প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণ
jugantor
প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণ

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি   

২৪ জুলাই ২০২১, ২০:৩৪:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনা সদর উপজেলার মেদনী ইউনিয়নেএক প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগে শনিবার একই গ্রামের সাইকুল ইসলামে (২৪) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় ভিকটিম বাদী হয়ে সাইকুল ইসলামসহ তিনজনের বিরুদ্ধে শনিবার নেত্রকোনা মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন।

অভিযোগে জানা গেছে, নেত্রকোনা সদরের এক প্রবাসীর স্ত্রীকে চাঁন মিয়ার ছেলে নয়ন মিয়া (২৩), মিরাজ খাঁর ছেলে সাইকুল ইসলাম (২৪) ও একই গ্রামের শাইবালী ছেলে আবদুল হাই (৩২) কিছুদিন ধরে বাড়িতে একা পেয়ে উত্যক্ত করত এবং আপত্তিকর কথাবার্তা বলত। গত ২৪ মে মধ্যরাতে প্রকৃতির ডাকে ওই নারী ঘর থেকে বের হলে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা ওই তিনজন মুখে গামছা বেঁধে নির্জন স্থানে নিয়ে সাইকুল ইসলাম ও আবদুল হাই পালাক্রমে ধর্ষণ করে।

ঘটনার পরদিন থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন। পরবর্তীতে গত ২৬ জুন মো. নয়ন মিয়া, সাইকুল ইসলাম ও আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে ভিকটিম বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাব্যুনাল নেত্রকোনায় মামলা দায়ের করেন। আদালত বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আগামী ২৬ জুলাই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নেত্রকোনা মডেল থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন।

পুলিশ শনিবার ওই মামলায় নিজ বাড়ি থেকে সাইকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার এবং এ ঘটনায় সাইকুল ইসলাম, আবদুল হাই ও নয়ন মিয়ার বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ করে।

নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি খন্দকার শাখের আহম্মেদ মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, নারীকে ধর্ষণ করায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণ

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি  
২৪ জুলাই ২০২১, ০৮:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনা সদর উপজেলার মেদনী ইউনিয়নেএক প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগে শনিবার একই গ্রামের সাইকুল ইসলামে (২৪) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

এ ঘটনায় ভিকটিম বাদী হয়ে সাইকুল ইসলামসহ তিনজনের বিরুদ্ধে শনিবার নেত্রকোনা মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। 

অভিযোগে জানা গেছে, নেত্রকোনা সদরের এক প্রবাসীর স্ত্রীকে চাঁন মিয়ার ছেলে নয়ন মিয়া (২৩), মিরাজ খাঁর ছেলে সাইকুল ইসলাম (২৪) ও একই গ্রামের শাইবালী ছেলে আবদুল হাই (৩২) কিছুদিন ধরে বাড়িতে একা পেয়ে উত্যক্ত করত এবং আপত্তিকর কথাবার্তা বলত। গত ২৪ মে মধ্যরাতে প্রকৃতির ডাকে ওই নারী ঘর থেকে বের হলে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা ওই তিনজন মুখে গামছা বেঁধে নির্জন স্থানে নিয়ে সাইকুল ইসলাম ও আবদুল হাই পালাক্রমে ধর্ষণ করে। 

ঘটনার পরদিন থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেন। পরবর্তীতে গত ২৬ জুন মো. নয়ন মিয়া, সাইকুল ইসলাম ও আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে ভিকটিম বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাব্যুনাল নেত্রকোনায় মামলা দায়ের করেন। আদালত বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আগামী ২৬ জুলাই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নেত্রকোনা মডেল থানার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন।

পুলিশ শনিবার ওই মামলায় নিজ বাড়ি থেকে সাইকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার এবং এ ঘটনায় সাইকুল ইসলাম, আবদুল হাই ও নয়ন মিয়ার বিরুদ্ধে মামলা গ্রহণ করে।  

নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি খন্দকার শাখের আহম্মেদ মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, নারীকে ধর্ষণ করায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার অন্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন