গ্যাসের চুলার আগুনে পুড়ল ঘর, অল্পের জন্য বেঁচে গেল ২ শিশু
jugantor
গ্যাসের চুলার আগুনে পুড়ল ঘর, অল্পের জন্য বেঁচে গেল ২ শিশু

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নবীনগর প্রতিনিধি  

২৯ জুলাই ২০২১, ২৩:২৩:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর পৌর এলাকার মধ্যপাড়া শাহ সাহেব বাড়ির পাশে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদ মিয়ার বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এ সময় শহিদ মিয়া ও তার দুই নাতি ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। তারা কোনো রকমে জীবন বাঁচাতে পারলেও ঘরের সব জিনিসপত্র পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শহিদ মিয়ার ছেলে প্রবাসী সামসুল আলমের স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিন, গ্যাসের চুলায় দুধ গরম করছিলেন, হঠাৎ করে চুলার আগুন গ্যাস সিলিন্ডারের পাইপে চলে যায়। মুহূর্তের মাঝে আগুন পুরো ঘরে ছড়িয়ে পড়ে।

এ সময় তার চার বছরের ও দুই বছরের দুই সন্তানসহ শ্বশুর শহিদ মিয়া পাশের রুমে ঘুমিয়ে ছিলেন। আগুন ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিলুফা ইয়াসমিন তার ২ সন্তান ও শ্বশুরকে নিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে কোনো রকমে জীবন রক্ষা করেন। আগুনের লেলিহান শিখা চারদিকে ছড়িয়ে যাওয়ায় আতংকিত হয়ে পড়ে আশপাশের বাসিন্দারা।

পরে সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিস এসে নবীনগর থানা পুলিশ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুনে সামসুল আলমের একটি চার চালা টিনের ঘর ও ঘরের ভিতর রাখা একটি মোটরসাইকেল, নগদ ৭০ হাজার, আসবাবপত্র ও শহিদ মিয়ার মুক্তিযোদ্ধার সনদ, ব্যাংক চেক বই, প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সব কিছু পুড়ে ছায় হয়ে গেছে।

মুক্তিযোদ্ধা শহিদ মিয়া বলেন, কোনো রকমে জীবন নিয়ে ঘর থেকে বের হয়েছি। আমার মুক্তিযুদ্ধের সনদসহ সব কাগজপত্র পুড়ে গেছে।

ফায়ার সার্ভিস টিমের প্রধান সাব অফিসার মো. সামছুল হক বলেন, আমাদের এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। গ্যাস সিলিন্ডার পাইপ থেকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে বলে জানতে পেরেছি।

সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নবীনগর পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট শিব শংকর দাস ও স্থানীয় কাউন্সিলররা।

গ্যাসের চুলার আগুনে পুড়ল ঘর, অল্পের জন্য বেঁচে গেল ২ শিশু

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নবীনগর প্রতিনিধি 
২৯ জুলাই ২০২১, ১১:২৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর পৌর এলাকার মধ্যপাড়া শাহ সাহেব বাড়ির পাশে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদ মিয়ার বাড়িতে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে এক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এ সময় শহিদ মিয়া ও তার দুই নাতি ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। তারা কোনো রকমে জীবন বাঁচাতে পারলেও ঘরের সব জিনিসপত্র পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শহিদ মিয়ার ছেলে প্রবাসী সামসুল আলমের স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিন, গ্যাসের চুলায় দুধ গরম করছিলেন, হঠাৎ করে চুলার আগুন গ্যাস সিলিন্ডারের পাইপে চলে যায়। মুহূর্তের মাঝে আগুন পুরো ঘরে ছড়িয়ে পড়ে।

এ সময় তার চার বছরের ও দুই বছরের দুই সন্তানসহ শ্বশুর শহিদ মিয়া পাশের রুমে ঘুমিয়ে ছিলেন। আগুন ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিলুফা ইয়াসমিন তার ২ সন্তান ও শ্বশুরকে নিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে কোনো রকমে জীবন রক্ষা করেন। আগুনের লেলিহান শিখা চারদিকে ছড়িয়ে যাওয়ায় আতংকিত হয়ে পড়ে আশপাশের বাসিন্দারা।

পরে সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিস এসে নবীনগর থানা পুলিশ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুনে সামসুল আলমের একটি চার চালা টিনের ঘর ও ঘরের ভিতর রাখা একটি মোটরসাইকেল, নগদ ৭০ হাজার, আসবাবপত্র ও শহিদ মিয়ার মুক্তিযোদ্ধার সনদ, ব্যাংক চেক বই, প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সব কিছু পুড়ে ছায় হয়ে গেছে।

মুক্তিযোদ্ধা শহিদ মিয়া বলেন, কোনো রকমে জীবন নিয়ে ঘর থেকে বের হয়েছি। আমার মুক্তিযুদ্ধের সনদসহ সব কাগজপত্র পুড়ে গেছে।

ফায়ার সার্ভিস টিমের প্রধান সাব অফিসার মো. সামছুল হক বলেন, আমাদের এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। গ্যাস সিলিন্ডার পাইপ থেকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে বলে জানতে পেরেছি।

সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নবীনগর পৌরসভার মেয়র অ্যাডভোকেট শিব শংকর দাস ও স্থানীয় কাউন্সিলররা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন