৫০ বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি সড়কটিতে
jugantor
৫০ বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি সড়কটিতে

  সৌরভ মাহমুদ হারুন, ব্রাহ্মণপাড়া (কুমিল্লা)  

১৭ জুলাই ২০২১, ১৯:৩৫:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার কোরপাই-কাকিয়ারচর সড়কের ২ কিলোমিটার অংশে স্বাধীনতার অর্ধশত বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। এতে প্রতিদিন চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী, রোগীসহ এখানকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, মাটির এ সড়কটির সংস্কার বা উন্নয়নে বছরের পর বছর স্থানীয় গ্রামবাসী আশারবাণী শুনে আসছেন। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নে কোরপাই-কাকিয়ারচর সড়কটির অবস্থান। এই কাকিয়ারচর গ্রামের পাশেই লোয়ারচরসহ পার্শ্ববর্তী দেবিদ্বার ইউনিয়নের প্রেমু ও ব্রাহ্মণখাড়া গ্রাম। এই ৫টি গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র সড়ক এটি। প্রায় ২ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটিতে স্বাধীনতার পর গত অর্ধশত বছরেও উন্নয়নের কোনো ছোঁয়া লাগেনি। গ্রামগুলোতে কমপক্ষে ৬ হাজারেরও বেশি লোকের বসবাস।

গ্রামে রয়েছে সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, কৃষকসহ অনেক শিক্ষার্থী। সড়কটি বর্ষায় ব্যবহারের পুরোপুরি অনুপযোগী হয়ে পড়ায় প্রতিদিন অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ সময় রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা, ইজিবাইকসহ ছোট ছোট যানবাহন চলাচল একেবারেই বন্ধ হয়ে যায়। এতে হেঁটেই যাতায়াত করতে হয় গ্রামবাসীকে।

কাকিয়ারচর গ্রামের আব্দুল কাদের, আতিক, মনির প্রমুখ জানান, উল্লিখিত গ্রামগুলোর অধিকাংশ বাসিন্দাই কৃষি কাজ করেই জীবিকা নির্ভর করেন। কাছাকাছি দূরত্বে থাকা দেশের অন্যতম বৃহৎ পাইকারি তরকারির বাজার নিমসারেই কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসল বিক্রি করছেন প্রতিদিন।

কৃষক জানে আলম, করিম মিয়া জানান, সড়কটিতে যান চলাচলের অসুবিধার কারণে আমাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারে নিয়ে যেতে শ্রমিকদের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। এজন্য অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে। ফলে ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে কৃষকদের। বর্ষার পুরো সময়ই সড়কটি ব্যবহারের অনুপযোগী থাকায় রোগী,বয়স্ক লোকজন কিংবা অসুস্থ গর্ভবতী মহিলাদেরও অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কখনো জরুরি প্রয়োজনে রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে রোগীদের বহনে অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হয়।

কথা হয় মোজাম্মেল নামে এক মাইক্রোবাসের চালকের সঙ্গে। তিনি জানান, ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ায় মহাসড়কের পাশে নিরাপদ স্থানে গাড়ি রেখে হেঁটে বাড়িতে আসা-যাওয়া করেন।

গ্রামের হাসান নামে এক কিশোরের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ সড়ক পথেই রয়েছে কাকিয়ারচর কারিগরি উচ্চ বিদ্যালয়, কাকিয়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কাকিয়াচর ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা। রয়েছে বর্ণমালা আইডিয়াল স্কুল, কাকিয়ারচর ইসলামিয়া একাডেমি ও কেএস ইন্টারন্যাশনাল নামের ৩টি কেজি স্কুল। এছাড়াও কোরপাই এমএনএইচ ও জেনিন নামের দুটি কোল্ডস্টোরেজ, কাকিয়ারচর কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে এখানে। কিন্তু দুই কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটির সংস্কার না হওয়ায় কার্যত সবকিছতেই স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

কথা হয় কাকিয়ারচর কারিগরি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আইয়ুব মুন্সীর সঙ্গে। তিনি বলেন, বর্ষাকালে সড়কটিতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায় অতিরিক্ত কাদার কারণে। দীর্ঘ দিন ধরে শুনে আসছি, সড়কটির সংস্কার হবে, কিন্তু ওই শোনা পর্যন্তই, সংস্কার আর হয় না। ফলে বছরের পর বছর ধরে এই সড়ক পথ ব্যবহার করা হাজার হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য সাইফুদ্দিন সাইফুল ও মোবারক হোসেন জানান, প্রয়াত এমপি আব্দুল মতিন খসরু বহুবার এ সড়কটি সংস্কারের ওয়াদা দিলেও সেটা বাস্তবায়িত হয়নি। স্থানীয় এমপিসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে উল্লেখিত গ্রামগুলোর মানুষদের দাবি যত দ্রুত সম্ভব কোরপাই-কাকিয়ারচর সড়কটি সংস্কার করে জনদুর্ভোগ লাঘব করার।

৫০ বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি সড়কটিতে

 সৌরভ মাহমুদ হারুন, ব্রাহ্মণপাড়া (কুমিল্লা) 
১৭ জুলাই ২০২১, ০৭:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার কোরপাই-কাকিয়ারচর সড়কের ২ কিলোমিটার অংশে স্বাধীনতার অর্ধশত বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। এতে প্রতিদিন চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী, রোগীসহ এখানকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

উল্লেখ্য, মাটির এ সড়কটির সংস্কার বা উন্নয়নে বছরের পর বছর স্থানীয় গ্রামবাসী আশারবাণী শুনে আসছেন। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নে কোরপাই-কাকিয়ারচর সড়কটির অবস্থান। এই কাকিয়ারচর গ্রামের পাশেই লোয়ারচরসহ পার্শ্ববর্তী দেবিদ্বার ইউনিয়নের প্রেমু ও ব্রাহ্মণখাড়া গ্রাম। এই ৫টি গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র সড়ক এটি। প্রায় ২ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটিতে স্বাধীনতার পর গত অর্ধশত বছরেও উন্নয়নের কোনো ছোঁয়া লাগেনি। গ্রামগুলোতে কমপক্ষে ৬ হাজারেরও বেশি লোকের বসবাস। 

গ্রামে রয়েছে সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, কৃষকসহ অনেক শিক্ষার্থী। সড়কটি বর্ষায় ব্যবহারের পুরোপুরি অনুপযোগী হয়ে পড়ায় প্রতিদিন অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ সময় রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা, ইজিবাইকসহ ছোট ছোট যানবাহন চলাচল একেবারেই বন্ধ হয়ে যায়। এতে হেঁটেই যাতায়াত করতে হয় গ্রামবাসীকে।

কাকিয়ারচর গ্রামের আব্দুল কাদের, আতিক, মনির প্রমুখ জানান, উল্লিখিত গ্রামগুলোর অধিকাংশ বাসিন্দাই কৃষি কাজ করেই জীবিকা নির্ভর করেন। কাছাকাছি দূরত্বে থাকা দেশের অন্যতম বৃহৎ পাইকারি তরকারির বাজার নিমসারেই কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসল বিক্রি করছেন প্রতিদিন। 

কৃষক জানে আলম, করিম মিয়া জানান, সড়কটিতে যান চলাচলের অসুবিধার কারণে আমাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারে নিয়ে যেতে শ্রমিকদের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। এজন্য অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে। ফলে ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে কৃষকদের। বর্ষার পুরো সময়ই সড়কটি ব্যবহারের অনুপযোগী থাকায় রোগী,বয়স্ক লোকজন কিংবা অসুস্থ গর্ভবতী মহিলাদেরও অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কখনো জরুরি প্রয়োজনে রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে রোগীদের বহনে অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হয়। 

কথা হয় মোজাম্মেল নামে এক মাইক্রোবাসের চালকের সঙ্গে। তিনি জানান, ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ায় মহাসড়কের পাশে নিরাপদ স্থানে গাড়ি রেখে হেঁটে বাড়িতে আসা-যাওয়া করেন। 

গ্রামের হাসান নামে এক কিশোরের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ সড়ক পথেই রয়েছে কাকিয়ারচর কারিগরি উচ্চ বিদ্যালয়, কাকিয়ারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কাকিয়াচর ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা। রয়েছে বর্ণমালা আইডিয়াল স্কুল, কাকিয়ারচর ইসলামিয়া একাডেমি ও কেএস ইন্টারন্যাশনাল নামের ৩টি কেজি স্কুল। এছাড়াও কোরপাই এমএনএইচ ও জেনিন নামের দুটি কোল্ডস্টোরেজ, কাকিয়ারচর কমিউনিটি ক্লিনিক রয়েছে এখানে। কিন্তু দুই কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটির সংস্কার না হওয়ায় কার্যত সবকিছতেই স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

কথা হয় কাকিয়ারচর কারিগরি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আইয়ুব মুন্সীর সঙ্গে। তিনি বলেন, বর্ষাকালে সড়কটিতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায় অতিরিক্ত কাদার কারণে। দীর্ঘ দিন ধরে শুনে আসছি, সড়কটির সংস্কার হবে, কিন্তু ওই শোনা পর্যন্তই, সংস্কার আর হয় না। ফলে বছরের পর বছর ধরে এই সড়ক পথ ব্যবহার করা হাজার হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য সাইফুদ্দিন সাইফুল ও মোবারক হোসেন জানান, প্রয়াত এমপি আব্দুল মতিন খসরু বহুবার এ সড়কটি সংস্কারের ওয়াদা দিলেও সেটা বাস্তবায়িত হয়নি। স্থানীয় এমপিসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে উল্লেখিত গ্রামগুলোর মানুষদের দাবি যত দ্রুত সম্ভব কোরপাই-কাকিয়ারচর সড়কটি সংস্কার করে জনদুর্ভোগ লাঘব করার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন