ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তরুণীকে একাধিকবার ধর্ষণ, অতঃপর...
jugantor
ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তরুণীকে একাধিকবার ধর্ষণ, অতঃপর...

  মদন (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি  

১৭ জুলাই ২০২১, ১৫:০০:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণ

নেত্রকোনার মদনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে একাধিকবার এক তরুণীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় জাহাঙ্গীর (২২) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে ভিকটিমের মা মদন থানায় জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। জাহাঙ্গীর উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নের কেশজানি গ্রামের মৃত সিদ্দিক মিয়ার ছেলে ।

এদিকে ভুক্তভোগী তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শনিবার নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ভুক্তভোগীর মা জানান, আমার মেয়েকে ওই ছেলেটি স্কুলে পড়া অবস্থায় বিভিন্ন সময় খারাপ আচরণ করত। পরে আমি মেয়েকে ২৪ জুন ২০১৯ সালে বিয়ে দিয়ে দেই। কিন্তু ছেলেটি আমার মেয়েকে বিয়ে দেওয়ার পরেও যোগাযোগ রেখেছে। পরেও জানতে পারি ওই ছেলেটি আমার মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে তাকে বিভিন্ন সময় একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। ধর্ষণের ভিডিও মোবাইলে ছেড়ে দেবে বলে অবশেষে আমার মেয়ে তার স্বামীকে তালাক দিতে বাধ্য হয়।

২০২০ সালের ৩ জুলাই আমার মেয়েকে বিয়ে করবে বলে আবারো ধর্ষণ করে। এ নিয়ে গ্রামের বাড়িতে বিভিন্ন সময় গ্রাম বৈঠক বসেছে। তারা খুবই প্রভাবশালী। আমরা গরিব মানুষ। মুখ খোলে বলতেও পারি না। এতদিন চুপ ছিলাম। গ্রামের লোকজনের কাছে সমাধান চেয়েছিলাম। কোনো সুরাহা হয়নি। তাই কী আর করব? বাধ্য হয়ে ধর্ষণের মামলাটি করেছি। আজ তাকে পুলিশ নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাচ্ছে। আমার মেয়ের যে সংসার ভেঙেছে, মেয়ের প্রতি যে অন্যায় করা হয়েছে আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত জাহাঙ্গীরের বড় বোন শিল্পী আক্তার জানান, সত্যতা যাচাই করে মেডিকেল রিপোর্ট আসলে যা শাস্তি হয় তাই আমরা মেনে নেব।

মদন থানার ওসি তদন্ত উজ্জ্বল কান্তি সরকার যুগান্তরকে বলেন, এ ব্যাপারে ভিকটিমের মা শুক্রবার রাতে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। ভুক্তভোগী মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য আজ নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ধর্ষককে দ্রুত গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে তরুণীকে একাধিকবার ধর্ষণ, অতঃপর...

 মদন (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি 
১৭ জুলাই ২০২১, ০৩:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ধর্ষণ
ফাইল ছবি

নেত্রকোনার মদনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে একাধিকবার এক তরুণীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় জাহাঙ্গীর (২২) নামে এক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা  দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে ভিকটিমের মা মদন থানায় জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। জাহাঙ্গীর উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নের কেশজানি গ্রামের মৃত সিদ্দিক মিয়ার ছেলে ।

এদিকে ভুক্তভোগী তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শনিবার নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ভুক্তভোগীর মা জানান, আমার মেয়েকে ওই ছেলেটি স্কুলে পড়া অবস্থায় বিভিন্ন সময় খারাপ আচরণ  করত। পরে আমি মেয়েকে ২৪ জুন ২০১৯ সালে বিয়ে দিয়ে দেই। কিন্তু ছেলেটি আমার মেয়েকে বিয়ে দেওয়ার পরেও যোগাযোগ রেখেছে। পরেও জানতে পারি ওই ছেলেটি আমার মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে তাকে বিভিন্ন সময় একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। ধর্ষণের ভিডিও মোবাইলে ছেড়ে দেবে বলে অবশেষে আমার মেয়ে তার স্বামীকে তালাক দিতে বাধ্য হয়।  

২০২০ সালের ৩ জুলাই আমার মেয়েকে বিয়ে করবে বলে আবারো ধর্ষণ করে। এ নিয়ে গ্রামের বাড়িতে বিভিন্ন সময় গ্রাম বৈঠক বসেছে। তারা খুবই প্রভাবশালী। আমরা গরিব মানুষ। মুখ খোলে বলতেও পারি না। এতদিন চুপ ছিলাম। গ্রামের লোকজনের কাছে সমাধান চেয়েছিলাম।  কোনো সুরাহা হয়নি।  তাই কী আর করব? বাধ্য হয়ে ধর্ষণের মামলাটি করেছি।  আজ তাকে পুলিশ নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাচ্ছে।  আমার মেয়ের যে সংসার ভেঙেছে, মেয়ের প্রতি যে অন্যায় করা হয়েছে আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত  জাহাঙ্গীরের বড় বোন শিল্পী আক্তার জানান, সত্যতা যাচাই করে মেডিকেল রিপোর্ট আসলে  যা শাস্তি হয় তাই আমরা  মেনে নেব।

মদন থানার ওসি তদন্ত উজ্জ্বল কান্তি সরকার যুগান্তরকে বলেন, এ ব্যাপারে ভিকটিমের মা  শুক্রবার রাতে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। ভুক্তভোগী মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য আজ নেত্রকোনা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।  ধর্ষককে দ্রুত গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন