স্কুলছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ বাসা মালিকের
jugantor
স্কুলছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ বাসা মালিকের

  সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি  

১৮ জুলাই ২০২১, ০০:১১:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণ

মানিকগঞ্জের সিংগাইরে এক স্কুলছাত্রী বাড়ির মালিকের ধর্ষণের শিকার হয়ে ৪ মাসের অন্তঃসত্বা হয়েছেন। পরে ওই শিক্ষার্থীর পিতা বাদী হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় সিংগাইর থানায় মামলা করেছেন।

উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের বাইমাইল গ্রামে জেনাব আলীর (৫০) নিজ বাড়িতে ঘটনাটি ঘটেছে।

জানাগেছে, উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের বাইমাইল গ্রামের এক পিতা তার স্কুলপড়ুয়া কন্যাকে (১৬) নিয়ে একই গ্রামের জোনাব আলীর বাড়িতে ঘর ভাড়া নিয়ে বসবাস করতেন। ভিকটিমের মা প্রবাসী হওয়ার বাড়িতে প্রায় একা থাকতো। আর এ সুযোগে বাড়ির মালিক বিভিন্ন সময় স্কুলছাত্রীকে উত্যক্ত করত। গত ৩০ মার্চ দিবাগত রাতে ভাড়া বাসায় স্কুলছাত্রীকে একা পেয়ে বাড়ির মালিক জোনাব আলী বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ও ফুসলিয়ে চৌচালা টিনের ঘরের ভেতরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এরপর থেকে বিভিন্ন সময়ে বিয়ের আশ্বাস দিয়া একাধিকবার ধর্ষণ করতে থাকে। এক পর্যায় স্কুলছাত্রী ৪ মাসের অন্তঃসত্বা হয়ে পড়ে। এ ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে ধর্ষক গা ঢাকা দেয়। ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় সিংগাইর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আসামি গ্রেফতার হয়নি।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. মনোহর আলী বলেন, মামলার হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চলছে।

স্কুলছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ বাসা মালিকের

 সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি 
১৮ জুলাই ২০২১, ১২:১১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ধর্ষণ
প্রতীকী ছবি

মানিকগঞ্জের সিংগাইরে এক স্কুলছাত্রী বাড়ির মালিকের ধর্ষণের শিকার হয়ে ৪ মাসের অন্তঃসত্বা হয়েছেন। পরে ওই শিক্ষার্থীর পিতা বাদী হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় সিংগাইর থানায় মামলা করেছেন।

উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের বাইমাইল গ্রামে জেনাব আলীর (৫০) নিজ বাড়িতে ঘটনাটি ঘটেছে।

জানাগেছে, উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের বাইমাইল গ্রামের এক পিতা তার স্কুলপড়ুয়া কন্যাকে (১৬) নিয়ে একই গ্রামের জোনাব আলীর বাড়িতে ঘর ভাড়া নিয়ে বসবাস করতেন। ভিকটিমের মা প্রবাসী হওয়ার বাড়িতে প্রায় একা থাকতো। আর এ সুযোগে বাড়ির মালিক বিভিন্ন সময় স্কুলছাত্রীকে উত্যক্ত করত। গত ৩০ মার্চ দিবাগত রাতে ভাড়া বাসায় স্কুলছাত্রীকে একা পেয়ে বাড়ির মালিক জোনাব আলী বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ও ফুসলিয়ে চৌচালা টিনের ঘরের ভেতরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এরপর থেকে বিভিন্ন সময়ে বিয়ের আশ্বাস দিয়া একাধিকবার ধর্ষণ করতে থাকে। এক পর্যায় স্কুলছাত্রী ৪ মাসের অন্তঃসত্বা হয়ে পড়ে। এ ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে ধর্ষক গা ঢাকা দেয়। ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় সিংগাইর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আসামি গ্রেফতার হয়নি।

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. মনোহর আলী বলেন, মামলার হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন