ব্যবসায়ী ঝুলছে রশিতে, কর্মচারীর লাশ খাটে
jugantor
ব্যবসায়ী ঝুলছে রশিতে, কর্মচারীর লাশ খাটে

  কুমিল্লা ব্যুরো  

২৭ জুলাই ২০২১, ২১:০৮:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লায় লালমাই উপজেলায় দুর্বৃত্তরা এক ব্যবসায়ী ও তার কর্মচারীকে খুন করেছে। মঙ্গলবার আনুমানিক ভোরের দিকে জেলার লালমাই উপজেলার বেলঘর উত্তর ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

হত্যার পর দুর্বৃত্তরা শরীফুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ীর মরদেহ রশিতে ঝুলিয়ে রাখে। আর ফয়েজ আহমেদ নামে এক কর্মচারীর লাশ খাটের উপর ফেলে রাখে। মঙ্গলবার দুপুরে তাদের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত ব্যবসায়ী শরীফুল ইসলাম (৩২) ওই গ্রামের মজুমদার বাড়ির হাসানুজ্জামানের ছেলে। তার কর্মচারী ফয়েজ আহমেদ (২০) একই গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শরীফুল ইসলাম কয়েক বছর ধরে নিজ বাড়ির সামনে মুদি দোকানের ব্যবসা করে আসছেন। পাশাপাশি তার একটি গরুর ফার্মও রয়েছে। ফার্ম ও দোকানে কর্মচারী হিসেবে কাজ করেন একই গ্রামের ফয়েজ আহমেদ। এবারের ঈদে শরীফ ১০ লক্ষাধিক টাকার গরু বিক্রি করেছেন।

সোমবার রাতে শরীফ দোকান বন্ধ করার পর কর্মচারী ফয়েজকে সঙ্গে নিয়ে বাড়িতে নিজের কক্ষে ঘুমাতে যান। ওই সময় শরীফের বাবা-মা তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন।

মঙ্গলবার বেলা ১১টায় শরীফের বাবা বাড়িতে এসে দরজা খুলেই দেখেন শরীফের লাশ ঘরের সিলিংয়ের (বাঁশ) সঙ্গে ঝুলছে। আর কর্মচারী ফয়েজের লাশ খাটের ওপর পড়ে রয়েছে। ফয়েজের শরীরে রক্তাক্ত জখম রয়েছে। ওই সময় শরীফের পিতার চিৎকার শুনে গ্রামবাসী ঘটনাস্থলে আসেন এবং পুলিশে খবর দেন।

স্থানীয়দের ধারণা, গরু বিক্রির টাকার জন্য শরীফকে শ্বাসরোধ করে ও ফয়েজকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

স্থানীয় বেলঘর উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের মজুমদার বলেন, শরীফ অত্যন্ত ভালো ছেলে। গ্রামের সবাই তাকে পছন্দ করত। গরুর বিক্রির টাকার জন্যই হয়তো দুজনকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকারীদের শনাক্ত করে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে লালমাই থানার ওসি মোহাম্মদ আইয়ুব বলেন, ঘটনাস্থল থেকে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। কী কারণে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ব্যবসায়ী ঝুলছে রশিতে, কর্মচারীর লাশ খাটে

 কুমিল্লা ব্যুরো 
২৭ জুলাই ২০২১, ০৯:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লায় লালমাই উপজেলায় দুর্বৃত্তরা এক ব্যবসায়ী ও তার কর্মচারীকে খুন করেছে। মঙ্গলবার আনুমানিক ভোরের দিকে জেলার লালমাই উপজেলার বেলঘর উত্তর ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

হত্যার পর দুর্বৃত্তরা শরীফুল ইসলাম নামে এক ব্যবসায়ীর মরদেহ রশিতে ঝুলিয়ে রাখে। আর ফয়েজ আহমেদ নামে এক কর্মচারীর লাশ খাটের উপর ফেলে রাখে। মঙ্গলবার দুপুরে তাদের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত ব্যবসায়ী শরীফুল ইসলাম (৩২) ওই গ্রামের মজুমদার বাড়ির হাসানুজ্জামানের ছেলে। তার কর্মচারী ফয়েজ আহমেদ (২০) একই গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, শরীফুল ইসলাম কয়েক বছর ধরে নিজ বাড়ির সামনে মুদি দোকানের ব্যবসা করে আসছেন। পাশাপাশি তার একটি গরুর ফার্মও রয়েছে। ফার্ম ও দোকানে কর্মচারী হিসেবে কাজ করেন একই গ্রামের ফয়েজ আহমেদ। এবারের ঈদে শরীফ ১০ লক্ষাধিক টাকার গরু বিক্রি করেছেন।

সোমবার রাতে শরীফ দোকান বন্ধ করার পর কর্মচারী ফয়েজকে সঙ্গে নিয়ে বাড়িতে নিজের কক্ষে ঘুমাতে যান। ওই সময় শরীফের বাবা-মা তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন।

মঙ্গলবার বেলা ১১টায় শরীফের বাবা বাড়িতে এসে দরজা খুলেই দেখেন শরীফের লাশ ঘরের সিলিংয়ের (বাঁশ) সঙ্গে ঝুলছে। আর কর্মচারী ফয়েজের লাশ খাটের ওপর পড়ে রয়েছে। ফয়েজের শরীরে রক্তাক্ত জখম রয়েছে। ওই সময় শরীফের পিতার চিৎকার শুনে গ্রামবাসী ঘটনাস্থলে আসেন এবং পুলিশে খবর দেন।

স্থানীয়দের ধারণা, গরু বিক্রির টাকার জন্য শরীফকে শ্বাসরোধ করে ও ফয়েজকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

স্থানীয় বেলঘর উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের মজুমদার বলেন, শরীফ অত্যন্ত ভালো ছেলে। গ্রামের সবাই তাকে পছন্দ করত। গরুর বিক্রির টাকার জন্যই হয়তো দুজনকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকারীদের শনাক্ত করে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে লালমাই থানার ওসি মোহাম্মদ আইয়ুব বলেন, ঘটনাস্থল থেকে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। কী কারণে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন