প্রতিবন্ধী মেয়েসহ মা নিখোঁজ, এলাকায় তোলপাড়
jugantor
প্রতিবন্ধী মেয়েসহ মা নিখোঁজ, এলাকায় তোলপাড়

  কুলাউড়া (মৌলভীবাজার)  প্রতিনিধি  

২৫ জুলাই ২০২১, ২১:৩৯:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নে এক প্রতিবন্ধী মেয়েসহ মা রহস্যময় নিখোঁজের ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় চলছে। একটি মহল ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে।

নিখোঁজ মেয়ের ফুফু সিতারুন বেগম কুলাউড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানান ওসি বিনয় ভুষণ রায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কর্মধা ইউনিয়নের টাট্রিউলি গ্রামে মালিকা নামক এক খারাপ নারীর বসবাস। এলাকার মানুষের ভাষ্যমতে, মালিকা নানা অনৈতিক কাজের সঙ্গে জড়িত। তারই প্ররোচণায় পড়ে প্রতিবন্ধী জমির আলীর স্ত্রী ও প্রতিবন্ধী মেয়ে। প্রায় ৩ বছর থেকে স্বামীর বাড়ি ছেড়ে জমির আলীর স্ত্রী তার মেয়েকে নিয়ে ওই মালিকার বাড়িতে থাকত। এর পেছনে মালিকার ইন্ধন ছিল। ঈদের ২-৩ দিন আগে মালিকা ও জমির আলীর স্ত্রী মিলে রক্তমাখা বেশ কিছু কাপড়-চোপড় বাড়ির পাশের একটি টিলায় মাটিচাপা দেয়।

এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় শুরু হয় নানা গুঞ্জন। বিষয়টি জানাজানি শুরু হলে টাট্রিউলি গ্রামের লোকজন শুক্রবার মালিকাকে মসজিদে হাজির হয়ে বিস্তারিত জানানোর জন্য চাপ দেন। কিন্তু মালিকা মসজিদে উপস্থিত না হয়ে জমির আলীর স্ত্রী ও প্রতিবন্ধী মেয়েকে বাড়ি থেকে গোপন স্থানে পাঠিয়ে দেয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মালিকা ও জমির আলীর স্ত্রী মিলে প্রতিবন্ধী মেয়েকে দিয়ে জোরপূর্বক দেহ ব্যবসায় বাধ্য করে। ঘটনা জানাজানি হয়ে যাওয়ার ভয়ে মা ও মেয়েকে গোপন স্থানে পাঠিয়ে দিয়েছে।

কর্মধা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও টাট্রিউলি মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি মছদ্দর আলী বলেন, আমি লোকমুখে বিষয়টি জেনেছি। জানার পর গত শুক্রবারে মসজিদে উপস্থিত হওয়ার জন্য খবর দিয়েছি। কিন্তু তারা মসজিদে উপস্থিত হয়নি।

এদিকে রোববার জমির আলীর বোন সিতারুন বেগম কুলাউড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

কুলাউড়া থানার ওসি বিনয় ভুষণ রায় জানান, সিতারুন বেগম লিখিত অভিযোগে তাকে এবং তার স্বামীর সঙ্গে মালিকা খারাপ আচরণ করেছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন। তবে তিনি বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন।

প্রতিবন্ধী মেয়েসহ মা নিখোঁজ, এলাকায় তোলপাড়

 কুলাউড়া (মৌলভীবাজার)  প্রতিনিধি 
২৫ জুলাই ২০২১, ০৯:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নে এক প্রতিবন্ধী মেয়েসহ মা রহস্যময় নিখোঁজের ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় চলছে। একটি মহল ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে বলে জানা গেছে। 

নিখোঁজ মেয়ের ফুফু সিতারুন বেগম কুলাউড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানান ওসি বিনয় ভুষণ রায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কর্মধা ইউনিয়নের টাট্রিউলি গ্রামে মালিকা নামক এক খারাপ নারীর বসবাস। এলাকার মানুষের ভাষ্যমতে, মালিকা নানা অনৈতিক কাজের সঙ্গে জড়িত। তারই প্ররোচণায় পড়ে প্রতিবন্ধী জমির আলীর স্ত্রী ও প্রতিবন্ধী মেয়ে। প্রায় ৩ বছর থেকে স্বামীর বাড়ি ছেড়ে জমির আলীর স্ত্রী তার মেয়েকে নিয়ে ওই মালিকার বাড়িতে থাকত। এর পেছনে মালিকার ইন্ধন ছিল। ঈদের ২-৩ দিন আগে মালিকা ও জমির আলীর স্ত্রী মিলে রক্তমাখা বেশ কিছু কাপড়-চোপড় বাড়ির পাশের একটি টিলায় মাটিচাপা দেয়।

এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় শুরু হয় নানা গুঞ্জন। বিষয়টি জানাজানি শুরু হলে টাট্রিউলি গ্রামের লোকজন শুক্রবার মালিকাকে মসজিদে হাজির হয়ে বিস্তারিত জানানোর জন্য চাপ দেন। কিন্তু মালিকা মসজিদে উপস্থিত না হয়ে জমির আলীর স্ত্রী ও প্রতিবন্ধী মেয়েকে বাড়ি থেকে গোপন স্থানে পাঠিয়ে দেয়। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মালিকা ও জমির আলীর স্ত্রী মিলে প্রতিবন্ধী মেয়েকে দিয়ে জোরপূর্বক দেহ ব্যবসায় বাধ্য করে। ঘটনা জানাজানি হয়ে যাওয়ার ভয়ে মা ও মেয়েকে গোপন স্থানে পাঠিয়ে দিয়েছে।

কর্মধা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও টাট্রিউলি মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি মছদ্দর আলী বলেন, আমি লোকমুখে বিষয়টি জেনেছি। জানার পর গত শুক্রবারে মসজিদে উপস্থিত হওয়ার জন্য খবর দিয়েছি। কিন্তু তারা মসজিদে উপস্থিত হয়নি। 

এদিকে রোববার জমির আলীর বোন সিতারুন বেগম কুলাউড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

কুলাউড়া থানার ওসি বিনয় ভুষণ রায় জানান, সিতারুন বেগম লিখিত অভিযোগে তাকে এবং তার স্বামীর সঙ্গে মালিকা খারাপ আচরণ করেছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন। তবে তিনি বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন