ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যায় আ'লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা
jugantor
ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যায় আ'লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

  ফেনী প্রতিনিধি  

১৬ জুলাই ২০২১, ২২:৫৯:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

আওয়ামী লীগ নেতা ও কাউন্সিলর আবুল কালাম

চাঁদা না পেয়ে ফেনীর সুলতানপুরে শাহজালাল (২৭) নামে এক গরু ব্যবসায়ী যুবককে গুলি করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও কাউন্সিলর আবুল কালাম ও তার ক্যাডার বাহিনীর বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই আনেয়ার হোসেন ফেনী পৌর ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালামকে প্রধান আসামি করে তিনজনের বিরুদ্ধে শুক্রবার রাতে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ফেনী মডেল থানার ওসি নিজাম উদ্দিন মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে সুলতানপুর এলাকার ক্যাডেট কলেজ সংলগ্ন আহসান মিয়ার বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শাহজালাল কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার সাগুলি গ্রামের আবদুল জব্বারের ছেলে।

ফেনী পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজি যুগান্তরকে বলেন, কারও বক্তিগত অপরাধের দায়ভার পৌর পরিষদ নেবে না। আমরা আশা করি, পুলিশ প্রকৃত অপরাধীকে আটক করে আইনের আওতায় নিয়ে আসবে।

জানা গেছে, খুনের ঘটনার পর ব্যবসায়ীর লাশ স্থানীয় একটি পুকুরে ডুবিয়ে রাখা হয়। পুলিশ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সাগর নামে একজনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রতি বছরের মতো গরু ব্যবসায়ী শাহজালাল ১৫টি গরু কিশোরগঞ্জ থেকে গাড়িবোঝাই করে এনে বিক্রির জন্য বাড়ির সামনে রাখেন। একপর্যায়ে তার কাছে চাঁদা দাবি করেন কাউন্সিলর আবুল কালামসহ তার তিন সহযোগী। টাকা না পেয়ে কালামের নেতৃত্বে গরুগুলো ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হয়। এ সময় শাহজালালের চিৎকারে তার চাচাতো ভাই আল আমিন ঘর থেকে বের হয়।

শাহজালালকে ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ করলে আল আমিনকেও মারধর করেন তারা। পরে আল আমিনের স্ত্রী সুমি কালামের হাতে-পায়ে ধরে আল আমিনকে ছাড়িয়ে নেন। এরপর কাউন্সিলর ও তার ২ সহযোগী শাহজালালকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায়। তাকে গুলি করে হত্যার পর পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরে লাশ ফেলে পালিয়ে যায় তারা। ঘটনার খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ফেনী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।

ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক নিজাম উদ্দিন জানান, ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কালামের সহযোগী সাগর নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। কাউন্সিলর কালামকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যায় আ'লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

 ফেনী প্রতিনিধি 
১৬ জুলাই ২০২১, ১০:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আওয়ামী লীগ নেতা ও কাউন্সিলর আবুল কালাম
আওয়ামী লীগ নেতা ও কাউন্সিলর আবুল কালাম

চাঁদা না পেয়ে ফেনীর সুলতানপুরে শাহজালাল (২৭) নামে এক গরু ব্যবসায়ী যুবককে গুলি করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও কাউন্সিলর আবুল কালাম ও তার ক্যাডার বাহিনীর বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই আনেয়ার হোসেন ফেনী পৌর ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালামকে প্রধান আসামি করে তিনজনের বিরুদ্ধে শুক্রবার রাতে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ফেনী মডেল থানার ওসি নিজাম উদ্দিন মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে সুলতানপুর এলাকার ক্যাডেট কলেজ সংলগ্ন আহসান মিয়ার বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শাহজালাল কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার সাগুলি গ্রামের আবদুল জব্বারের ছেলে।

ফেনী পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজি যুগান্তরকে বলেন, কারও বক্তিগত অপরাধের দায়ভার পৌর পরিষদ নেবে না। আমরা আশা করি, পুলিশ প্রকৃত অপরাধীকে আটক করে আইনের আওতায় নিয়ে আসবে।

জানা গেছে, খুনের ঘটনার পর ব্যবসায়ীর লাশ স্থানীয় একটি পুকুরে ডুবিয়ে রাখা হয়। পুলিশ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সাগর নামে একজনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রতি বছরের মতো গরু ব্যবসায়ী শাহজালাল ১৫টি গরু কিশোরগঞ্জ থেকে গাড়িবোঝাই করে এনে বিক্রির জন্য বাড়ির সামনে রাখেন। একপর্যায়ে তার কাছে চাঁদা দাবি করেন কাউন্সিলর আবুল কালামসহ তার তিন সহযোগী। টাকা না পেয়ে কালামের নেতৃত্বে গরুগুলো ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হয়। এ সময় শাহজালালের চিৎকারে তার চাচাতো ভাই আল আমিন ঘর থেকে বের হয়। 

শাহজালালকে ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ করলে আল আমিনকেও মারধর করেন তারা। পরে আল আমিনের স্ত্রী সুমি কালামের হাতে-পায়ে ধরে আল আমিনকে ছাড়িয়ে নেন। এরপর কাউন্সিলর ও তার ২ সহযোগী শাহজালালকে মোটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায়। তাকে গুলি করে হত্যার পর পার্শ্ববর্তী একটি পুকুরে লাশ ফেলে পালিয়ে যায় তারা। ঘটনার খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ফেনী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।

ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক নিজাম উদ্দিন জানান, ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কালামের সহযোগী সাগর নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। কাউন্সিলর কালামকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন