উদ্বোধনের আগেই সেতুতে ধস
jugantor
উদ্বোধনের আগেই সেতুতে ধস

  টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৯ জুলাই ২০২১, ১৩:১৪:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

সেতুতে ধস

উদ্বোধনের আগেই মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার হাসাইল-বানারী ইউনিয়নে চরাঞ্চলে নির্মিত ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটি ধসে পড়েছে।

বৃহস্পতিবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়- সেতুটির এপ্রোচ বিলীন হয়ে সেতুটি ধসে পড়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে বিদগাঁও, বানারী, পাচনখোলা, জয়বাংলা গ্রামসহ ১৬টি গ্রামের ১১ হাজার সাধারণ মানুষ। বিকল্প সড়ক না থাকায় বিরম্বনা নিয়েই প্রতিদিন বিভিন্ন কাজে উপজেলা সদরে তারা যাতায়াত করছেন।

বানারীর বাসিন্দা রফিক জানান, ব্রিজ নির্মাণে কিছুদিন পরে প্রাকৃতিক দুর্যোগ (বন্যা) দেখা দেয়। পানির তোরে ব্রিজের নিচের অংশের মাটি সরে গিয়ে সেতুটি ধসে পড়ে যায়। এছাড়াও চরাঞ্চলের বেশীর ভাগ সড়ক বন্যায় বিলীন হয়ে গেছে। গত এক বছর ধরে বিলীন হওয়ার পরও কোনো কাজ না করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ।

বৃদ্ধ থেকে শুরু করে ছোট ছোট শিশুরা বহু কষ্টে প্রতিদিন হাট-বাজারে যাতায়াত করে। ব্রিজসহ সড়কগুলো পুনরায় নির্মাণ করা খুবই প্রয়োজন।

উপজেলা প্রকল্প-বাস্তবায়ন অধিদপ্তর সূত্রে জানাযায়, ২০১৮-২০১৯ইং অর্থবছরে টেন্ডারের মাধ্যমে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেঘলা এন্টার প্রাইজ কাজটি পায়। কিন্তু তারা কাজটি না করে, তা সাব কন্ট্রাকের মাধ্যমে অন্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কাজটি সম্পন্ন করে। তবে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান তাদের কাজ বুঝিয়ে দিয়েছিল।

উপজেলা প্রকল্প-বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাজেদা সরকার জানান, গত বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সেতুটির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।

উদ্বোধনের আগেই সেতুতে ধস

 টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৯ জুলাই ২০২১, ০১:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সেতুতে ধস
ছবি: যুগান্তর

উদ্বোধনের আগেই মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার হাসাইল-বানারী ইউনিয়নে চরাঞ্চলে নির্মিত ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটি ধসে পড়েছে।

বৃহস্পতিবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়- সেতুটির এপ্রোচ বিলীন হয়ে সেতুটি ধসে পড়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে বিদগাঁও, বানারী, পাচনখোলা, জয়বাংলা গ্রামসহ ১৬টি গ্রামের ১১ হাজার সাধারণ মানুষ। বিকল্প সড়ক না থাকায় বিরম্বনা নিয়েই প্রতিদিন বিভিন্ন কাজে উপজেলা সদরে তারা যাতায়াত করছেন।

বানারীর বাসিন্দা রফিক জানান, ব্রিজ নির্মাণে কিছুদিন পরে প্রাকৃতিক দুর্যোগ (বন্যা) দেখা দেয়। পানির তোরে  ব্রিজের নিচের অংশের মাটি সরে গিয়ে সেতুটি ধসে পড়ে যায়। এছাড়াও চরাঞ্চলের বেশীর ভাগ সড়ক বন্যায় বিলীন হয়ে গেছে। গত এক বছর ধরে বিলীন হওয়ার পরও কোনো কাজ না করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষ।

বৃদ্ধ থেকে শুরু করে ছোট ছোট শিশুরা বহু কষ্টে প্রতিদিন হাট-বাজারে যাতায়াত করে। ব্রিজসহ সড়কগুলো পুনরায় নির্মাণ করা খুবই প্রয়োজন।

উপজেলা প্রকল্প-বাস্তবায়ন অধিদপ্তর সূত্রে জানাযায়, ২০১৮-২০১৯ইং অর্থবছরে টেন্ডারের মাধ্যমে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেঘলা এন্টার প্রাইজ কাজটি পায়। কিন্তু তারা কাজটি না করে, তা সাব কন্ট্রাকের মাধ্যমে অন্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কাজটি সম্পন্ন করে। তবে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান তাদের কাজ বুঝিয়ে দিয়েছিল।

উপজেলা প্রকল্প-বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাজেদা সরকার জানান, গত বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে সেতুটির ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন