে ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বার নামে পরিচিত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের ৫ নম্বর ফেরিঘাটে যাত্রীর ভিড়। এ ছাড়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে মহাসড়কের প্রায় ৬ কিমি এলাকা পর্যন্ত যানবাহনের সারি পারাপারের অপেক্ষায় আটকে আছে।

দীর্ঘ সময় নদী পারের অপেক্ষায় থেকে যানবাহন চালক ও যাত্রীরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। বিশেষ করে পশুবাহী ট্রাকগুলোতে থাকা বেপারি ও খামারিরা চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন। পশুগুলোও অসুস্থ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

মাগুরা থেকে ঢাকাগামী যাত্রী সফিকুল ইসলাম বলেন, ভার্সিটিতে রেজিস্ট্রেশনের জন্য বিকাল ৩টার মধ্যে ঢাকায় পৌঁছাতে হবে, ভেঙে ভেঙে মাগুরা থেকে আসতেই দৌলতদিয়ায় ১২টা বেজে গেছে। সময়মতো ঢাকা পৌঁছাতে পারব কিনা সেটিই চিন্তার বিষয়।

কুষ্টিয়া থেকে আসা ট্রাকের খামারি জব্বার মোল্লা বলেন, সকাল ৯টার সময় ৫ নম্বর ফেরিঘাট এলাকায় পশুবাহী ট্রাক নিয়ে আটকে আছি। সকাল ১০টা বাজলেও এখনও ফেরির নাগাল পাইনি বলে তিনি জানান।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়াঘাট শাখার ব্যবস্থাপক শিহাব উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন, নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তীব্র স্রোত রয়েছে।

এ ছাড়া যানবাহনসহ পশুবাহী ট্রাকের অনেকটা চাপ থাকায় দৌলতদিয়া প্রান্তে ফেরি পারের অপেক্ষায় আটকে আছে। বর্তমানে এ নৌরুটে ১৫টি ফেরি চলাচল করছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

দৌলতদিয়াঘাটে যাত্রীর ঢল, ঝুঁকি নিয়ে পারাপার

 রাজবাড়ী প্রতিনিধি 
১৫ জুলাই ২০২১, ০৩:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
দৌলতদিয়াঘাটে যাত্রীর ঢল, ঝুঁকি নিয়ে পারাপার
ছবি: যুগান্তর

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে রাজাবাড়ীর দৌলতদিয়াঘাটে ফেরিতে বেড়েছে যাত্রীর চাপ। নদীতে তীব্র স্রোত ও পশুবাহী ট্রাকের চাপ থাকায় দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে ও সড়কে কিছুটা জটলা সৃষ্টি হয়েছে বলে জানা গেছে।

সরেজমিন বৃহস্পতিবার ১২টার দিকে ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বার নামে পরিচিত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের ৫ নম্বর ফেরিঘাটে যাত্রীর ভিড়। এ ছাড়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে মহাসড়কের প্রায় ৬ কিমি এলাকা পর্যন্ত যানবাহনের সারি পারাপারের অপেক্ষায় আটকে আছে।  

দীর্ঘ সময় নদী পারের অপেক্ষায় থেকে যানবাহন চালক ও যাত্রীরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। বিশেষ করে পশুবাহী ট্রাকগুলোতে থাকা বেপারি ও খামারিরা চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন। পশুগুলোও অসুস্থ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

মাগুরা থেকে ঢাকাগামী যাত্রী সফিকুল ইসলাম বলেন, ভার্সিটিতে রেজিস্ট্রেশনের জন্য বিকাল ৩টার মধ্যে ঢাকায় পৌঁছাতে হবে, ভেঙে ভেঙে মাগুরা থেকে আসতেই  দৌলতদিয়ায় ১২টা বেজে গেছে। সময়মতো ঢাকা পৌঁছাতে পারব কিনা সেটিই চিন্তার বিষয়।

কুষ্টিয়া থেকে আসা ট্রাকের খামারি জব্বার মোল্লা বলেন, সকাল ৯টার সময় ৫ নম্বর  ফেরিঘাট এলাকায় পশুবাহী ট্রাক নিয়ে আটকে আছি। সকাল ১০টা বাজলেও এখনও ফেরির নাগাল পাইনি বলে তিনি জানান।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়াঘাট শাখার ব্যবস্থাপক শিহাব উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন,  নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তীব্র স্রোত রয়েছে।

এ ছাড়া যানবাহনসহ পশুবাহী ট্রাকের অনেকটা চাপ থাকায় দৌলতদিয়া প্রান্তে ফেরি পারের  অপেক্ষায় আটকে আছে। বর্তমানে এ নৌরুটে ১৫টি ফেরি চলাচল করছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন