স্বামীর পরকীয়ায় বাধা, গৃহবধূকে ‘হত্যা’
jugantor
স্বামীর পরকীয়ায় বাধা, গৃহবধূকে ‘হত্যা’

  কালিহাতী (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

২৩ জুলাই ২০২১, ২০:১৮:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে গৃহবধূ আমিনাকে (৩০) হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী সুলতানের (৩৫) বিরুদ্ধে। শুক্রবার সকালে উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের পুটিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সুলতান পুটিয়া গ্রামের নওশের আলীর ছেলে।

অভিযোগ রয়েছে, পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় আমিনাকে হত্যা করে বাড়ির পাশে গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা বলে প্রচার চালায় শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ঘটনার পর থেকে তারা পলাতক রয়েছে। শুক্রবার দুপুরে লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, প্রায় ১৪ বছর আগে কালিহাতী উপজেলার পুটিয়া গ্রামের নওশের আলীর ছেলে সুলতানের সঙ্গে ঘাটাইল উপজেলার বগাজান গ্রামের আমজাদ আলীর মেয়ে আমিনার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের ঘরে এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। সন্তান নিয়ে সুখেই চলছিল তাদের সংসার। সম্প্রতি সুলতান পরকীয়া প্রেমে আসক্ত হওয়ায় প্রতিনিয়ত তাদের মধ্যে কলহের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে মাঝে মধ্যেই সুলতান তার স্ত্রী আমিনাকে মারপিট করত।

নিহত আমিনার ভাই সাদিকুল ও মা সুফিয়া বেগম জানান, তাদের ঘরে দুটি সন্তানও রয়েছে। এক নারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে আমিনার স্বামী সুলতান। আমিনা এ পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো। এরই জের ধরে শুক্রবার সকালে আমিনাকে তার স্বামী সুলতান, শ্বশুর, শাশুড়ি ও ননদ মিলে বেধড়ক মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর বাড়ির একটি গাছের ডালের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে এটিকে আত্মহত্যা বলে প্রচার করে।

কালিহাতী থানার ওসি মোল্লা আজিজুর রহমানর জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে গৃহবধূ আমিনার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু হয়েছে।

স্বামীর পরকীয়ায় বাধা, গৃহবধূকে ‘হত্যা’

 কালিহাতী (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
২৩ জুলাই ২০২১, ০৮:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে গৃহবধূ আমিনাকে (৩০) হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী সুলতানের (৩৫) বিরুদ্ধে। শুক্রবার সকালে উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের পুটিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সুলতান পুটিয়া গ্রামের নওশের আলীর ছেলে।

অভিযোগ রয়েছে, পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় আমিনাকে হত্যা করে বাড়ির পাশে গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা বলে প্রচার চালায় শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ঘটনার পর থেকে তারা পলাতক রয়েছে। শুক্রবার দুপুরে লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, প্রায় ১৪ বছর আগে কালিহাতী উপজেলার পুটিয়া গ্রামের নওশের আলীর ছেলে সুলতানের সঙ্গে ঘাটাইল উপজেলার বগাজান গ্রামের আমজাদ আলীর মেয়ে আমিনার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের ঘরে এক ছেলে ও এক মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। সন্তান নিয়ে সুখেই চলছিল তাদের সংসার। সম্প্রতি সুলতান পরকীয়া প্রেমে আসক্ত হওয়ায় প্রতিনিয়ত তাদের মধ্যে কলহের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে মাঝে মধ্যেই সুলতান তার স্ত্রী আমিনাকে মারপিট করত।

নিহত আমিনার ভাই সাদিকুল ও মা সুফিয়া বেগম জানান, তাদের ঘরে দুটি সন্তানও রয়েছে। এক নারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে আমিনার স্বামী সুলতান। আমিনা এ পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া হতো। এরই জের ধরে শুক্রবার সকালে আমিনাকে তার স্বামী সুলতান, শ্বশুর, শাশুড়ি ও ননদ মিলে বেধড়ক মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর বাড়ির একটি গাছের ডালের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে এটিকে আত্মহত্যা বলে প্রচার করে।

কালিহাতী থানার ওসি মোল্লা আজিজুর রহমানর জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে গৃহবধূ আমিনার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন