তাড়াতে গেলে ভাঙল কুকুরের পা, সংঘর্ষে আহত ৫০
jugantor
তাড়াতে গেলে ভাঙল কুকুরের পা, সংঘর্ষে আহত ৫০

  মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৭ জুলাই ২০২১, ১৮:১৭:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শিমুলঘর গ্রামে কুকুরের পা ভাঙা নিয়ে দুইপক্ষের কয়েক ঘণ্টাব্যাপী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহতদের সিলেট, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নাসিরনগর ও মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ সময় বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ও দোকানপাটে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে হবিগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার মাধবপুর-চুনারুঘাট সার্কেল মহসিন আল মুরাদের নেতৃত্বে মাধবপুর থানার ওসি মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক, পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলামসহ বিপুলসংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকালে উপজেলার ছাতিয়াইন ইউনিয়নের শিমুলঘর গ্রামের নাসিরউদ্দিনের পালিত কুকুর একই গ্রামের মনিরউদ্দিনের হাঁসের খামারে ধাওয়া দেয়। এ সময় মনিরের ছেলে ধাওয়া দিলে কুকুরের পা ভেঙে যায়। এ নিয়ে ওই দিন সন্ধ্যায় দুই পক্ষের মধ্যে প্রথম দফা সংঘর্ষ হয়। এর জের ধরে মঙ্গলবার ভোর ৫টায় দিকে দুইপক্ষ আবারো সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষ চলে।

গুরুতর আহত শিরু মিয়া (৫৫), মোতাচ্ছির মিয়া (২৬), সারফিন (২৫), নিজামউদ্দিন (২৮), রোকনউদ্দিন (৩২), বাছির মিয়া (৩৮), রানু বেগম (৪০), নূরউদ্দিন (২৭), নূর আহম্মদ (৩২), সালেক মিয়া খান (৩৫), বাহার মিয়া (৩২), লাফু মিয়া লস্কর (৩০), সুজন চৌধুরী (৩৮), আসকির মিয়া (৬০), সুমন খাঁন (৩৫), সোয়াই মিয়া মোল্লা (৫০), বাছির মিয়া (৩৮), নাসির মিয়া (৩৫), জাহেদ মিয়া (৩৮), শেখ ফকরুল (৪২), মিনহাজ মিয়া (৩৮), সাদ্দাম মিয়া (২৬), সোহেল মিয়া (৩৬), খোকন মিয়া (৩৫), আরিছ মিয়াসহ (৪৮) আহতদের সিলেট, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নাসিরনগর ও মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

মাধবপুর থানার ওসি মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

ছাতিয়াইন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদ উদ্দিন আহম্মেদ জানান, বিষয়টি নিষ্পত্তি করার জন্যর উভয়পক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

তাড়াতে গেলে ভাঙল কুকুরের পা, সংঘর্ষে আহত ৫০

 মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৭ জুলাই ২০২১, ০৬:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শিমুলঘর গ্রামে কুকুরের পা ভাঙা নিয়ে দুইপক্ষের কয়েক ঘণ্টাব্যাপী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহতদের সিলেট, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নাসিরনগর ও মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ সময় বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ও দোকানপাটে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে হবিগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার মাধবপুর-চুনারুঘাট সার্কেল মহসিন আল মুরাদের নেতৃত্বে মাধবপুর থানার ওসি মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক, পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলামসহ বিপুলসংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকালে উপজেলার ছাতিয়াইন ইউনিয়নের শিমুলঘর গ্রামের নাসিরউদ্দিনের পালিত কুকুর একই গ্রামের মনিরউদ্দিনের হাঁসের খামারে ধাওয়া দেয়। এ সময় মনিরের ছেলে ধাওয়া দিলে কুকুরের পা ভেঙে যায়। এ নিয়ে ওই দিন সন্ধ্যায় দুই পক্ষের মধ্যে প্রথম দফা সংঘর্ষ হয়। এর জের ধরে মঙ্গলবার ভোর ৫টায় দিকে দুইপক্ষ আবারো সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় ৩ ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষ চলে।

গুরুতর আহত শিরু মিয়া (৫৫), মোতাচ্ছির মিয়া (২৬), সারফিন (২৫), নিজামউদ্দিন (২৮), রোকনউদ্দিন (৩২), বাছির মিয়া (৩৮), রানু বেগম (৪০), নূরউদ্দিন (২৭), নূর আহম্মদ (৩২), সালেক মিয়া খান (৩৫), বাহার মিয়া (৩২), লাফু মিয়া লস্কর (৩০), সুজন চৌধুরী (৩৮), আসকির মিয়া  (৬০), সুমন খাঁন (৩৫), সোয়াই মিয়া মোল্লা (৫০), বাছির মিয়া (৩৮), নাসির মিয়া (৩৫), জাহেদ মিয়া (৩৮), শেখ ফকরুল (৪২), মিনহাজ মিয়া (৩৮), সাদ্দাম মিয়া (২৬), সোহেল মিয়া (৩৬), খোকন মিয়া (৩৫), আরিছ মিয়াসহ (৪৮) আহতদের  সিলেট, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নাসিরনগর ও মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

মাধবপুর থানার ওসি মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

ছাতিয়াইন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদ উদ্দিন আহম্মেদ জানান, বিষয়টি নিষ্পত্তি করার জন্যর উভয়পক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন