পুত্রবধূকে মারধরের প্রতিবাদ, পিতাকে ছুরিকাঘাতে খুন
jugantor
পুত্রবধূকে মারধরের প্রতিবাদ, পিতাকে ছুরিকাঘাতে খুন

  কক্সবাজার প্রতিনিধি  

৩০ জুলাই ২০২১, ২৩:৫১:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

পুত্রবধূকে মারধরের প্রতিবাদ করায় কক্সবাজার শহরে মাদকাসক্ত ছেলের ছুরিকাঘাতে আবদুর রহিম (৬৫) নামের এক বৃদ্ধ খুন হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে শহরে দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার বাঁচামিয়ার ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর ঘাতক আয়ুব (২৭) পালিয়েছে।

ঘাতক আয়ুবের স্ত্রী জ্যোৎস্না আক্তার বলেন, আমি একটি এনজিও চাকরি করি, প্রতিদিনের মতো বিকালে অফিস শেষ করে বাড়িতে আসার পর কোনো কারণ ছাড়াই নেশাগ্রস্ত অবস্থায় আমার স্বামী আমাকে অকথ্যভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করে। এ সময় আমার শাশুড়ি প্রতিবাদ করলে তাকেও গালিগালাজ করতে থাকে। শ্বশুর আবদুর রহিম এসবের প্রতিবাদ করেন। এর পর আয়ুব তার কোমর থেকে ছুরি বের করে পিতাকে ছুরিকাঘাত করলে তিনি সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুঠে পড়েন।

তিনি আরও বলেন, ছুরিকাঘাতের পর আমরা সবাই মিলে রক্তাক্ত শ্বশুরকে হাসপাতালে নেওয়ার চেষ্টা করলেও পাষণ্ড ছেলে তাতে বাঁধা দেয়। এক পর্যায়ে দুই ঘণ্টা পর পিতার মৃত্যু নিশ্চিত হলে ঘাতক আয়ুব পালিয়ে যায়।

জ্যোৎস্না আক্তার ঘাতক স্বামীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কক্সবাজার শহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন বলেন, ঘাতক আয়ুবকে এখনো গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে তাকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে যে কোনোভাবে যদি পুলিশকে বিষয়টি জানালে হয়তো বৃদ্ধ আবদুর রহিমকে বাঁচানো যেতো। কিন্তু ভুক্তভোগী পরিবার বা আশেপাশের কেউ পুলিশকে বিষয়টি জানায়নি। লাশ উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

পুত্রবধূকে মারধরের প্রতিবাদ, পিতাকে ছুরিকাঘাতে খুন

 কক্সবাজার প্রতিনিধি 
৩০ জুলাই ২০২১, ১১:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পুত্রবধূকে মারধরের প্রতিবাদ করায় কক্সবাজার শহরে মাদকাসক্ত ছেলের ছুরিকাঘাতে আবদুর রহিম (৬৫) নামের এক বৃদ্ধ খুন হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে শহরে দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার বাঁচামিয়ার ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর ঘাতক আয়ুব (২৭) পালিয়েছে। 

ঘাতক আয়ুবের স্ত্রী জ্যোৎস্না আক্তার বলেন, আমি একটি এনজিও চাকরি করি, প্রতিদিনের মতো বিকালে অফিস শেষ করে বাড়িতে আসার পর কোনো কারণ ছাড়াই নেশাগ্রস্ত অবস্থায় আমার স্বামী আমাকে অকথ্যভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করে। এ সময় আমার শাশুড়ি প্রতিবাদ করলে তাকেও গালিগালাজ করতে থাকে। শ্বশুর আবদুর রহিম এসবের প্রতিবাদ করেন। এর পর আয়ুব তার কোমর থেকে ছুরি বের করে পিতাকে ছুরিকাঘাত করলে তিনি সঙ্গে সঙ্গে  মাটিতে লুঠে পড়েন।

তিনি আরও বলেন, ছুরিকাঘাতের পর আমরা সবাই মিলে রক্তাক্ত শ্বশুরকে হাসপাতালে নেওয়ার চেষ্টা করলেও পাষণ্ড ছেলে তাতে বাঁধা দেয়। এক পর্যায়ে দুই ঘণ্টা পর পিতার মৃত্যু নিশ্চিত হলে ঘাতক আয়ুব পালিয়ে যায়।

জ্যোৎস্না আক্তার ঘাতক স্বামীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কক্সবাজার শহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন বলেন, ঘাতক আয়ুবকে এখনো গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে তাকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে যে কোনোভাবে যদি পুলিশকে বিষয়টি জানালে  হয়তো বৃদ্ধ আবদুর রহিমকে বাঁচানো যেতো। কিন্তু ভুক্তভোগী পরিবার বা আশেপাশের কেউ পুলিশকে বিষয়টি জানায়নি। লাশ উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন