মুরিদ গেলেন পীরের দর্শনে, আগুনে পুড়ল বাড়িঘর 
jugantor
মুরিদ গেলেন পীরের দর্শনে, আগুনে পুড়ল বাড়িঘর 

  ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২৫ জুলাই ২০২১, ২১:৪২:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে মো. শরীফুল ইসলাম শরীফ নামে এক মুরিদ পীরের দর্শনে যান পীরের দরবারে। এদিকে রহস্যজনক আগুনে পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে তার বাড়ি। ঘর থেকে সহায় সম্বল কোনো কিছুই বের করা সম্ভব হয়নি।

টাকা-পয়সা পরিধেয় বস্ত্র ও খাদ্যসামগ্রী সবই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। কোরবানির পশু বিক্রির টাকাও ছিল ঘরের ভেতর গচ্ছিত। তাও পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার নান্নার ইউনিয়নের উলাইল গ্রামে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয় লোকজন।

ভুক্তভোগী শরীফুল ইসলাম শরীফ বলেন, কীভাবে আগুন ধরেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমি সন্ধ্যা ৬টার দিকে ঘরে তালা লাগিয়ে সপরিবারে আমার পীর কেবলা মো. আবুল কালাম আজাদের দরবারে যাই। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে দেখতে পাই আমার বাড়ির ওপর আগুনের কুণ্ডলী জ্বলছে। দ্রুত দৌড়ে আসি আগুন নেভানোর জন্য। গ্রামবাসীও আগুন নেভাতে সহায়তা করেন। কিন্তু আমার বসবাসের আধাপাকা ঘরটিসহ বাড়ির সবকিছু পুড়ে ভস্ম হয়ে যায়।

ঘরের ভেতরে সংরক্ষিত সারা বছরের খাদ্যশস্য, কোরবানির পশু বিক্রির টাকা ও সোনাদানাসহ পরিধেয় বস্ত্র কিছুই বের করা সম্ভব হয়নি। সবই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমি একেবারে নিঃস্ব হয়ে গেলাম।

মুরিদ গেলেন পীরের দর্শনে, আগুনে পুড়ল বাড়িঘর 

 ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২৫ জুলাই ২০২১, ০৯:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকার ধামরাইয়ে মো. শরীফুল ইসলাম শরীফ নামে এক মুরিদ পীরের দর্শনে যান পীরের দরবারে। এদিকে রহস্যজনক আগুনে পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে তার বাড়ি। ঘর থেকে সহায় সম্বল কোনো কিছুই বের করা সম্ভব হয়নি। 

টাকা-পয়সা পরিধেয় বস্ত্র ও খাদ্যসামগ্রী সবই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। কোরবানির পশু বিক্রির টাকাও ছিল ঘরের ভেতর গচ্ছিত। তাও পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে বলে জানা গেছে। 

শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার নান্নার ইউনিয়নের উলাইল গ্রামে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয় লোকজন।

ভুক্তভোগী শরীফুল ইসলাম শরীফ বলেন, কীভাবে আগুন ধরেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আমি সন্ধ্যা ৬টার দিকে ঘরে তালা লাগিয়ে সপরিবারে আমার পীর কেবলা মো. আবুল কালাম আজাদের দরবারে যাই। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে দেখতে পাই আমার বাড়ির ওপর আগুনের কুণ্ডলী জ্বলছে। দ্রুত দৌড়ে আসি আগুন নেভানোর জন্য। গ্রামবাসীও আগুন নেভাতে সহায়তা করেন। কিন্তু আমার বসবাসের আধাপাকা ঘরটিসহ বাড়ির সবকিছু পুড়ে ভস্ম হয়ে যায়।

ঘরের ভেতরে সংরক্ষিত সারা বছরের খাদ্যশস্য, কোরবানির পশু বিক্রির টাকা ও সোনাদানাসহ পরিধেয় বস্ত্র কিছুই বের করা সম্ভব হয়নি। সবই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমি একেবারে নিঃস্ব হয়ে গেলাম। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন