কলমাকান্দায় নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত
jugantor
কলমাকান্দায় নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত

  কলমাকান্দা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি  

২৬ জুলাই ২০২১, ২০:৫২:১৩  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা মহামারীর কারণে সীমিত আকারে নেত্রকোনার কলমাকান্দায় জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত হয়েছে।

সোমবার দুপুরে নাজিরপুর স্মৃতিসৌধ ও লেংগুরায় সাত শহীদের সমাধিস্থলে শহীদদের প্রতি পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া ও প্রার্থনা হয়েছে।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন নেত্রকোনা-১ আসনের সংসদ সদস্য মানু মজুমদার। উপস্থিত ছিলেন নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক কাজি মো. আবদুর রহমান, জেলা পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুন্সী, ইউএনও মো. সোহেল রানা, এসিলেন্ট অমিত রায়, সহকারী পুলিশ সুপার শারমীন সুলতানা নেলী, নেত্রকোনা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার নুরুল আমীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চন্দন বিশ্বাস, কলমাকান্দা থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ খান, উপজেলা যুগলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, সম্পাদক পলাশ কান্তি বিশ্বাস প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ২৬ জুলাই নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার সীমান্তবর্তী নাজিরপুরে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখযুদ্ধ হয়। এতে সাত মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। শহীদ মুক্তিযোদ্ধারা হলেন- নেত্রকোনার আবদুল আজিজ ও মো. ফজলুল হক, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার মো. ইয়ার মামুদ, ভবতোষ চন্দ্র দাস, মো. নূরুজ্জামান, দ্বিজেন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস ও জামালপুরের মো. জামাল উদ্দিন। নাজিরপুরের অদূরে ভারত সীমান্ত সংলগ্ন লেংগুরা এলাকায় তাদের সমাহিত করা হয়।
নেত্রকোনাসহ বৃহত্তর ময়মনসিংহের মুক্তিযোদ্ধারা প্রতিবছর দিনটিকে ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস হিসেবে পালন করে আসছেন।

কলমাকান্দায় নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত

 কলমাকান্দা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি 
২৬ জুলাই ২০২১, ০৮:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা মহামারীর কারণে সীমিত আকারে নেত্রকোনার কলমাকান্দায় জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস পালিত হয়েছে। 

সোমবার দুপুরে নাজিরপুর স্মৃতিসৌধ ও লেংগুরায় সাত শহীদের সমাধিস্থলে শহীদদের প্রতি পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া ও প্রার্থনা হয়েছে। 

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন নেত্রকোনা-১ আসনের সংসদ সদস্য মানু মজুমদার। উপস্থিত ছিলেন নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক কাজি মো. আবদুর রহমান, জেলা পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুন্সী, ইউএনও মো. সোহেল রানা, এসিলেন্ট অমিত রায়, সহকারী পুলিশ সুপার শারমীন সুলতানা নেলী, নেত্রকোনা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার নুরুল আমীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চন্দন বিশ্বাস, কলমাকান্দা থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ খান, উপজেলা যুগলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, সম্পাদক পলাশ কান্তি বিশ্বাস প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের ২৬ জুলাই নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার সীমান্তবর্তী নাজিরপুরে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মুখযুদ্ধ হয়। এতে সাত মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। শহীদ মুক্তিযোদ্ধারা হলেন- নেত্রকোনার আবদুল আজিজ ও মো. ফজলুল হক, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার মো. ইয়ার মামুদ, ভবতোষ চন্দ্র দাস, মো. নূরুজ্জামান, দ্বিজেন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস ও জামালপুরের মো. জামাল উদ্দিন। নাজিরপুরের অদূরে ভারত সীমান্ত সংলগ্ন লেংগুরা এলাকায় তাদের সমাহিত করা হয়। 
নেত্রকোনাসহ বৃহত্তর ময়মনসিংহের মুক্তিযোদ্ধারা প্রতিবছর দিনটিকে ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধ দিবস হিসেবে পালন করে আসছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন