হাতকড়াসহ পালিয়েও শেষ রক্ষা হলো না হাবিবুরের
jugantor
হাতকড়াসহ পালিয়েও শেষ রক্ষা হলো না হাবিবুরের

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

২৮ জুলাই ২০২১, ২৩:০৪:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার আটপাড়ায় হাসপাতালে পুলিশের কাছ থেকে হাতকড়াসহ হাবিবুর রহমান (৪৭) নামের নারী নির্যাতন মামলার এক আসামি পালিয়ে যান। তবু তার শেষ রক্ষা হয়নি। জঙ্গল থেকে তাকে ফের আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার সকাল ৬টার দিকে তিনি আটপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে কৌশলে দৌড়ে পালিয়ে যান। পালিয়ে যাওয়া আসামি হাবিবুর রহমান উপজেলার স্বরমুশিয়া ইউনিয়নের রামেস্বরপুর গ্রামের কাচম আলীর ছেলে।

এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, হাবিবুর রহমান তার প্রথম স্ত্রী নাজমা আক্তারের দায়ের করা একটি মামলায় তিন মাসের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামি। মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে আটপাড় থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

এ সময় তার পাতলা পায়খানা দেখা দেয় ও অসুস্থ অনুভব করেন। পরে পুলিশ তাকে আটপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বুধবার সকাল ৬টার দিকে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলা থেকে কৌশলে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে হাতকড়াসহ পালিয়ে যান। পরে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে পুলিশ তার গ্রামের একটি জঙ্গল থেকে আটক করে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আটপাড়া থানার ওসি জাফর ইকবাল বিকাল ৫টার দিকে বলেন, হাতকড়াসহ পালিয়ে যাওয়া আসামি হাবিবুরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে থানায় আনা হচ্ছে। পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় তার বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুন্সি বলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) একেএম মনিরুজ্জামানকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। এছাড়া দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে মো. আল আমিন ও আবুল বাশার নামের যে দুজন পুলিশ পালিয়ে যাওয়া আসামির সঙ্গে ছিলেন তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে গত ২০১৭ সালের ৫ মে থেকে আজ পর্যন্ত নেত্রকোনায় পুলিশের কাছ থেকে হাতকড়া খুলে ও হাতকড়াসহ অন্তত নয়জন আসামি পলাতকের ঘটনা ঘটেছে। অবশ্য ওই আসামিরা পরে বিভিন্ন সময়ে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়। আর দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে সংশ্লিষ্ট পুলিশ সদস্যদের সাময়িক প্রত্যাহার করা হয়েছিল।

চলতি বছরের ৩১ মে দুপুরে মদন থানা পুলিশের কাছ থেকে পলাশ মিয়া (২৮) নামের চুরি মামলার এক আসামি হাতকড়াসহ পালিয়ে যান।

হাতকড়াসহ পালিয়েও শেষ রক্ষা হলো না হাবিবুরের

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
২৮ জুলাই ২০২১, ১১:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার আটপাড়ায় হাসপাতালে পুলিশের কাছ থেকে হাতকড়াসহ হাবিবুর রহমান (৪৭) নামের নারী নির্যাতন মামলার এক আসামি পালিয়ে যান। তবু তার শেষ রক্ষা হয়নি। জঙ্গল থেকে তাকে ফের আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার সকাল ৬টার দিকে তিনি আটপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে কৌশলে দৌড়ে পালিয়ে যান। পালিয়ে যাওয়া আসামি হাবিবুর রহমান উপজেলার স্বরমুশিয়া ইউনিয়নের রামেস্বরপুর গ্রামের কাচম আলীর ছেলে।

এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, হাবিবুর রহমান তার প্রথম স্ত্রী নাজমা আক্তারের দায়ের করা একটি মামলায় তিন মাসের সাজাপ্রাপ্ত ফেরারি আসামি। মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে আটপাড় থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

এ সময় তার পাতলা পায়খানা দেখা দেয় ও অসুস্থ অনুভব করেন। পরে পুলিশ তাকে আটপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বুধবার সকাল ৬টার দিকে হাসপাতালের দ্বিতীয় তলা থেকে কৌশলে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে হাতকড়াসহ পালিয়ে যান। পরে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে পুলিশ তার গ্রামের একটি জঙ্গল থেকে আটক করে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আটপাড়া থানার ওসি জাফর ইকবাল বিকাল ৫টার দিকে বলেন, হাতকড়াসহ পালিয়ে যাওয়া আসামি হাবিবুরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে থানায় আনা হচ্ছে। পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় তার বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পুলিশ সুপার মো. আকবর আলী মুন্সি বলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) একেএম মনিরুজ্জামানকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। এছাড়া দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে মো. আল আমিন ও আবুল বাশার নামের যে দুজন পুলিশ পালিয়ে যাওয়া আসামির সঙ্গে ছিলেন তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে গত ২০১৭ সালের ৫ মে থেকে আজ পর্যন্ত নেত্রকোনায় পুলিশের কাছ থেকে হাতকড়া খুলে ও হাতকড়াসহ অন্তত নয়জন আসামি পলাতকের ঘটনা ঘটেছে। অবশ্য ওই আসামিরা পরে বিভিন্ন সময়ে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়। আর দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে সংশ্লিষ্ট পুলিশ সদস্যদের সাময়িক প্রত্যাহার করা হয়েছিল।

চলতি বছরের ৩১ মে দুপুরে মদন থানা পুলিশের কাছ থেকে পলাশ মিয়া (২৮) নামের চুরি মামলার এক আসামি হাতকড়াসহ পালিয়ে যান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন