ধানক্ষেত থেকে মাদ্রাসাছাত্রের গলাকাটা লাশ উদ্ধার
jugantor
ধানক্ষেত থেকে মাদ্রাসাছাত্রের গলাকাটা লাশ উদ্ধার

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া  

২৪ জুলাই ২০২১, ২১:১২:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

সায়মনের গলাকাটা লাশ দেখার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন তার স্বজনরা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সায়মন (৯) নামে এক মাদ্রাসাছাত্রের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার সকালে সদর উপজেলার সুহিলপুর গ্রামের নদ্দাপাড়ার একটি ধানক্ষেত থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত সায়মন সুহিলপুর গ্রামের নদ্দাপাড়ার বাদল মিয়ার ছেলে ও সুহিলপুর আলমপাড়া গ্রামের একটি মাদ্রাসার ছাত্র।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে সায়মন তার বাবার সঙ্গে বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে জমিতে ঘাস কাটতে যায়। কিছুক্ষণ পর সে তার বাবাকে বলে আর ঘাস কাটবে না, বাড়িতে চলে যাবে। এ কথা বলে সে বাড়ির দিকে রওনা দেয়।

সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাদল মিয়া বাড়িতে গিয়ে দেখেন সায়মন বাড়ি ফেরেনি।

পরে পিতা বাদল মিয়াসহ পরিবারের লোকেরা তাকে খুঁজতে বের হয়। একপর্যায়ে বাড়ি থেকে আধা কিলেমিটার দূরে ধানক্ষেতেতার গলাকাটা লাশ দেখতে পান।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলাম বলেন, সায়মন স্থানীয় একটি মাদ্রাসা ছাত্র। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ ঘটনার রহস্য উদঘাটনে কাজ শুরু করেছে। তার বাবা-মাকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

ধানক্ষেত থেকে মাদ্রাসাছাত্রের গলাকাটা লাশ উদ্ধার

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া 
২৪ জুলাই ২০২১, ০৯:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সায়মনের গলাকাটা লাশ দেখার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন তার স্বজনরা
সায়মনের গলাকাটা লাশ দেখার পর তার স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। ছবি: যুগান্তর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সায়মন (৯) নামে এক মাদ্রাসাছাত্রের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার সকালে সদর উপজেলার সুহিলপুর গ্রামের নদ্দাপাড়ার একটি ধানক্ষেত থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।
 
নিহত সায়মন সুহিলপুর গ্রামের নদ্দাপাড়ার বাদল মিয়ার ছেলে ও সুহিলপুর আলমপাড়া গ্রামের একটি মাদ্রাসার ছাত্র।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে সায়মন তার বাবার সঙ্গে বাড়ি থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে জমিতে ঘাস কাটতে যায়। কিছুক্ষণ পর সে তার বাবাকে বলে আর ঘাস কাটবে না, বাড়িতে চলে যাবে। এ কথা বলে সে বাড়ির দিকে রওনা দেয়।

সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাদল মিয়া বাড়িতে গিয়ে দেখেন সায়মন বাড়ি ফেরেনি। 

পরে পিতা বাদল মিয়াসহ পরিবারের লোকেরা তাকে খুঁজতে বের হয়। একপর্যায়ে বাড়ি থেকে আধা কিলেমিটার দূরে ধানক্ষেতে তার গলাকাটা লাশ দেখতে পান। 

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। 

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলাম বলেন, সায়মন স্থানীয় একটি মাদ্রাসা ছাত্র। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ ঘটনার রহস্য উদঘাটনে কাজ শুরু করেছে। তার বাবা-মাকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন