ছেলেকে ডাকতে গিয়ে ঝুলন্ত লাশ পেলেন মা
jugantor
ছেলেকে ডাকতে গিয়ে ঝুলন্ত লাশ পেলেন মা

  নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি   

২৮ জুলাই ২০২১, ১৯:৪০:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

নওগাঁর নিয়ামতপুরে জয়ন্ত চন্দ্র বর্মন (২০) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে তার শয়নকক্ষ থেকে মরদেহ উদ্ধার করে নওগাঁ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের পীরপুকুরিয়া (কাওয়াপাড়া) গ্রামে। নিহত যুবক পীরপুকুরিয়া (কাওয়াপাড়া) গ্রামের সুপথ চন্দ্রের ছেলে।

নিহতের বাবা সুপথ চন্দ্র জানান, জয়ন্ত গাংগোর উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০২০ সালে এসএসসি পরীক্ষায় এক বিষয়ে অকৃতকার্য হয়। লকডাউনের কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় বাড়িতেই থাকতো সবসময়। রাতে খাবার খেয়ে তার ঘরে ঘুমাতে যায়। সকালে তার মা তাকে গিয়ে দেখে ছেলে তার গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলে আছে। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে আসে ও ফাঁস খুলে নিচে নামায়।

এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানা যায়, জয়ন্ত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নাচানাচি করত। তার মা অসুস্থ থাকায় জয়ন্ত নিজেই রান্না করত। তবে কী কারণে গলায় ফাঁস দিয়েছেন, এ বিষয়ে তার পরিবারের লোকজন কিছু বলতে পারেননি।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ওসি হুমায়ুন কবির বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ নওগাঁ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের ফলাফল পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ছেলেকে ডাকতে গিয়ে ঝুলন্ত লাশ পেলেন মা

 নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি  
২৮ জুলাই ২০২১, ০৭:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নওগাঁর নিয়ামতপুরে জয়ন্ত চন্দ্র বর্মন (২০) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে তার শয়নকক্ষ থেকে মরদেহ উদ্ধার করে নওগাঁ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার রাতে উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের পীরপুকুরিয়া (কাওয়াপাড়া) গ্রামে। নিহত যুবক পীরপুকুরিয়া (কাওয়াপাড়া) গ্রামের সুপথ চন্দ্রের ছেলে।

নিহতের বাবা সুপথ চন্দ্র জানান, জয়ন্ত গাংগোর উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০২০ সালে এসএসসি পরীক্ষায় এক বিষয়ে অকৃতকার্য হয়। লকডাউনের কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় বাড়িতেই থাকতো সবসময়। রাতে খাবার খেয়ে তার ঘরে ঘুমাতে যায়। সকালে তার মা তাকে গিয়ে দেখে ছেলে তার গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলে আছে। তার চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে আসে ও ফাঁস খুলে নিচে নামায়। 

এলাকাবাসীর মাধ্যমে জানা যায়, জয়ন্ত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নাচানাচি করত। তার মা অসুস্থ থাকায় জয়ন্ত নিজেই রান্না করত। তবে কী কারণে গলায় ফাঁস দিয়েছেন, এ বিষয়ে তার পরিবারের লোকজন কিছু বলতে পারেননি।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ওসি হুমায়ুন কবির বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ নওগাঁ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের ফলাফল পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন